Main Menu

Wednesday, June 13th, 2018

 

দেশি বাগান গিরগিটি বাংলাদেশসহ প্রাচ্যের সুপরিচিত গিরগিটি

বৈজ্ঞানিক নাম:  Calotes versicolor (Daudin, 1802) সমনাম: Agama versicolor Daudin, 1802, Agama tiedmanni Kuhl, 1820, Calotes versicolor Fitzinger, 1826. বাংলা নাম: দেশি বাগান গিরগিটি, ইংরেজি নাম:  Oriental Garden Lizerd. জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস জগৎ/রাজ্য: Animalia বিভাগ: Chordata শ্রেণী:  Reptilia বর্গ: Squamata. উপবর্গ: Iguania পরিবার: Agamidae গণ: Calotes প্রজাতি: Calotes versicolor (Daudin, 1802) পরিচিতি: দেশি বাগান গিরগিটি, (ইংরেজি: Oriental Garden Lizerd) যাদের বৈজ্ঞানিক নাম Calotes versicolor হচ্ছে অতি সুপরিচিত সরীসৃপ। তুণ্ড থেকে পায়ুর দৈর্ঘ্য ১২সেমি, লেজের দৈর্ঘ্য ৩২ সেমি। স্বভাব: দেশি বাগান গিরগিটি বনাঞ্চলের চারপাশের এলাকায় ঝোঁপে ও গ্রামাঞ্চলের খোলা এলাকায় বাস করে।Read More


পান পাতার ভেষজ গুনাগুণ ও উপকারিতা

পান হচ্ছে পিপারাসি পরিবারের পিপার গণের একটি লতানো উদ্ভিদ। এরা গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলের একপ্রকার লতাজাতীয় গাছের পাতা। এদের বৈজ্ঞানিক নাম Piper betle. নিম্নে পানের রোগ প্রতিকারে পানের ভেষজ গুনাগুণ উল্লেখ করা হলো। পান পাতা সম্পর্কে জানতে বিস্তারিত পড়ুন পান পিপার গণের ঔষধি অর্থকরী লতা (১) পানের রোগ-নাশিনী শক্তি সম্পর্কে সর্বাগ্রে মনে রাখতে হবে যেখানে শ্লেমাপ্রধান রোগ, সেখানেই তার প্রভাব বেশি; তাই রসতাত্ত্বিক আয়ুর্বেদগণ ঔষধের সহপানে পানের রস বেশি ব্যবহার করেন। (২) মাড়ির ক্ষতে: দাঁতের মাড়ির দুষিত ক্ষতে পুজ জমতে থাকলে পানের রসের সঙ্গে অল্প জল মিশিয়ে কুলকুচি করলে ওখানে আর পুজRead More


বাগান তৈরির বিস্তারিত প্রক্রিয়া

এক খণ্ড জমিতে কয়েকটি আলংকারিক উদ্ভিদ লাগিয়ে দিলেই বাগান রচিত হয় না। চিত্ত বিনোদন যেহেতু বাগানের মূখ্য উদ্দেশ্য, সেজন্য বাগান এমনভাবে তৈরি করতে হবে যাতে সেখানে গেলে আগন্তুকের মন আনন্দে ভরে উঠে। এজন্য সুচিন্তিতভাবে ও পরিকল্পিত উপায়ে বাগান তৈরি করতে হয়। একটি আদর্শ গণোদ্যানের বৈশিষ্ট্য ও নির্মাণ প্রক্রিয়া নিচে সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো। স্থান নির্বাচনে মনোযোগ দিন উন্নত দেশসমূহে আজকাল বাসগৃহ, অফিস, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা গৃহের ডিজাইন তৈরির সময় বাগান তৈরি ও আলংকারিক উদ্ভিদ জন্মাবার ব্যবস্থা বিবেচনা করা হয়। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা আছেন, এদেরকে বলা হয় landscape architect. ভবন সংলগ্নRead More


আদা ও শুঠের ১০টি গুণাগুণ

আদা কন্দজাতীয় উদ্ভিদ। ভারতের সর্বত্র আদা হরিদ্রার (Curcuma domestica) মতো চাষ হয়, তবে কম-বেশি গাছ ২ থেকে ৩ ফুট উচু হতে দেখা যায়; সুবিন্যস্ত পত্র ১ থেকে ১১/২ ইঞ্চি চওড়া, ১২।১৩ ইঞ্চি লম্বা। এর পাতাগুলি সুন্দর ভাবে সাজানো দেখেই বৈদিক যুগে তার নাম সৌপর্ণ; এতে একটি সুমিষ্ট-গন্ধেরও অস্তিত্ব থাকে। গাছটির বোটানিক্যাল নাম Zingiber officinale Rosc. ফ্যামিলি Zingiberaceae.আদা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পড়ুন আদা একটি ঔষধি কন্দজ গুল্ম আদা গাছের মূলই (কন্দ) গ্রহণ করা হয়; আবার তাকে বিশেষ প্রক্রিয়ায় শুকিয়ে নেওয়া হয়, তখন তার নাম হয় শুঠ বা শুণ্ঠী। আয়ুর্বেদিক গ্রন্থে ঔষধার্থেRead More


বাগানের জন্য উদ্ভিদ নির্বাচনের পদ্ধতি

কোথাও এলোমেলোভাবে কয়েকটি উদ্ভিদ লাগিয়ে দিলেই বাগান হয় না। বাগান হবে এমন একটি স্থান বা পরিবেশ যা মনের মধ্যে একটি অনুভূতি জাগিয়ে তুলবে, সে অনুভূতি হতে পারে আনন্দের, স্নিগ্ধতার অথবা নির্জনতার। বাগান করা একটি শিল্পকর্ম। এর জন্য একদিকে যেমন সৌন্দর্য সম্পর্কে অন্তর দৃষ্টি থাকা প্রয়োজন, অপরদিকে তেমনি উদ্ভিদের আকার-আকৃতি, ফুল ধরার সময় ও পারিপার্শ্বিক পরিবেশ ও চাহিদা সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান থাকা অপরিহার্য। এ দুয়ের সার্থক সমন্বয় ঘটাতে পারলেই কেবল আকর্ষণীয় বাগান তৈরি হতে পারে। বাগানের জন্য উদ্ভিদ নির্বাচন ও নির্বাচিত উদ্ভিদ লাগানাের স্থান নির্ণয় বাগান রচনার সবচেয়ে দুরূহ কাজ। এRead More


রসুন খাওয়ার উপকারিতা

রসুন লিলিয়াসি পরিবারের এলিয়াম গণের বর্ষজীবী উদ্ভিদ। ভারত বা তার আশেপাশে নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে চাষ হয়, তা ছাড়া পৃথিবীর অন্যান্য মহাদেশেও এর চাষ হয়ে থাকে। এর বোটানিক্যাল নাম Allium sativum Linn. নিম্নে রসুনের ভেষজ উপকারিতা উল্লেখ করা হলো। রসুন সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পড়ুন রসুন সারা দুনিয়ায় ব্যবহৃত জনপ্রিয় সবজি মসলা লোকায়তিক ব্যবহার                       (১) ঢলা যৌবন: কোনো দিকেই একে ধরে রাখা যাচ্ছে না, এক্ষেত্রে (ক) দু’ কোয়া রসুন গাওয়া ঘিয়ে ভেজে মাখন মাখিয়ে খেতে হয়, খাওয়ার শেষে একটু গরমজল পান করা উচিত। (খ) আটার সঙ্গে রসুন বাটা মিশিয়ে রুটি বা লুচি করেRead More


পিয়াজ বা পেয়াজের উপকারিতা

পেয়াজ লিলিয়াসি পরিবারের এলিয়াম গণের বর্ষজীবী কন্দমূলের গাছ। এটি বেশ রসালো। সবজি হিসাবে খাওয়া হয়। এর বোটানিক্যাল নাম Allium cepa Linn. একটি পেঁয়াজে আছে নানা ঔষধি গুণ। পেয়াজ সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য পড়ুন পেয়াজ সারা দুনিয়ায় ব্যবহৃত জনপ্রিয় সবজি মসলা ঔষধি গুণাগুণ: (১) তরুণ সর্দিত: মনে হয় যেন জ্বর আসছে, সেইরকম সব লক্ষণ দেখা দিলে নাক বন্ধ, কপাল ভার; সেক্ষেত্রে পেয়াজের রস করে নাস নিলে সর্দিও বেরিয়ে যায় এবং জ্বর ভাবও চলে যায়। (২) প্রসাব কষা হওয়া: যেকোনো কারণে শরীর গরম হয়ে প্রস্রাব কষে গিয়েছে, সেক্ষেত্রে পেয়াজের রস ১ চা-চামচRead More


ফুলের বাগান প্রসঙ্গ ও বাগানের প্রকারভেদ

বাগানের সনাতন সংজ্ঞা হচ্ছে, একটি ভবনের পাশে আলংকারিক উদ্ভিদ জন্মাবার উদ্দেশ্যে বেড়া দিয়ে ঘেরাওকৃত ভূমিখণ্ড। সময়ের সাথে বাগানের ধারণা ও বৈশিষ্ট্যের পরিবর্তন ঘটেছে। বাগান এখন অনেক প্রকারের হয়ে থাকে। ব্যবহার অনুযায়ী বাগান মূলত দুরকমের যথা ব্যক্তিগত (পারিবারিক বা সংস্থার মালিকানাধীন) এবং সরকারি। সরকারী বাগান আবার দুপ্রকার। শহর থেকে দূরে মনোরম নৈসর্গিক সৌন্দর্যমণ্ডিত স্থানে বৃহৎ এলাকা নিয়ে যেসব উদ্যান তৈরি করা হয় সেগুলোকে বলে জাতীয় উদ্যান (ইংরেজি: national park)। জাতীয় উদ্যানে স্থানীয় গাছপালার প্রাধান্য থাকে, আলংকারিক উদ্ভিদের চাষ সেখানে মূখ্য উদ্দেশ্য নয়। জাতীয় উদ্যানের জন্য এমন সব স্থান নির্বাচন করা হয়Read More


গাছবেড়া বা হেজ উপযোগী উদ্ভিদ এবং বেড়া রক্ষণাবেক্ষণ পদ্ধতি

গাছবেড়া বা হেজ (ইংরেজি: Hedge) হচ্ছে সারি করে উদ্ভিদ লাগিয়ে যে বেড়া তৈরি করা হয় তার নাম। একাধিক উদ্দেশ্যে এটা ব্যবহৃত হয়। বাগানের বা বাড়ি ঘরের সীমানা দেয়ালের বিকল্প হিসেবেই এর প্রধান ব্যবহার। বাগানের বিভিন্ন অংশ পরস্পর থেকে আলাদা করতে অথবা তারের বেড়া ও পাকা দেয়াল ঢেকে রাখার জন্যও এটা কাজে লাগানো হয়। উদ্দেশ্য অনুযায়ী হেজের উচ্চতা ২ মিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে। অনেক সময় বাগানের রাস্তা ও লনের মাঝখানে অথবা লনের চতুর্দিকে নিচু হেজ তৈরি করা হয়, এ জাতীয় হেজকে ঘেরা (border) বলা হয়। ঘেরা সাধারণত ২৫-৫০ সেমি উঁচু এবংRead More