You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন

অরবিন্দ ঘোষ ছিলেন ভাববাদী চিন্তাবিদ, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, কবি ও শিল্পশাস্ত্রী

শ্রী অরবিন্দ ঘোষ ছিলেন ভাববাদী চিন্তাবিদ, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, কবি ও শিল্পশাস্ত্রী। তিনি বৈদান্তিক ভাবধারার সঙ্গে পাশ্চাত্যের আধুনিক রাষ্ট্রদর্শনের সংমিশ্রণে এক নতুন দিকের সুচনা করেছেন। ইংল্যান্ডে ছাত্রজীবনে তিনি গুপ্ত বিপ্লবী সংস্থার সঙ্গে যুক্ত হন। দেশে ফিরে বরােদায় অধ্যাপনার সঙ্গে বৈপ্লবিক চিন্তাভাবনার প্রচার থেকে ক্রমে প্রকাশ্য রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। এরপর কলকাতায় এসে অধ্যাপনা,

অভিজ্ঞতাবাদ সমস্ত জ্ঞানের উৎস হিসেবে অভিজ্ঞতাকে বিবেচনা করে

অভিজ্ঞতাবাদ (ইংরেজি: Empiricism) হচ্ছে এমন দার্শনিক মতবাদ যাতে বলা হয় যে সমস্ত জ্ঞানের উৎস হলো অভিজ্ঞতা। যুক্তিবাদ বিরোধী এই মতবাদে সহজাত জ্ঞান ও পূর্বকল্পিত বা অবরােহী পদ্ধতিতে নির্ণীত সত্যকে স্বীকার করা হয় না। পর্যবেক্ষণ (অভিজ্ঞতা) ব্যতীত কোনও কিছুর সামান্যীকরণ এই মতবাদের পরিপন্থী। যৌক্তিক অভিজ্ঞতাবাদ এবং যৌক্তিক প্রত্যক্ষবাদ বিংশ শতাব্দীতে বিশেষ

গোষ্ঠীতন্ত্র কী এবং কেন প্রতিরোধ করতে হবে

গোষ্ঠীতন্ত্র (ইংরেজি: Oligarchy) হচ্ছে স্বল্প সংখ্যক লোকের ক্ষমতা বা মুষ্টিমেয় ব্যক্তির দ্বারা শাসন।[১] গোষ্ঠীতন্ত্র হচ্ছে শোষণমূলক রাষ্ট্র পরিচালনার অন্যতম রূপ। গোষ্ঠিতন্ত্রে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা সম্পূর্ণভাবে মুষ্টিমেয় ধনিদের হাতে কেন্দ্রিভুত থাকে। ধনকুবের গোষ্ঠীতন্ত্র সাম্রাজ্যবাদী ব্যবস্থায় রাষ্ট্র যন্ত্রকে বশ করে, রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি ও বৈদেশিক নীতি নিয়ন্ত্রন করে, দেশে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক আধিপত্য বিস্তার করে। আরো পড়ুন

অভিজাততন্ত্র মুষ্টিমেয় সংখ্যক ব্যক্তিদের দ্বারা চালিত গণবিরোধী শাসন

অভিজাততন্ত্র (ইংরেজি: Aristocracy) হচ্ছে গ্রিক আরিস্তোক্রাতিয়ার বাংলা প্রতিশব্দ। অভিজাততন্ত্রের অর্থ হলো সর্বোত্তমের দ্বারা শাসন। আরিস্তোতলের দৃষ্টিতে পুণ্যবানদের নিয়ে অভিজাততন্ত্র রচিত হয় এবং গােষ্ঠীতন্ত্রের (ইংরেজি: oligarchy) মূলাধারা হলো বিত্ত। দুটি শাসনতন্ত্রই কায়েমি মুষ্টিমেয় সংখ্যক ব্যক্তিদের দ্বারা চালিত হয়। তবে অভিজাততন্ত্রের অভীষ্ট হলো সকলের স্বার্থ সংরক্ষণ, অভিজাততন্ত্র উত্তরাধিকারসূত্রে একটি সংখ্যালঘু শ্রেণী কর্তৃক

Top