Main Menu

Dolon Prova

 

গুড়ের যত গুণ

আখের রসের অধিকাংশ জলীয় রস ঘন করে পাক দিয়ে গুড় তৈরি করা হয়। গুড়ে আখের রসের সব খনিজ ও ক্ষারক পদার্থ সুরক্ষিত থাকে। এই সব খনিজের জন্যেই গুড় এরকম অস্বচ্ছ ও অপরিষ্কার দেখায়। পণ্ডিত ভাবমিশ্র গুড়কে উদ্দেশ্য করে বলেছেন ‘দোষত্রয়ক্ষয়কারয়’ নমো গুড়ায়। অর্থাৎ বাত, পিণ্ড আর কফ এই তিন দোষ নাশ করে গুড়। গুড় শীঘ্রই হজম হয়ে যায়। গুড়ের সমান ওজনের চিনি হজম হতে অনেক বেশি সময় লাগে। গুড়ে চিনির চেয়ে শতকরা তেত্রিশ ভাগ পোষকতত্ত্ব (পুষ্টিগুণ) বেশি আছে । সেইজন্যে চিনির তুলনায় গুড় বেশি শক্তি দেয়। যিনি শারীরিক ভাবে দুর্বল,Read More


আখ বা ইক্ষুর ১২টি গুনাগুণ

ভূমিকা: আখ বা ইক্ষু (বৈজ্ঞানিক নাম: Saccharun officinarum, ইংরেজি নাম: Sugarcane) পোয়াসি পরিবারের Saccharum গণের বিরুৎ। আঁখের রস মিষ্টি ও সেই রস থেকে গুড় ও চিনি তৈরি করা হয়। স্বাদে মিষ্টি হওয়ায় দেশে আঁখ বেশ  জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। আখ গাছটির কাণ্ড থেকে চিনি ও গুড় তৈরি করা হয়, কান্ডের রস ক্লান্তি অবসান করে এছাড়া কুষ্ঠরোগ, অন্ত্রের সমস্যা, রক্তস্বল্পতা ও আমাশয়েও ইক্ষুরস উপকারী।[১] আখ যে ভাবেই খাওয়া যাক দাঁত দিয়ে ছিলে চুষে বা রস বের করে খেলে উপকার দেয়। কিন্তু সবচেয়ে ভাল ফল পেতে হলে দাঁত দিয়ে কামড়িয়ে খাওয়াই ভাল, এতেRead More


মাখন ও ঘি স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি

মাখন হলো দুধের তৈরি পণ্য। এটি সাধারণ দুধ প্রক্রিয়াজাতের মধ্য দিয়ে ক্রীম থেকে তৈরি করা হয়ে থাকে। মাখন কোনো খাবারে মেখে খাওয়া হয়। এছাড়া সুস্বাদু রান্না করতে, কোনো ভাঁজা খাবার তৈরি, সস অথবা খাবারে সুন্দর সুঘ্রাণ আনতে মাখন ব্যবহার করা হয়। মাখনে চর্বি, পানি এবং দুগ্ধ প্রটিন থাকে। মাখন সাধারণ গরুর দুধ দিয়ে তৈরি হয়। এছাড়া অন্য প্রাণীর দুধ দিয়েও তৈরি করা হয় যেমন, ভেড়া, ছাগল, মহিষের। দুধ থেকে যে ঘি তৈরি হয়, তা এক বিশেষ ধরণের মাখন। মাখন দেখতে হলুদ রঙের তবে এটির রঙ গাঢ় হলুদ থেকে সাদা রঙেরRead More


ক্ষীর, মালাই ও ছানার গুনাগুণ

দুধ থেকে সর, ঘি, মাখন, ছানা, ঘোল ইত্যাদি বিভিন্ন রকমের সুস্বাদু খাদ্যবস্তু তৈরি হয়। সুস্থ থাকার জন্যে এগুলোরও অনেক উপকারিতা আছে। এই সব দিয়ে সুস্বাদু, পুষ্টিকর ও শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্যোপাদান সমৃদ্ধ খাবার তৈরি করা হয়। মাছ, মাংসে তুলনায় এই সব দিয়ে তৈরিকৃত খাবার থেকে শরীর আমিষ পায় বেশি। দুধের সর বা মালাই: আয়ুর্বেদ মতে,  দুধের সর তৃপ্তি দেয়, বল বৃদ্ধি করে। এটি পুষ্টিকর ও ঠাণ্ডা। এটি ক্ষয়রোগ উপশম করে, রতিশক্তি বৃদ্ধি করে, মেধা ও স্মৃতিশক্তি বাড়িয়ে দেয় কিন্তু সহজে হজম হয় না অথাৎ দুষ্পাচ্য। বায়ু ও পিণ্ড রোগে দুধেরRead More


নেত্রকোনা সরকারি মহিলা কলেজ নারী শিক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে

নেত্রকোনা সরকারি মহিলা কলেজ বৃহত্তর ময়মনসিংহের নেত্রকোনা জেলার নারী শিক্ষার একটি বিশাল প্রতিষ্ঠান। কলেজটি ময়মনসিংহ বিভাগের নেত্রকোনা জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র মোক্তারপাড়ায় অবস্থিত। ১৯৬৯ সালে নেত্রকোনা এলাকায় নারীদের শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে তৎকালীন কতিপয় বিদ্যোৎসাহী ব্যক্তি এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ নেত্রকোণা শহরে একটি মহিলা কলেজ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। কলেজটি ১৯৯১ সালে জাতীয়করণ করা হয়। প্রতিষ্ঠানটিতে বর্তমানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। কলেজে বর্তমানে বাংলা, সমাজকর্ম ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে অনার্স বা সম্মান কোর্স চালু আছে। উচ্চ মাধ্যমিকে মানবিক, বিজ্ঞান ও বাণিজ্য শাখায় এবং স্নাতক (পাস) কোর্সে বিএ, বিএসএসRead More


ঘোল বাংলার একটি পরিচিত উপকারি পানীয়

ঘোল বা মাঠা ছাছ বা ছচ্ছিকা (ইংরেজি: Whey) বাংলার একটি পরিচিত  শব্দ।  মানুষ গরম থেকে তৃষ্ণা মেটানোর জন্য এই পানীয় খেয়ে থাকে। দই এর কথা এলেই ঘোলের কথা মনে আসে। দুধ হতে ছানা অপসারণ করার পরে যে অবশিষ্ট থাকে তাকে ঘোল বলা হয়। এটি শরীরে নানা রোগ প্রতিরোধের জন্য উপকারি। দুধ পান করতে যাদের সমস্যা হয় তারা ঘোল পান করলে দুধের অন্যান্য প্রয়োজনিয় উপাদান পাওয়া যাবে। ঘোল: আমরা বাঙালিরা সাধারণত দইয়ে চিনি ও অল্প জল মিশিয়ে কাঁটা দিয়ে বা মিক্রারে ঘুটে ঘোল তৈরি করি। জল না মিশিয়ে বা অল্প জলRead More


আখ নাতিশীতোষ্ণ মণ্ডলের জনপ্রিয় ও অর্থকরী ফসল

ভূমিকা: আঁখ বা ইক্ষু (বৈজ্ঞানিক নাম: Saccharun officinarum, ইংরেজি নাম: Sugarcane) পোয়াসি পরিবারের Saccharum গণের বিরুৎ। আঁখের রস মিষ্টি ও সেই রস থেকে গুড় ও চিনি তৈরি করা হয়। স্বাদে মিষ্টি হওয়ায় দেশে আঁখ বেশ  জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। বর্ণনা: আখ গুচ্ছাকৃতি বহুবর্ষজীবী বীরুৎ, কান্ড খাড়া, ৩-৬ মিটার লম্বা, ২-৫ সেমি ব্যাসযুক্ত, পর্বমধ্য বিভিন্ন বর্ণের, সবুজ, হলুদ, বাদামী, লাল, বেগুনি লাল বা বিভিন্ন রঙের ডোরাকাটা, প্রায়শ মোম সদৃশ সাদা, রসালো, মিষ্টি, রোমশবিহীন। পত্রফলক রৈখিক-ভল্লাকার, ১০০-২০০ x ৩-৬ সেমি, শীর্ষ দীর্ঘা, গোড়া সরু, রোমশবিহীন। অনুফলক খাটো, ঝিল্লিযুক্ত, আবরণ রোমশবিহীন বা রোমশ, পুরাতনRead More


কাউন পৃথিবীর সর্বত্র চাষাবাদকৃত খাদ্যশস্য

ভূমিকা: কাউন বা কাওন বা কাঙ্গুই বা কাঙ্গু, কোরা, কান্তি, দানা, শ্যামধাত (বৈজ্ঞানিক নাম: Setaria italica, ইংরেজি নাম: Dwarf Setaria, Fox-tail, Italian Millet, Liberty Millet, Bristle Grass) পোয়াসি পরিবারের সেটারিয়া  গণের তৃণ। এরা ক্ষুদ্র দানাদার দ্বিতীয় বিস্তৃত চাষাবাদকৃত খাদ্যশস্য এবং পূর্ব এশিয়ায় খুব গুরুত্বপূর্ণ। এরা সকল পরিবেশে জন্মাতে পারে। বর্ণনা: কাউন একবর্ষজীবী তৃণ, কাণ্ড গুচ্ছাকার, সাধারণত ৬০-১৫০ সেমি লম্বা, খাড়া বা গোড়া বক্র, পর্ব ও পর্বমধ্য রোমশবিহীন। পত্রফলক রৈখিক, দীর্ঘাগ্র, প্রায় ৫০.০ x ২.৫ সেমি, গোড়া সরু, প্রান্ত অমসৃণ, গোড়ার নিকটবর্তী অংশ তরঙ্গিত-কুঞ্চিত, রোমশবিহীন, সামান্য অমসৃণ, নিচের অংশ কদাচিৎ রোমশ,Read More


জোয়ার বিশ্বব্যাপী চাষাবাদকৃত খাদ্যশস্য

ভূমিকা: জোয়ার বা জওয়ার বা দিধান বা কাশজোনার বা কুরবি (বৈজ্ঞানিক নাম: Sorghum bicolor, ইংরেজি নাম: Sorghum.)  পোয়াসি পরিবারের Sorghum  গণের তৃণ। সকল পরিবেশে জন্মাতে পারে। বর্ণনা:  বর্ষজীবী বা স্বল্পকাল স্থায়ী বহুবর্ষজীবী তৃণ, কান্ড প্রায় ৪ মিটার উঁচু, খাড়া, নিরেট। পত্রফলক রৈখিক, গোড়া গোলাকার, অনুফলক শক্ত, শীর্ষ গোলাকার, প্রান্ত সিলিয়াযুক্ত, আবরণ গোলাকার, রোমশ বিহীন। পুষ্প বিন্যাস বৃহৎ পেনিকেল, ৮-৪০ সেমি লম্বা, শিথিল বা সঙ্কুচিত, নিচের শাখা সমুহ আবর্ত, স্পাইকলেট জোড়াবদ্ধ, অসম, অবৃন্তক স্পাইকলেট ডিম্বাকার, ৫-৭ মিমি লম্বা, পরিঘাতকলা খররোমাবৃত, সবৃন্তক স্পাইকলেট রৈখিকউপবৃত্তাকার, গাঢ় বাদামী। নিচের গুম ৫-৬ মিমি লম্বা, চর্মবৎ,Read More


গম বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাদ্যশস্য

ভূমিকা: গম (বৈজ্ঞানিক নাম: Triticum aestivum, ইংরেজি নাম: Bread Wheat, Common Wheat) পোয়াসি পরিবারের ট্রিটিকাম গণের তৃণ। সকল পরিবেশে জন্মাতে পারে। বর্ণনা: এক বা দ্বিবর্ষজীবী তৃণ, কান্ড ৫০-১৫০ সেমি লম্বা, খাড়া, গুচ্ছাকার, ফাঁপা, গোড়া মুক্তভাবে শাখায়িত। পত্রফলক রৈখিক-ভল্লাকার বা প্রশস্ত রৈখিক, ৬-২০ মিমি প্রশস্ত, দীর্ঘাঘ্র, রোমশবিহীন বা রোমশ, অনুফলক খাটো, কর্তিতা, ঝিল্লম, আবরণ মসৃণ। পুষ্পবিন্যাস স্পাইক খাড়া কিন্তু পরিপক্ক অবস্থায় বক্র, ৫-১৫ সেমি লম্বা, মঞ্জরী অক্ষ ২-৩ মিমি লম্বা। স্পাইকলেট একল, ডিম্বাকার, পার্শ্বীয় চাপা, ৩-৫ পুষ্প যুক্ত, সর্ব ওপরের স্পাইকলেট বন্ধ্যা, রোমশ বা রোমশবিহীন, শূক ১৬ সেমি লম্বা বা অনুপস্থিত।Read More