Main Menu

Thursday, June 28th, 2018

 

ইন্দুসুধা ঘোষ যুগান্তর দলের বিপ্লবী

ইন্দুসুধা ঘোষ জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৯০৫ সালে ময়মনসিংহে। বাবার বাড়ি ঢাকা জেলার বজ্রযোগিনীতে। তার পিতা সতীশচন্দ্র ঘোষ ও মাতা প্রিয়কুমারী দেবী।  তাঁর বাবা পেশায় সরকারি কর্মচারী ছিলেন। ছোটবেলা থেকেই ছবি আঁকতেন তিনি। ময়মনসিংহ বিদ্যাময়ী স্কুলে পড়তেন। ময়মনসিংহ বিদ্যাময়ী স্কুল থেকে তিনি ম্যাট্রিক পাস করেন।  সেখানে আঁকা ও সেলাইতে নিয়মিত পুরস্কার পেতেন। সোনার মেডেলও পেয়েছেন। কবি রবীন্দ্রনাথ নিজেই তার শিল্পকর্ম দেখে মুগ্ধ হন। প্রতিমা দেবী তার হাতের কাজের প্রদর্শনী দেখেতে  শান্তিনিকেতনে আমন্ত্রণ জানান। তিনি শান্তিনিকেতনের কলাভবনে আচার্য নন্দলাল বসুর ছাত্রীরূপে ১৯২৬ সাল থেকে চার বছর কলাশিল্পে শিক্ষালাভ করেন। আচার্যের উৎসাহেই তৈরি করেনRead More


স্পেনের গৃহযুদ্ধ প্রসঙ্গ এবং প্রাসঙ্গিক ইতিহাস

স্পেনে ১৯৩১ সালে রাজতন্ত্রের পরিবর্তে প্রজাতন্ত্র স্থাপিত হয়। ১৯৩১ এবং ১৯৩৩ সালের নির্বাচনে ডানপন্থী ও মধ্যপন্থিরা জয়লাভ করে। নতুন সরকার অভিজাত শ্রেণির ক্ষমতা ও প্রতিপত্তি খর্ব করে বিভিন্ন আইন প্রণয়নের চেষ্টা করে। স্পেনে শক্তিশালী মধ্যবিত্ত শ্রেণি না থাকায় এই নতুন গণতান্ত্রিক সরকারের ভিত্তি অত্যন্ত দুর্বল হয়ে পড়ে। বামপন্থী এবং দক্ষিণপন্থী কোনো গোষ্ঠীই এই সরকারকে সমর্থন করে না। বামপন্থীদের দৃষ্টিতে এই সরকার ছিলো রক্ষণশীল আর দক্ষিণপন্থীরা এই সরকারকে অতিবৈপ্লবিক বলে মনে করে। এই অবস্থায় সরকারের মধ্যপন্থা নীতি জনসাধারণের বিশেষ সমর্থন লাভ করতে পারে না। ১৯৩৬ সালের স্পেনের সাধারণ নির্বাচনে বামপন্থী পপুলারRead More


নিম চিরহরিৎ ঔষধি বৃক্ষ

ভূমিকা: নিম বা নিম্ব মেলিয়াসি পরিবারের এযারিডাক্টা গণের একটি সপুষ্পক উদ্ভিদের প্রজাতি। এরা মাঝারি থেকে বৃহদাকার চিরহরিৎ থেকে অর্ধ পত্রঝরা বৃক্ষ। বিবরণ: নিম গাছ ৩০ মিটার পর্যন্ত উঁচু হয়।  অল্প বয়স্ক বাকল মসৃণ, বয়ষ্ক কান্ডের বাকল বিদীর্ণ এবং স্তরে স্তরে সজ্জিত, পাটল বর্ণ বাদামী বা ধূসর, ভেতরের বাকল কমলা থেকে লাল, চটচটে এবং গন্ধময় রসযুক্ত। পল্লব ৪ থেকে ৮ মিমি লম্বা, উল্লম্ব এবং ফ্যাকাশে বায়ুরবিশিষ্ট, ক্ষতিগ্রস্থ হলে রসুনের মতো গন্ধ ছড়ায়। পাতা একান্তর, সচূড় পক্ষল, ১৫ থেকে ৩৫ সেমি লম্বা, পত্রক ৪ থেকে ৭ জোড়া, কচি অবস্থায় লালচে, পত্রবৃন্ত ৩Read More


চারুশীলা দেবী ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের বিপ্লবী নেত্রী

চারুশীলা দেবী ১৮৮৩ সালে মেদিনীপুরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।  তিনি মেদিনীপুর স্থানীয় ছিলেন। পিতার নাম রাখালচন্দ্র অধিকারী, মা কুমুদিনী দেবী। চারুশীলা দেবী ছিলেন ভূদেব মুখখাপাধ্যায়ের প্রথম ছাত্রী। শিশু বয়স থেকেই তিনি ছিলেন পাঠপ্রিয় এবং স্বাতন্ত্র্যপ্রিয়। বারোবছর বয়সে তার বিবাহ হয়েছিলে মেদিনীপুরের বীরেন্দ্রকুমার গোস্বামীর সঙ্গে। শৈশবে পিতৃ মাতৃহীন অগ্নিশিশু ক্ষুদিরাম থাকতেন মেদিনীপুর শহরের উপকণ্ঠে হবিবপুরে তার দিদির কাছে। তিনি প্রায়ই চারুশীলা দেবীর বাড়িতে আসতেন। তাকে ক্ষুদিরাম এতো ভালোবাসতেন যে, মাঝে মাঝে দিদির বাড়ি থেকে চলে এসে তার কাছে থাকতেন। ক্ষুদিরাম ছিলেন চারুশীলা দেবী অপেক্ষা কয়েক বছরের ছোট। ক্ষুদিরাম জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৮৮৯ সালের ৩Read More


ইন্দুমতী সিংহ চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহের নেত্রী

চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠনের অন্যতম বিপ্লবী নেতা অনন্ত সিংহের বড় বোন ইন্দুমতী সিংহ। তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৮৯৮ সালে। তাদের পিতা গোলাপ সিংহ। তাঁদের পূর্বপুরুষরা রাজপুত ছিলেন কিন্তু ইন্দুমতী মধ্যে বংশের কোনো অহংকার ছিলো না। চট্টগ্রামের বিপ্লবী অধিনায়ক সূর্য সেনের বিপ্লবীদলের কর্মী ছিলেন ইন্দুমতী সিংহ। ভাই অনন্ত সিংহ যখন অস্ত্রাগারে লুণ্ঠনের পর পলাতক হন এবং পরে গ্রেপ্তার হন, তখন আত্মীয়-স্বজনেরা তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা পর্যন্ত বন্ধ করে দিলেন। পুলিসের পীড়নের তো কথাই ছিল না। | সেই সময় চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠনের ধৃত বিপ্লবীদের মামলা পরিচালনার জন্য অর্থ সংগ্রহ করবার সম্পূর্ণ দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেনRead More


কলকে এপোসিনাসি পরিবারের একটি আলংকারিক ফুল

ভূমিকা: কলকে (বৈজ্ঞানিক নাম: Cascabela thevetia) এপোসিনাসি পরিবারের কাসকাবেলা গণের একটি সপুষ্পক উদ্ভিদের প্রজাতি। এরা আকারে বৃহৎ গুল্ম বা ক্ষুদ্র বৃক্ষ হতে পারে। বিবরণ: কলকে গাছের কাণ্ড ও শাখা মসৃণ, কর্কবৎ, তরুক্ষীরবাহী। পত্র সমাকীর্ণ, সর্পিল বা একান্তর, অর্ধবৃন্তক, পত্রফলক ৮-১৫ x ১ সেমি, রৈখিক-বল্লমাকার, সূক্ষ্মাগ্র বা খাটোভাবে দীর্ঘা, নিম্নাংশ ক্রমান্বয়ে সরু, উজ্জ্বল সবুজ ও চকচকে, অর্ধচর্মবৎ, প্রান্ত ঈষৎ পশ্চাদমুখী বক্র, মধ্যশিরা স্পষ্ট, পার্শ্ব শিরা অস্পষ্ট। এদের সাইম স্বল্প-পুষ্পবিশিষ্ট, প্রান্তীয়, পুষ্পদন্ড অতিক্ষুদ্র, মঞ্জরীপত্র বিষম, আশুপাতী, মঞ্জরীপত্রিকা অনূর্ধ্ব ২.৮ সেমি লম্বা। পুষ্প হলুদ বা কমলা, কদাচ সাদা, মঞ্জরীপত্রিকা ব-দ্বীপ সদৃশ, দীর্ঘায়িত, ২Read More


সারবেরা হচ্ছে উদ্ভিদের এপোসিনাসি পরিবারের একটি গণ

বিবরণ: সারবেরা হচ্ছে এপোসিনাসি পরিবারের একটি গণের নাম। এরা ক্ষুদ্র, স্থূলাকার শাখাবিশিষ্ট মসৃণ বৃক্ষ। পত্র একান্তর, দীর্ঘ, বিডিম্বাকার-বল্লমাকার, শিরাসমূহ সরু, আনুভূমিক ও সমান্তরাল। সারবেরা গণের উদ্ভিদের পুষ্প শিথিল, এক পার্শ্বীয়ভাবে শাখায়িত, দীর্ঘ-পুষ্পদণ্ডী, প্রান্তীয় পুষ্পবিন্যাসে অবস্থিত। বৃতি অগ্রন্থিল, পশ্চাদমুখী বক্র, বল্লমাকার, নিম্নাংশে সংকীর্ণ, সূক্ষ্মাগ্র, পর্ণমোচী। দলমণ্ডল হলুদ গলদেশ বিশিষ্ট নিখাদ শুভ্র, অভ্যন্তর মসৃণ, নল মূলীয় অংশের দিকে বেলনাকার, মুখে কুপি-আকৃতির, দৈর্ঘ্যে মূলীয় অংশের চেয়ে খাটো বা সমান, দলমণ্ডল খন্ড নলের চেয়ে দীর্ঘতর, বিষমভাবে উপবৃত্তাকার, স্থূলাগ্র, কুঁড়ি অবস্থায় বাম দিকে অধিক্রমনিত। এই গণের উদ্ভিদগুলোর পুংকেশর দলমণ্ডল নলের মধ্যবর্তী স্থানে সন্নিবেশিত, পরাগধানী আয়তাকার-বল্লমাকার,Read More


নয়নতারা এপোসিনাসি পরিবারের একটি আলংকারিক ফুল

বিবরণ: নয়নতারা (বৈজ্ঞানিক নাম: Catharanthus roseus ইংরেজি নাম: Madagascar periwinkle, rose periwinkle, or rosy periwinkle) এপোসিনাসি পরিবারের ক্যাথারান্থুস গণের একটি বহুবর্ষজীবী বীরুৎ বা উপ-গুল্ম। এদেরকে সাধারণত বাগানের আলংকারিক উদ্ভিদ হিসেবে টবে বা বাগানে রোপণ করা হয়। বর্ণনা: নয়নতারার পত্র মসৃণ, গ্রন্থিবিহীন, পত্রবৃন্ত ০.৮-১.৩ সেমি লম্বা, কাক্ষিক গ্রন্থি বিশিষ্ট, পত্রফলক ৫.০-৬.৫ X ১.৭-৩.০ সেমি, বিডিম্বাকার, বি-বল্লমাকার বা উপবৃত্তাকার-বল্লমাকার, মধ্যবর্তী স্থানের উপরে প্রশস্ততম, নিম্নাংশে কীলকাকার, শীর্ষ গোলাকার। সাইম কাক্ষিক, একল বা জোড়াবদ্ধ। এদের পুষ্প সাদা বা গোলাপি। বৃতি ৫-খন্ডিত, অভ্যন্তরে গ্রন্থিবিহীন, রৈখিক, তুরপুন আকার, রোমশ। দলমণ্ডল থলিকাকার, নল বেলনাকার, গলদেশ সংকুচিত, অভ্যন্তরেRead More


ক্যাথারান্থুস হচ্ছে উদ্ভিদের এপোসিনাসি পরিবারের একটি গণ

বিবরণ: ক্যাথারান্থুস হচ্ছে এপোসিনাসি পরিবারের একটি গণের নাম। এরা খাড়া, বহুবর্ষজীবী বীরুৎ বা উপ-গুল্ম, কখনও কখনও কিছুটা সরস, মসৃণ বা অণুরোমশ কাণ্ড ও পত্রবিশিষ্ট। পত্র প্রতিমুখ, বিডিম্বাকার বা সংকীর্ণভাবে বল্লমাকার, গ্রন্থিবিহীন, অনুপপত্রী, কক্ষে গ্রন্থিবিশিষ্ট সবৃন্তক। পুষ্পবিন্যাস কাক্ষিক সাইম, একল বা জোড়াবদ্ধ। ক্যাথারান্থুস গণের উদ্ভিদগুলোর ফুল পুষ্প সাদা বা গোলাপি। বৃতি ৫-খন্ডিত, অভ্যন্তরে গ্রন্থিবিহীন, খন্ডসমূহ তুরপুন আকার, কম বেশী সমান, বিরলক্ষেত্রে প্রান্ত-আচ্ছাদী। দলমণ্ডল থলিকাকার, নল বেলনাকার, গলদেশ তুলনায় খবর, কুঁড়ি অবস্থায় বাম দিকে অধিক্রমনিত। ক্যাথারান্থুস গণের উদ্ভিদগুলোর পুংকেশর ৫টি, দলমণ্ডলের স্ফীত অংশের মধ্যবর্তী স্থানে নীচ থেকে সন্নিবেশিত, পরাগধানী গর্ভমুণ্ডের সাথে যমকRead More


করমচা এশিয়ার অপ্রচলিত টক ফল

বিবরণ: করমচা (বৈজ্ঞানিক নাম: Carissa carandas) এপোসিনাসি পরিবারের কেরিসা গণের একটি কন্টকযুক্ত, ঝোপালো গুল্ম বা ছোট বৃক্ষ। এরা দুগ্ধবত তরুক্ষীর বিশিষ্ট, কাঁটা সাধারণত সরল, ১.০-২.৫ সেমি লম্বা। পত্র অর্ধ-বৃন্তক, পত্রফলক ৩.৫-৬.৫ x ২.৫-৩.০ সেমি, বিডিম্বাকার, উপবৃত্তাকার বা আয়তাকার, অধিকাংশ ক্ষেত্রে উপরে প্রশস্ততম, নিম্নাংশে কীলকাকার, শীর্ষ স্থূলাগ্র। এদের পুষ্পদণ্ড ১.৫-২.০ সেমি লম্বা। পুষ্পবৃন্তিকা দৈর্ঘ্যে প্রায় বৃতির সমান বা কিঞ্চিৎ দীর্ঘতর। পুষ্প সাদা, গন্ধবিহীন। বৃতি খন্ড ২-৩ মিমি লম্বা, বহির্দেশ অণুরোমশ। দলমণ্ডল নল অনূর্ধ্ব ১.৮ সেমি লম্বা। ফল প্রায় ২ সেমি লম্বা, পরিপক্ক অবস্থায় লালাভ-রক্তিম। ফুল ও ফল ধারণ ঘটে মার্চ থেকেRead More