Main Menu

Monday, September 3rd, 2018

 

ধলামাথা কাঠকুড়ালি বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি

ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Gecinulus গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ১টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত ও আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে ধলামাথা কাঠকুড়ালি। বর্ণনা: ধলামাথা কাঠকুড়ালি তিন আঙুলের বাদামি কাঠঠোকরা (দৈর্ঘ্য ২৫ সেমি, ডানা ১৩ সেমি, ঠোঁট ২.৬ সেমি, লেজ ৮.৩ সেমি)। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠ অনুজ্জ্বল লাল-বাদামি ও দেহতল মেরুন থেকে মেরুন-বাদামি; ঘাড় ও ঘাড়ের পাশ সোনালী জলপাই-হলুদ; ডানার বাদামি প্রান্ত-পালকে পীতাভ-পাটল বর্ণের ডোরা রয়েছে; ফ্যাকাসে ডোরাসহ বাদামি লেজ; ও অনুজ্জ্বল মেরুন থেকে মেরুন-বাদামি পেট। এর ঠোঁট পাণ্ডুর বর্ণের, গোড়া ফ্যাকাসে; চোখ লালচে-বাদামি; পা ও পায়ের পাতা জলপাইRead More


বড় কাঠঠোকরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Chrysocolaptes গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ২টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত ও আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বড় কাঠঠোকরা। বর্ণনা: বড় কাঠঠোকরা তস্করের মত চোখে কালো পট্টি বাঁধা পাখি (দৈর্ঘ্য ৩৩ সেমি, ডানা ১৭ সেমি, ঠোঁট ৪.৮ সেমি, পা ৩.২ সেমি, লেজ ৯.২ সেমি)। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠ ও দেহতলে সাদা ও কালো চিতি রয়েছে; পিঠের উপরিভাগে সাদা চিতিসহ কালো; পিঠের শেষাংশ ও কাঁধ-ঢাকনি সোনালী-হলুদ; লেজের নিচে উজ্জ্বল লাল এবং লেজ ও লেজ-উপরি-ঢাকনি কালো। এর ঠোঁটের গোড়া সরু কালো রেখায় ঘেরা প্রশস্থ সাদা ডিম্বাকার চিহ্নRead More


হিমালয়ী কাঠঠোকরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি

ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Dinopium গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি তিনটি হচ্ছে, ১. বাংলা কাঠঠোকরা, ২. পাতি কাঠঠোকরা ও ৩. হিমালয়ী কাঠঠোকরা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে হিমালয়ী কাঠঠোকরা। বর্ণনা: হিমালয়ী কাঠঠোকরা তিন আঙুলে গাছ আঁকড়ে চলা কাঠঠোকরা (দৈর্ঘ্য ৩১ সেমি, ওৎন ১১০ গ্রাম, ডানা ১৫.৮ সেমি, ঠোঁট ৪ সেমি, লেজ ১০ সেমি)। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠ সোনালী-হলুদ এবং সাদা দেহতলে কালো খাড়া দাগ; ফুটকিহীন কালো ঘাড়; পিঠ সোনালী-হলুদ; কোমর উজ্জ্বল লাল; লেজ কালো; গলার মাঝখানটা বাদামি-পীতাভ। এর চোখ ও ঘাড়ের মধ্যে ফ্যাকাসে-বাদামিRead More


পাতি কাঠঠোকরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি

ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Dinopium গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি তিনটি হচ্ছে, ১. বাংলা কাঠঠোকরা, ২. পাতি কাঠঠোকরা ও ৩. হিমালয়ী কাঠঠোকরা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে পাতি কাঠঠোকরা। বর্ণনা: পাতি কাঠঠোকরা লম্বা সাদা ভ্রু আঁকা সোনালী ডানার পাখি (দৈর্ঘ্য ৩০ সেমি, ডানা ১৫ সেমি, ঠোঁট ২.৮ সেমি, পা ২.৪ সেমি, লেজ ৯.৫ সেমি)। এর পিঠ প্রাপ্তবয়স্ক পাখির সোনালী-হলুদ ও দেহতল কালো আঁইশের মত; লেজ কালো; ফ্যাকাসে-সাদা গলায় কালো ডোরা; বুকে ও তলপেটে কালোয় স্পষ্ট ঢেউ-খেলানো; চোখ থেকে ঘাড় পর্যন্ত সাদা ভ্রু;Read More


বাংলা কাঠঠোকরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Dinopium গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি তিনটি হচ্ছে, ১. বাংলা কাঠঠোকরা, ২. পাতি কাঠঠোকরা ও ৩. হিমালয়ী কাঠঠোকরা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বাংলা কাঠঠোকরা। বর্ণনা: বাংলা কাঠঠোকরা বাংলাদেশের অতিচেনা কাঠঠোকরা (দৈর্ঘ্য ২৯ সেমি, ওজন ১০০ গ্রাম, ডানা ১৪.২ সেমি, ঠোঁট ৩.৭ সেমি, পা ২.৫ সেমি, লেজ ৯ সেমি)। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠ সোনালী-হলুদ; দেহতলে কালো আঁইশের দাগ; ওড়ার পালক ও লেজ কালো; থুতনিতে কালো ডোরা; সাদা ঘাড়ের পাশে কালো দাগ; বুকে মোটা কালো আঁইশের দাগ; চোখে কালো ডোরা;Read More


দাগিগলা কাঠকুড়ালি বিশ্বে বিপদমুক্ত বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি

ভূমিকাঃ বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Picus গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৫টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ১৫টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি চারটি হচ্ছে, ১. মেটেমাথা কাঠকুড়ালি, ২. ছোট হলদেকুড়ালি, ৩. বড় হলদেকুড়ালি  ৪. দাগিবুক কাঠকুড়ালি ও ৫. দাগিগলা কাঠকুড়ালি। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে দাগিগলা কাঠকুড়ালি। বর্ণনা: দাগিগলা কাঠকুড়ালি সবুজ রঙের মাঝারি আকারের কাঠঠোকরা (দৈর্ঘ্য ২৯ সেমি, ওজন ১১০ গ্রাম, ডানা ১৩ সেমি, ঠোঁট ৩.৩ সেমি, পা ২.৪ সেমি, লেজ ৮.৫ সেমি)। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠ সবুজাভ ও এতে কালোয় ঢেউ খেলানো; দেহতল ফ্যাকাসে সবুজাভ ও হালকা হলুদে মেশানো; কোমর জলপাই-হলুদ; সাদা ডোরাসহ সবুজাভRead More