You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন

অশ্বিনীকুমার দত্ত ছিলেন একজন বাঙালি রাজনীতিবিদ, সমাজসেবক এবং লেখক

অশ্বিনীকুমার দত্ত বা অশ্বীনীকুমার দত্ত (ইংরেজি: Ashwini Kumar Dutta; ২৫ জানুয়ারি ১৮৫৬-৭ নভেম্বর ১৯২৩ খ্রি.) ছিলেন একজন বাঙালি রাজনীতিবিদ, সমাজসেবক এবং লেখক। তিনি ছিলেন বর্তমান বাংলাদেশের বরিশাল জেলার অধিবাসী। অশ্বিনীকুমার তত্তের পৈতৃক বাড়ি এই জেলার বাটাজোড় গ্রামে। তিনি জন্মগ্রহণ করেন তাঁর পিতার কর্মস্থল পটুয়াখালীতে। পিতা ব্রজমোহন দত্ত একজন সাবজজ ছিলেন।

স্বপ্ন প্রসঙ্গে

স্বপ্ন (ইংরেজি: Dream) বয়স নির্বিশেষে সকল মানুষের প্রায় নিত্যদিনের অভিজ্ঞতা। ‘নিদ্রার মধ্যে চেতনার একটি প্রকাশ’ বলে স্বপ্নের একটি সংজ্ঞা দেওয়া চলে। সাধারণভাবে একথা সত্য যে, নিদ্রার মধ্যে দেহের সচেতন কার্যাবলী বন্ধ বা স্থগিত থাকে। নিদ্রার মধ্যে আমরা কোনো দ্রব্যকে চোখ দিয়ে দেখি না। হাত নেড়ে কোনো কাজ করি না। পা

রাজাদের ঐশ্বরিক অধিকার প্রসঙ্গে

রাজাদের ঐশ্বরিক অধিকার (ইংরেজি: divine right of kings, divine right, বা God's mandate) একটি রাষ্ট্রীয় তত্ত্ব। এই তত্ত্ব অনুযায়ী রাজা বিধাতার প্রতিনিধি। রাজার আনুগত্য বিধাতার প্রতি। প্রজার আনুগত্য রাজার প্রতি। রাজার কোনো কাজের জন্য রাজা প্রজার নিকট দায়ী থাকবে না। সে দায়ী থাকবে বিধাতার নিকট। রাজার স্বৈরতান্ত্রিক শাসনকে যুক্তিসঙ্গত এবং জোরদার

ডায়োজেনিস ছিলেন গ্রিসের সিনিক বা উদাসীনতাবাদী দার্শনিক

ডায়োজেনিস বা দিওগেনেস (ইংরেজি: Diogenes) ছিলেন গ্রিসের সিনিক বা উদাসীনতাবাদী দার্শনিক এবং সিনিক দর্শনের প্রবক্তা এ্যান্টিসথেনিসের শিষ্য। একবার সমুদ্রযাত্রায় জলদস্যুরা তাঁকে অপহরণ করে কোরিন্থে দাস হিসাবে বিক্রিয় করে। কোরিন্থে তিনি জীবনের বাকি অংশ অতিবাহিত করেন এবং তাঁর আত্মসংযম ও কৃচ্ছ্বতাপালনমূলক দর্শনের প্রচার করেন। ডায়োজেনিস সম্পর্কে নানা উপকথা প্রচলিত আছে। এর

প্রলেতারিয়েতের একনায়কত্ব কাকে বলে?

প্রলেতারিয়েতের একনায়কত্ব বা প্রলেতারিয়েত শ্রেণির একনায়কত্ব বা সর্বহারার একনায়কত্ব (ইংরেজি: Dictatorship of the proletariat) কথাটি মার্কসবাদী রাষ্ট্রতত্ত্বের একটি ধারণা। মার্কসবাদী রাষ্ট্রতত্ত্বানুযায়ী শ্রেণীবিভক্ত সমাজে রাষ্ট্র হচ্ছে প্রতিষ্ঠিত শাসক শ্রেণীর হাতে বিভিন্ন প্রকারে তাদের নিজেদের স্বার্থ রক্ষার অস্ত্র। মার্কসবাদীরা মনে করেন যে, মানব সমাজে রাষ্ট্র অতীতের সর্বযুগে বিদ্যমান ছিল না এবং ভবিষ্যতেও একদিন থাকবে না। আদিম সাম্যবাদী মানব সমাজে রাষ্ট্রের উদ্ভব সম্ভব ছিল না। আরো পড়ুন

ডাইকাস্ট কাকে বলে?

ডাইকাস্ট (ইংরেজি: Dikastes গ্রিক: δικαστής, বহুবচনে δικασταί) হচ্ছে প্রাচীন এথেন্স নগর-রাষ্ট্রের একটি রাষ্ট্রীয় পদের নাম। ডাইকাস্টকে জুরী বা বিচার-ব্যবস্থা বলে মনে করা যায়। এথেন্সের যারা নাগরিক অর্থাৎ যারা দাস কিংবা ঋণের দায়ে নাগরিকতা থেকে বঞ্চিত হয় নি এমন নগরবাসীদের মধ্য থেকে প্রতি বছর ছহাজার বিচারকের একটি তালিকা নির্বাচনের মাধ্যমে প্রস্তুত করা হতো।

সংলাপ কাকে বলে?

সাহিত্যিক রচনায় দুটি চরিত্রের মধ্যকর কথোপকথনকে সংলাপ (ইংরেজি: Dialogue) বলে। সাধারণ কথোপকথন থেকে সংলাপের বৈশিষ্ট্য এই যে, সংলাপ পূর্বপরিকল্পিত এবং এর মাধ্যমে রচনাকারী কোনো একটা প্রতিপাদ্যকে ধারাবাহিকভাবে প্রমাণের স্তরে নিয়ে যান। কোনো সমস্যা বা প্রশ্নের উভয় দিক উপস্থাপনের জন্য সাহিত্যিকগণ সংলাপকে সব যুগেই একটি উত্তম কৌশল বলে বিবেচনা করেছেন। লেখক প্রশ্নের

রেশম দিনের অপেক্ষায়

রাতের নীরবতায় দাঁড়িয়ে থাকব তোমার জন্য, হৃদয়ের আবির দিয়ে আঁকব তোমার ছবি, নিজেকে হারিয়ে ফেলব তুলির প্রতিটি আঁচড়ে, নিঃসঙ্গ মুহুর্তে জন্ম নিবে ফ্যাকাসে ভোমরা।   আমরা প্রাণভোমরাগুলোকে অনেক যত্ন করব- রেশম দিনের জন্য, আমরা অপেক্ষায় থাকব আঙুলের ভেতর আঙুল ছোঁয়ানো পর্যন্ত; মাথায় ওপর আকাশ আরও রঙ্গিন হওয়া পর্যন্ত। অনুভূতিকে গাঢ় করার জন্য আমরা কাঁধে হাত রাখব, রাতের হিম যখন

দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ কাকে বলে?

দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ বা দ্বন্দ্বমূলক বস্তুবাদ (ইংরেজি: Dialectical Materialism) হচ্ছে প্রাকৃতিক জগৎ, মানুষের সমাজ এবং চিন্তার ক্ষেত্রে ক্রিয়াশীল বিধানসমূহের পরিচয় জ্ঞাপক তত্ত্ব। ইংরেজী ‘ডায়ালেটিকস’ শব্দ গ্রিক শব্দ ‘ডায়ালোগ’ থেকে উদ্ভুত। গ্রিক দর্শনে ডায়ালোগ শব্দের ব্যবহার দেখা যায়। কোনো সমস্যার ক্ষেত্রে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে সমাধান সন্ধানের পদ্ধতিকে গ্রিক দার্শনিকরা ডায়ালোগ বলতেন। প্রশ্ন, উত্তর বা পাল্টা প্রশ্নের মধ্যে একটা

ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত একজন বাঙালি আইনজীবী সমাজকর্মী ও ভাষা সৈনিক

শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত (ইংরেজি: Dhirendranath Datta; ২ নভেম্বর, ১৮৮৬ - ২৯ মার্চ, ১৯৭১) একজন বাঙালি আইনজীবী সমাজকর্মী ও ভাষা সৈনিক। তিনি ১৯৪৮ সনের ২৩শে ফেব্রুয়ারী বাংলা ভাষার প্রন্তটি উত্থাপন করেছিলেন পাকিস্তান গণপরিষদের প্রথম অধিবেশনের প্রথম দিনই। ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত পাকিস্তান জাতীয় কংগ্রেসের সভ্য ছিলেন। উর্দু এবং ইংরেজীর পাশাপাশি বাংলাকেও গ্রহণযোগ্যতা পায়নি বলেই ১৯৪৮ সন থেকেই তিনি

Top