আপনি যা পড়ছেন

আর কতকাল, বলো কতকাল

আর কতকাল, বলো কতকাল সইব এ মৃত্যু অপমান — এ আর সহে না। শহর বন্দরে, চাষীর কুটিরে নরখাদক দলের অভিযান — এ আর সহে না। কমলাপুর শহীদ ডাকে — আয় রে, আয় আয় রে ভোঙ্গাজোড়ার শহীদ সুরেন — তোদের পানে চায় রে, চায় রে চন্দনপিঁড়ির সরোজিনী, অহল্যা মা তাদের খুনের তর্পণ হ’ল না — এ আর সহে না। সুন্দরবনের

নবজীবন তরঙ্গাঘাতে হ’ল বঙ্গভূমি সিঞ্চিতা

নবজীবন তরঙ্গাঘাতে হ’ল বঙ্গভূমি সিঞ্চিতা, চাহিল জনমন-কলি আঁখি মেলিয়া প্রাতে। হের বিশ্বকবি রবি জাগি নবদৃপ্ত তেজে ছাইল ভাসিল বঙ্গভূমি দেশপ্রেমের বন্যাতে। শুরু হ’ল জাতীয় জাগরণ মুক্তির রণ দারুণ সেথা পুরোভাগে বঙ্গ জাগে ভারতে। যেথা উজলা চাঁদের হাটে লক্ষ তারার ছিল মেলা, সেথা ঘোর অন্ধকারে দুর্গম হ’ল পথ চলা। সেথা স্বার্থে স্বার্থে চলে বিষাক্ত সর্পের খেলা। ধনী বণিকের ক্রূরমতি পদে

সপ্তকোটি জনরঙ্গভূমি

সপ্তকোটি জনরঙ্গভূমি বঙ্গদেশ বীর-প্রসবিনী হতনাম শৃঙ্খলিত দলিতা, শতাব্দীর সঞ্চিত ভীরু জড়তা, দীনতা ত্যজি নবযৌবন ভরে জাগো জাগো রে। চাঁদ কেদার রায় সন্তান      ইসলাম তিলক ঈশা খান প্রতাপাদিত্য সেন বল্লাল রাণী ভবানী কন্যা দুলাল বারভূইয়া বীর গাথা স্মরিয়া জাগো জাগো রে। কোথা সুখ সমৃদ্ধি আজ স্বাধীন রাজ নবাব সিরাজ পলাশীর আম্রকুঞ্জ হ’ল কাল সফল হ’ল দেশবৈরীকৃত জাল রাখিল বীর মীর মদন-মোহনলাল সম্মান। শুরু হ’ল

ফিরাইয়া দে, মোদের কায়ুর বন্ধুদেরে

ফিরাইয়া দে, দে, দে মোদের কায়ুর বন্ধুদেরে। মালাবারের কৃষক সন্তান, (তারা) কৃষক সভার ছিল প্রাণ অমর হইয়া রহিবে তারা দেশের দশের অন্তরে।। কৃষক মায়ের রাখতে ইজ্জত মান, (তারা) ফাঁসী কাষ্ঠে দিল প্রাণ ফিরিয়া পাব না রে মোদের কায়ুর বন্ধুদেরে।। লজ্জার কথা থুইব রে কোথায় ? তাদের বাঁচাইতে নারিলাম হায় তাদের ছাইড়া দিতে বাধ্য

বিটের ভেষজ গুণাগুণ

বাঙালি বাড়িতে বিট সাধারণত স্যালাড হিসেবেই খাওয়া হয়। সেদ্ধ করে চাকা চাকা করে কেটে বা কাঁচাই পাতলা পাতলা করে কেটে পাতিলেবুর রস, নুন ও গোলমরিচ মিশিয়ে স্যালাড তৈরি করা হয়। এইভাবে স্যালাড় তৈরি করলে খেতেও ভাল লাগে এবং শরীরের পক্ষেও উপকারী। বিটের ওপরের পাতা ঠিক পালং শাকের মতো দেখতে সেইজন্যে অনেকে

বেড়ায় পাখি শিকারীর এক মাসের কারাদন্ড

বেশ কিছুদিন ধরেই বেড়া উপজেলার বড়শীলা বিলে অতিথি পাখি শিকার হচ্ছে মর্মে বিভিন্ন সূত্রে খবর পাওয়া যাচ্ছিল। গত ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ দৈনিক প্রতিদিনের সাংবাদিক জনাব মোঃ আরিফুর রহমানের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পাবনা জেলার বেড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এক অভিযান চালান। অভিযানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব আসিফ আনাম সিদ্দিকী সন্ধ্যা ৫ঃ৩০

তব মুখখানি খুঁজিয়া ফিরি গো

তব মুখখানি খুঁজিয়া ফিরি গো সকল ফুলের মুখে, ফুল ঝরে যায় তব স্মৃতি জাগে কাটার মতন বুকে।। তব প্রিয়নাম ধ’রে ডাকি ফুল সাড়া দেয় মেলি আঁখি, তোমার নয়ন ফুটিল না হায় ফুলের মতন সুখে।। তোমার বিরহে আমার ভুবনে ওঠে রোদনের বাণী, কানাকানি করে চাঁদ ও তারায় জানি গো তাহারে জানি। খুঁজি বিজলী প্রদীপ জ্বেলে কাঁদি ঝঙ্কার পাখা মেলে অন্ধ আকাশে আঁধার মেঘের ঢেউ

কেন এ হৃদয় নিজেরে লুকাতে চায়

কেন এ হৃদয় নিজেরে লুকাতে চায় – মুকুল যেমন আপনারে ঢাকে বনপল্লব ছায়।।   আপনারে কেন অঞ্জলি সম পারি না তোমারে দিতে প্রিয়তম অন্তরে মোর কত ফুল ফোটে নীরবেই ঝ’রে যায়।।   দূরে গেলে তুমি দূর হতে চেয়ে থাকি। ফিরে এলে কাছে মুখপানে তব চাহে না তো ভীরু আঁখি। তবু তুমি মোরে করিয়ো না ভুল আমি যে তোমাতে নিবেদিত ফুল এ-হৃদয় কবে

বলেছিলে তুমি তীর্থে আসিবে

বলেছিলে তুমি তীর্থে আসিবে আমার তনুর তীরে। তুমি আসিলে না, আশার সূর্য ডুবিল সাগর-নীরে।। চলে যাই যদি, চিরদিন মনে তোমার সে-কথা রহিবে স্মরণে, শুধু সেই তব কথার লাগিয়া হয়তো আসিব ফিরে।। শুধু সেই আশে হয়তো এ তনু মরণে হবে না লীন পথ চেয়ে চেয়ে, তব নাম গেয়ে বাজাব বিরহ-বীণ। হেরো গো, আমার যাবার সময় হ’ল তোমার সে-কথা মিথ্যা

তুমি জীবনে যারে দাওনি মালা

তুমি জীবনে যারে  দাওনি মালা, মরণে কেন তারে দিতে এলে ফুল? মুখপানে যার কভু চাওনি ফিরে, কেন তারি লাগি আঁখি অশ্রু আকুল।। চিরদিন যারে তুমি করেছ হেলা হৃদয় লয়ে শুধু খেলেছো খেলা; বিরহে তারি আজি বলো গো কেন শূন্য লাগে এই ধরণী বিপুল।। আমি তো ছিলাম প্রিয় তোমারই কাছে, সেই বকুল তলে সেই চাঁদিনী রাতে, সেদিন কেন দিলে নাকো হায় যে

Top