Main Menu

Tuesday, September 11th, 2018

 

বাংলাদেশের পাখির একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা

পাখির এলাকাকে পাখি বিশেষজ্ঞগণ যে ছয়টি ভাগে ভাগ করেছেন, সেটি স্তন্যপায়ী ও সরীসৃপদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য বলে গবেষকগণ গ্রহণ করেছেন। ভারতীয় উপমহাদেশ প্রাচ্য এলাকার অন্তর্গত। এই প্রাচ্য অঞ্চল আবার দুভাগে বিভক্ত: চীন-হিমালয়ান এবং ইন্দো-মালয়ান। বাংলাদেশ এই দুই উপবিভাগের মাঝখানে অবস্থিত। যমুনা নদী হচ্ছে এই দুই ভাগের সীমানারেখা।   যদিও বাংলাদেশ এই দুই উপবিভাগের মাঝখানে পড়েছে, এই কারণেই বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী ও প্রাণসম্পদেতে খুব সমৃদ্ধ। বাংলাদেশ যদিও দেশ হিসেবে খুব ছোট, কিন্তু বাংলাদেশের বন্যপ্রাণীর তালিকাটি চমকে দেবার মতো। এদেশ পাখির দিক দিয়েও অনেক উন্নত। এদেশে যত প্রজাতির পাখি দেখা যায় তা কানাডার প্রায়Read More


কালাটুপি মাছরাঙা বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ পরিযায়ী পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Halcyon গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ৩টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে ১১টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি তিনটি হচ্ছে ১. লাল মাছরাঙা, ২. কালাটুপি মাছরাঙা ও ৩. ধলাগলা মাছরাঙা। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে কালাটুপি মাছরাঙা। বর্ণনা: কালাটুপি মাছরাঙা বেগুনি পিঠের কালো টুপি ওয়ালা জলার পাখি (দৈর্ঘ্য ৩০ সেমি, ডানা ১৩ সেমি, ঠোঁট ৬ সেমি, পা ১.৫ সেমি, লেজ ৮.৫ সেমি)। পিঠ বেগুনে-নীল ও দেহতল ফ্যাকাসে মরচে রঙের। টুপি কালো, গলবন্ধ সাদা এবং ম্যান্টল, পাছা ও লেজ বেগুনে-নীল। ডানার কালো পালক-ঢাকনি নীল মাধ্যমিক পালককে আলাদা করেছে। থুতনি, গলা ওRead More


বাসন্তী লটকনটিয়া বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Loriculus গণে বাংলাদেশে রয়েছে ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে এর ১২টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত এবং আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বাসন্তী লটকনটিয়া। বর্ণনা: বাসন্তী লটকনটিয়া লাল ঠোঁট ও সবুজ দেহের ছোট্ট গোলগাল টিয়া (দৈর্ঘ্য ১৪ সেমি, ডানা ৯.৬ সেমি, ঠোঁট ১.৩ সেমি, পা ১.১ সেমি, লেজ ৪.৩সেমি)। এর লালকোমর, লেজউপরি-ঢাকনি ও গলার নীলকান্তমণি রঙের পট্টি ছাড়াপুরো দেহ সবুজ; লালচে-কমলা অথবা প্রবাল-লাল ঠোঁটের আগা হলুদ; চোখবাদামি-পীতাভ কিংবা হলুদাভ-সাদা বা ধূসরাভ-খাকি; পা ও পায়ের পাতাফিকে-কমলা কিংবা ফিকে হলুদাভ-স্লেট এবং নখর শিঙ-বাদামি। মেয়েপাখির গলারঅপর্যাপ্ত নীলকান্তমণি পট্টির সাহায্যে ছেলে থেকেRead More


বড় কুবো বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Centropus গণে বাংলাদেশে রয়েছে ২টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে এর ২৬টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি দুটি হচ্ছে ১. বাংলা কুবো এবং ২. বড় কুবো। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বড় কুবো। বর্ণনা: বড় কুবো বড় কালো পর্যায়ক্রমিক বিন্যস্ত পালকে লেজওয়ালা কাকের মত পাখি (দৈর্ঘ্য ৪২ সেমি., ওজন ২৫০ গ্রাম, ডানা ১৯ সেমি., ঠোঁট ৩.২ সেমি., পা ৫.৮ সেমি., লেজ ২৪ সেমি.)। পিঠ তামাটে ও দেহতল চকচকে কালো। উজ্জ্বল তামাটে ম্যান্টল ও ডানা ছাড়া পুরো দেহই কালো। পর্যায়ক্রমিক সজ্জিত পালকের লেজ কালো হয়। চোখ লাল এবং ঠোঁট,Read More


বাংলা কুবো বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Centropus গণে বাংলাদেশে রয়েছে ২টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে এর ২৬টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি দুটি হচ্ছে ১. বাংলা কুবো এবং ২. বড় কুবো। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বাংলা কুবো। বর্ণনা: বাংলা কুবো পর্যায়ক্রমে পালকসজ্জিত লম্বা লেজওয়ালা কাকের মত পাখি (দৈর্ঘ্য ৩৩ সেমি., ওজন ১২০ গ্রাম, ডানা ১৫ সেমি., ঠোঁট ২.৭ সেমি., পা ৩.৭ সেমি., লেজ ১৮ সেমি.)। প্রজনন ঋতুতে পিঠ তামাটে ও দেহতল কালো হয়। অনুজ্জ্বল তামাটে ম্যান্টল ও ডানা ছাড়া পুরো দেহই চকচকে কালো। প্রাথমিক ও তৃতীয় সারির পালকের আগা বাদামি এবং লেজRead More


সবুজঠোঁট মালকোআ বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Phaenocophaeus গণে বাংলাদেশে রয়েছে ২টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে এর ৬টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি দুটি হচ্ছে ১. মেটে মালকোআ এবং ২. সবুজঠোঁট মালকোআ। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে সবুজঠোঁট মালকোআ। বর্ণনা: সবুজঠোঁট মালকোআ দীর্ঘ লেজ ওয়ালা সবুজ পাখি (দৈর্ঘ্য ৫১ সেমি., ওজন ১১৫ গ্রাম, ডানা ১৭ সেমি., ঠোঁট ৩.৭ সেমি., পা ৪.২ সেমি., লেজ ৩৮ সেমি.)। পিঠ ধূসরাভ-সবুজ ও দেহতল পীতাভ-ধূসর। মাথার চাঁদি, ঘাড়ের পিছন ও পিঠ ধূসরাভ-সবুজ এবং ডানা কালচে তৈল-সবুজ। পর্যায়ক্রমিক সবুজাভ-কালো লেজের আগায় প্রশস্ত সাদা অংশ রয়েছে। পেট ও অবসারণী কালচে ধূসরাভ-সাদা।Read More


মেটে মালকোআ বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের বিলুপ্ত পরিযায়ী পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Phaenocophaeus গণে বাংলাদেশে রয়েছে ২টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে এর ৬টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতি দুটি হচ্ছে ১. মেটে মালকোআ এবং ২. সবুজঠোঁট মালকোআ। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে মেটে মালকোআ। বর্ণনা: মেটে মালকোআ দীর্ঘ লেজওয়ালা বাদামি পাখি (দৈর্ঘ্য ৪২ সেমি., ডানা ১৬ সেমি., ঠোঁট ৩.৩ সেমি., পা ৪ সেমি., লেজ ২২ সেমি.)। কিছু অংশ ছাড়া দেহের পুরোটাই বালিময় ধূসর-বাদামি। গলা ও বুকের উপরিভাগ পীতাভ এবং পেট লালচে-পীতাভ। পর্যায়ক্রমিক সজ্জিত পালকের বালিময় ধূসর-বাদামি দীর্ঘ লেজের আগা সাদা। মাথার চাঁদি, ম্যান্টল, গলা ও বুকের পালকে কালো শরওয়ালাRead More


এশীয় কোকিল বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Eudynamys গণে বাংলাদেশে এবং পৃথিবীতে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি। বাংলাদেশে এবং পৃথিবীতে প্রাপ্ত ও আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে এশীয় কোকিল। বর্ণনা: এশীয় কোকিল পার্থক্যসূচক লাল চোখের লম্বা লেজ ওয়ালা কালচে পাখি (দৈর্ঘ্য ৪৩ সেমি., ওজন ১৭০ গ্রাম, ডানা ২২ সেমি., ঠোঁট ৩.৩ সেমি., পা ৩.৫ সেমি., লেজ ২০ সেমি.)। ছেলেপাখির চেহারায় মেয়ে থেকে বেশ অমিল রয়েছে। ছেলেপাখির পুরো চকচকে কালো রঙের মধ্যে নীল ও সবুজের আমেজ থাকে। মেয়েপাখির পিঠে বাদামির ওপর সাদা ও পীতাভ চিতি। সাদা থুতনি, গলা, বুক, পেট, বগল, লেজের নিচের কোর্ভাট ওRead More


বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ পরিযায়ী পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Surniculus গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত ও আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া। বর্ণনা: বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া ডোরা অবসারণীওয়ালা কালো পাখি (দৈর্ঘ্য ২৫ সেমি., ডানা ১৪ সেমি., ঠোঁট ২.৫ সেমি., পা ২ সেমি., লেজ ১৪ সেমি.)। ব্রঞ্জ ফিঙে Dicrurus aeneus-র সঙ্গে বেশ মিল রয়েছে। সামান্য কিছু অংশে পার্থক্য ছাড়া পুরো দেহই চকচকে কালো। দেহের অবসারণী ও দীর্ঘ চেরালেজ দেহের বাকি অংশের চেয়ে কম চকচকে। লেজের নিচের কোর্ভাট ও লেজের একেবারে বাইরের পালকের গোড়ায় সাদা ডোরা রয়েছে। ঘাড়ের পিছনের ক্ষুদ্রRead More


বেগুনি পাপিয়া বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের বিরল আবাসিক পাখি

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Chrysococcyx গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ২টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে ১৩টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত প্রজাতিগুলো হচ্ছে ১. এশীয় শ্যামাপাপিয়া ও ২. বেগুনি পাপিয়া। আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বেগুনি পাপিয়া। বর্ণনা: বেগুনি পাপিয়া ছোট অরণ্য পাখি, ছেলেপাখি বেগুনি ও মেয়েটি ব্রঞ্জ রঙের হয় (দৈর্ঘ্য ১৭ সেমি., ডানা ১০ সেমি., ঠোঁট ১.৬ সেমি., পা ১.৫ সেমি., লেজ ৭ সেমি.)। ছেলেপাখির পিঠ চকচকে বেগুনি। মাথা, ঘাড়, থুতনি, গলা ও বুক বেগুনি রঙের। পেট ও অবসারণীতে একটির পর আরেকটি এমনভাবে সাদা ও বেগুনে-বাদামি ফেটা সজ্জিত থাকে। কালচে লেজের আগাRead More