You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন

কে যাস রে ভাটি গাঙ বাইয়া— মীরা দেববর্মণ

কে যাস রে ভাটি গাঙ বাইয়া আমার ভাইধনরে কইও—নাইওর নিতো বইল্যা। বছরখানি ঘুইর‍্যা গেল, গেল রে, ভাইয়ের দেখা পাইলাম না, পাইলাম না। কইলজা আমার পুইড়া গেল, গেল রে, ভাইয়ের দেখা পাইলাম না, পাইলাম না। ছিলাম রে কতই আশা লইয়া। ভাই না আইল—গেল গেল রথের মেলা চইল্যা।। প্রাণ কান্দে, কান্দে—প্রাণ কান্দেরে, নয়ন ঝরে ঝরে—নয়ন ঝরে রে— পোড়া মন রে বুঝাইলে বুঝে না। সুজন মাঝি রে

কালসাপে দংশে আমায়— মীরা দেববর্মণ

কালসাপে দংশে আমায় ওঝা হয়ে সে যেন রে বিষ নামায়। ছোবল খেয়ে কালো হইলাম, এখন আমার কী হবে উপায়? যার রূপেতে মজেছিলাম হায়, সে কালাচাঁদ আমারে গো কলঙ্কে ডুবায়।। মরণ বাঁচন কালার হাতে, মারিয়া পারে বাঁচাইতে, এমন বৈদ্য পাবে কে কোথায় ? কৃষ্ণপ্রেমে মরি যদি হায়, অবশেষে কালা যেন আমারে বাঁচায়।।। কথা : মীরা দেববর্মণ সুর : শিল্পী শিল্পী: শচীন দেববর্মণ

তাকদুম তাকদুম বাজাই বাংলা দেশের ঢোল— মীরা দেববর্মণ

(আমি) তাকদুম তাকদুম বাজাই বাংলা দেশের ঢোল— সব ভুলে যাই, তাও ভুলি না বাংলামায়ের কোল। বাংলা! জনম দিলা আমারে— তোমার পরান আমার পরান এক নাড়ীতেই বাঁধা রে। মা-পুতের এই বাঁধন ছেড়ার সাধ্য কারো নাই— সব ভুলে যাই, তাও ভুলি না বাংলা-মায়ের কোল।। মা, তোমার মাটির সুরে সুরেতে, আমার জীবন জুড়াইলা বাউল-ভাটিয়ালিতে। পরান খুইল্যা মেঘনা, তিতাস, পদ্মারই গান গাই— সব ভুলে যাই, তাও ভুলি

Top