Main Menu

Saturday, September 8th, 2018

 

ডকুমেন্টারি ফিল্ম — ঋত্বিক ঘটক

ডকুমেন্টারি ফিল্ম সম্পর্কে আমাকে আপনারা কিছু লিখতে বলেছেন। (ডকুমেন্টারি ফিল্মের বাংলা হিসেবে তথ্যচিত্র বা দলিলচিত্র আমার পছন্দ নয়।) ও-ধরনের ছবি সম্পর্কে আমার অভিজ্ঞতা অত্যন্ত সীমাবদ্ধ। কাজেই আমার কথাগুলোকে আপনারা দয়া করে প্রামাণ্য বলে ধরে নেবেন না। এককালে বিহার সরকারের হয়ে উপজাতিদের বিষয়ে কিছু ছবি করা গিয়েছিল, মাঝে পুনার বিপর্যয় ঘটে, সেখানেও কিছু কিছু কাজ কর্ম করতে হয়েছে এবং হালে ভারত সরকারের হয়ে একটি ডকুমেন্টারি আমি শেষ করেছি। মোটামুটি এই আমার অভিজ্ঞতার পুঁজি। ভারতবর্ষের পরিপ্রেক্ষিতে ডকুমেন্টারি ফিল্ম করার অবস্থা অত্যন্ত সীমিত বলেই মনে হয়। এদেশে প্রধানত ভারত সরকার এবং বিভিন্ন রাজ্যRead More


খয়রাপাখ পাপিয়া বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের দুর্লভ পরিযায়ী পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Clamator গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ২টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতিগুলো হচ্ছে ১. খয়রাপাখ পাপিয়া ও ২. পাকরা পাপিয়া। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে খয়রাপাখ পাপিয়া। বর্ণনা: খয়রাপাখ পাপিয়া লম্বা লেজের ঝুটিওয়ালা পাখি (দৈর্ঘ্য ৪৭ সেমি., ওজন ৭০ গ্রাম, ডানা ১৬ সেমি., ঠোঁট ২.৫ সেমি., পা ২.৭ সেমি., লেজ ২৪ সেমি.)। তামাটে ডানা ও ঘাড়ের পিছনের দিকের সাদা গলাবন্ধ ছাড়া পিঠ চকচকে ধাতব কালো। থুতনি, গলা ও বুকে গোলাপি আমেজ ব্যতীত দেহতল সাদাটে। মসৃণ কালো মাথায় লম্বা ঝুটি পিছনের দিকে কাত হয়েRead More


নীললেজ সুইচোরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Merops গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে ২২টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতিগুলো হচ্ছে ১. খয়রামাথা সুইচোরা, ২. সবুজ সুইচোরা ও ৩. নীললেজ সুইচোরা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে নীললেজ সুইচোরা। বর্ণনা: নীললেজ সুইচোরা নীল লেজ ও বাতাসে ভাসমান দীর্ঘ লেজ ওয়ালা উজ্জ্বলসবুজ পাখি (দৈর্ঘ্য ৩১ সেমি., ডানা ১২.৮ সেমি., ঠোঁট ৩.৮ সেমি., পা ১.৩সেমি., লেজ ৮.৫ সেমি., পিনপালক ১৩.৫ সেমি.)। নীল পাছা, লেজ ও লেজের নিচেরকোর্ভাট, বুকের নীল আমেজ, হলুদ থুতনি এবং তামাটে গলা ছাড়া দেহের পুরোটাইসবুজ। কপাল সবুজ ও চোখের কালো ডোরাRead More


সবুজ সুইচোরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Merops গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে ২২টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতিগুলো হচ্ছে ১. খয়রামাথা সুইচোরা, ২. সবুজ সুইচোরা ও ৩. নীললেজ সুইচোরা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে সবুজ সুইচোরা। বর্ণনা: সবুজ সুইচোরা ছোট ঘাস-সবুজ পাখি, লেজের কেন্দ্রীয় অভিক্ষেপটি অন্য পালককে ছাড়াইয়া গেছে (দৈর্ঘ্য ২১ সেমি., ওজন ১৫ গ্রাম, ডানা ৯.৫ সেমি., ঠোঁট ৩ সেমি., পা ১ সেমি., লেজ ১২.৫ সেমি.)। সোনালী বা লালচে ঘাড়ের নিচের অংশ ছাড়া পুরো দেহই সবুজ। কালো মাস্ক চোখ বরাবর চলে গেছে। ফ্যাকাসে নীল গলায় কালো বেড় থাকে।Read More


খয়রামাথা সুইচোরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Merops গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে ২২টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতিগুলো হচ্ছে ১. খয়রামাথা সুইচোরা, ২. সবুজ সুইচোরা ও ৩. নীললেজ সুইচোরা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে খয়রামাথা সুইচোরা। বর্ণনা: খয়রামাথা সুইচোরা মাথায় তামাটে চাঁদিওয়ালা মসৃণ সবুজ পাখি (দৈর্ঘ্য ২১ সেমি., ওজন ৩০ গ্রাম, ডানা ১১ সেমি., ঠোঁট ৩.৮ সেমি., পা ১ সেমি., লেজ ৮ সেমি.)। পিঠ ঘাস-সবুজ ও কিছু অংশ ছাড়া দেহতল সবুজাভ। মাথার চাঁদি, ঘাড়ের পিছন ও ম্যান্টল উজ্জ্বল তামাটে, পাছা নীলকান্তমণি রঙের এবং লেজ কিছুটা চেরা ও সবুজ ।Read More


নীলদাড়ি সুইচোরা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Nyctyornis গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে ২টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত এবং আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে নীলদাড়ি সুইচোরা। বর্ণনা: নীলদাড়ি সুইচোরা নীল কপাল ও গলার সবুজ পাখি (দৈর্ঘ্য ৩৬ সেমি., ওজন ৯০ গ্রাম, ডানা ১৪ সেমি., ঠোঁট ৫.২ সেমি., পা ২ সেমি., লেজ ১৩.৫ সেমি.)। নীল কপাল ছাড়া পিঠ সবুজাভ। লম্বা পালক সমূহ দাঁড়ির মত গঠন লাভ করে এবং গলা ও বুক কালচে নীল। হলুদাভ-পীতাভ ডোরাসহ পেট ও বগল সবুজ। বর্গাকার প্রান্তদেশসহ লেজের বাইরের পালক পীতাভ রঙের। ওড়ার সময় লেজ ত্রিকোণাকার ওRead More


শিল্প মানেই লড়াই … — ঋত্বিক ঘটক

প্রশ্ন: একান্নর-পরবর্তী ঢাকা সম্পর্কে তাঁর প্রতিক্রিয়া কী? উত্তর: ঢাকা এখন আগেরকার সরলতা খুঁজে পাচ্ছি না। এখন দেখছি আভিজাত্য চারদিক জাঁকিয়ে বসেছে। জীবন যখন বদলায়, মানুষও বদলায়। জীবন হচ্ছে বহতা নদীর মতো। প্রশ্ন: নবজাত রাষ্ট্র বাংলাদেশের সমস্যা সম্পর্কে জিজ্ঞাসিত হয়ে ঋত্বিক বাবু বলেছিলেন- উত্তর: বিহারী পাঞ্জাবীরা আগে ডমিনেট করেছিল, বাঙালিরা সেই শেকড় এবং শেকল ভেঙেছে, কিন্তু আজো আমি ভিখিরি দেখেছি। ওরা হাত পাতে। তবে সমস্যা এখন অনেক সহজ। আপনাদের হাতে এবং সরকারের হাতে তা নিশ্চয়ই নির্মুল হবে। সমস্যা নেই, বাংলাদেশ স্বর্গে পরিণত হয়েছে, এমন ধারণা আমার অত্যন্ত কম। ঋত্বিকবাবু সরাসরি জিজ্ঞেসRead More


পাকরা মাছরাঙা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Ceryle গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতেও সেই একই প্রজাতি। বাংলাদেশে ও পৃথিবীতে প্রাপ্ত এবং আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে পাকরা মাছরাঙা। বর্ণনা: পাকরা মাছরাঙা সারা দেহে কালো ফুটকি ও ফেটা ওয়ালা সাদা জলার পাখি (দৈর্ঘ্য ৩১ সেমি., ডানা ১৩.৭ সেমি., ঠোঁট ৬.৮ সেমি., পা ১.২ সেমি., লেজ ৭ সেমি.)। মাথার কালো চাঁদি ও ঝুটিতে সাদা ডোরা রয়েছে। পার্থক্যসূচক সাদা ভ্রু ও চোখের প্রশস্ত কালো ডোরা আছে। ডানায় ও লেজে কালো-ও-সাদা বর্ণ বিন্যাস রয়েছে। বুক ছাড়া দেহতল সাদা। ছেলেপাখির বুকে দুটি কালো ফোটা কিন্তুRead More


ঝুটিয়াল মাছরাঙা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Megaceryle গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত এবং আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে ঝুটিয়াল মাছরাঙা। বর্ণনা: ঝুটিয়াল মাছরাঙা ডোরাওয়ালা ঝুটির পাকরা জলার পাখি (দৈর্ঘ্য ৪১ সেমি., ওজন ২৫৫ গ্রাম, ডানা ১৮.৫ সেমি., ঠোঁট ৭.৩ সেমি., পা ১.৬ সেমি., লেজ ১১.২ সেমি.)। পিঠ নীল-ধূসর ও দেহতল সাদা। কালো দীর্ঘ কেশের ঝুটিতে কিছু সাদা অংশ থাকে। গলাবন্ধ সাদা। সূক্ষ্ম সাদা ফুটকি ও ডোরা সমেত পিঠ ও পাছা কালচে দেখায়। ডানা ও লেজে কালোর ওপর সাদা ডোরা থাকে। বগলে সূক্ষ্ম বাদামি ফুটকি ওRead More