Main Menu

বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া বিশ্বে বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের সুলভ পরিযায়ী পাখি

দ্বিপদ নাম: Surniculus lugubris সমনাম: Cuculus lugubris Horsfield, 1821 বাংলা নাম: বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া, এশীয় ফিঙেপাপিয়া ইংরেজি নাম: Square-tailed Drongo-Cuckoo. জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস জগৎ/রাজ্য Kingdom: Animalia বিভাগ/Phylum: Chordata শ্রেণী/Class: Aves পরিবার/Family: Cuculidae গণ/Genus: Surniculus, Lesson, 1830; প্রজাতি/Species: Surniculus lugubris (Horsfield, 1821)

ভূমিকা: বাংলাদেশের পাখির তালিকায় Surniculus গণে বাংলাদেশে রয়েছে এর ১টি প্রজাতি এবং পৃথিবীতে রয়েছে ৪টি প্রজাতি। বাংলাদেশে প্রাপ্ত ও আমাদের আলোচ্য প্রজাতিটির নাম হচ্ছে বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া।

বর্ণনা: বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া ডোরা অবসারণীওয়ালা কালো পাখি (দৈর্ঘ্য ২৫ সেমি., ডানা ১৪ সেমি., ঠোঁট ২.৫ সেমি., পা ২ সেমি., লেজ ১৪ সেমি.)। ব্রঞ্জ ফিঙে Dicrurus aeneus-র সঙ্গে বেশ মিল রয়েছে। সামান্য কিছু অংশে পার্থক্য ছাড়া পুরো দেহই চকচকে কালো। দেহের অবসারণী ও দীর্ঘ চেরালেজ দেহের বাকি অংশের চেয়ে কম চকচকে। লেজের নিচের কোর্ভাট ও লেজের একেবারে বাইরের পালকের গোড়ায় সাদা ডোরা রয়েছে। ঘাড়ের পিছনের ক্ষুদ্র সাদা পট্টি কেবল খুব কাছ থেকে চোখে পড়ে। চোখ কালচে বাদামি ও ঠোঁট বাদামি-কালো। পা ও পায়ের পাতা নীলচে-শ্লেট রঙের ও নখর শিঙ-বাদামি। ছেলে ও মেয়েপাখির মধ্যে চেহারায় কোন পার্থক্য নেই। অপ্রাপ্তবয়স্ক পাখি পূর্ণ বয়স্কের চেয়ে কম চকচকে ও লেজের নিচের কোর্ভাটে বেশ সাদা ডোরা থাকে। মাথা, স্ক্যাপুলার, ডানার কোর্ভাট ও বুকে ফুটকি আছে। সাদা ফুটকিসহ ছানারা অনুজ্জ্বল কালো। ৪টি উপ-প্রজাতির মধ্যে S. l. Dicruroides বাংলাদেশে পাওয়া যায়।

স্বভাব: বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া চিরসবুজ বন, বনের প্রান্তদেশ ও ঘেরা বাগানে পাওয়া যায়। সচরাচর একা বা জোড়ায় বিচরণ করে। সামান্য ওড়ে খাবার খায়। : শুঁয়োপোকা ও কোমল দেহের পোকামাকড় খায়। তা ছাড়া ফল ও ফুলের মিষ্টি রসও খেয়ে থাকে। মে-সেপ্টেম্বর প্রজনন ঋতু। পূর্বরাগের সময় ছেলেপাখি গাছের খোলা মগডাল থেকে ভোরে ও গোধূলিতে, মেঘাচ্ছন্ন সারাদিন ও পূর্ণিমা রাতে ডাকে। ৫-৮ বার উচ্চ মধুর সুরে শিস্ দিয়ে ডাকে:পিপ-পিপ-পিপ-পিপ-পিপ-পিপ…। বাসা তৈরি, ডিম ফোঁটানো কিংবা ছানার পরিচর্যা এর কোনটিই করে না। মেয়েপাখি খুদে পেঙ্গা যেমন-ফুলভেটা, চেরালেজ ও অন্য খুদে পাখির বাসায় ডিম পাড়ে।

বিস্তৃতি: বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া বাংলাদেশের সুলভ পরিযায়ী পাখি; চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের চিরসবুজ বনে বিচরণ করে। পাকিস্তান, ভারত, নেপাল, ভুটান, শ্রীলংকা, চিনসহ দক্ষিণ থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় এর বৈশ্বিক বিস্তৃতি রয়েছে।

অবস্থা: বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়া বিশ্বে ও বাংলাদেশে বিপদমুক্ত বলে বিবেচিত। বিগত তিন প্রজন্ম ধরে এদের সংখ্যা কমেছে, তবে দুনিয়ায় এখন ১০,০০০-এর অধিক পূর্ণবয়স্ক পাখি আছে, তাই এখনও আশঙ্কাজনক পর্যায়ে এই প্রজাতি পৌঁছেনি। সে কারণে আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত (Least Concern LC) বলে ঘোষণা করেছে।[২] বাংলাদেশের ১৯৭৪[১] ও ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে এই বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়াকে সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয়েছে।[৩]

বিবিধ: বর্গ-লেজি ফিঙেপাপিয়ার বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ শোকাতুর ফিঙেপাপিয়া (ফ্রেঞ্চ: Surniculus = ফিঙেপাপিয়া; ল্যাটিন: lugubris = শোকাতুর)।

তথ্যসূত্র:

১. মো: আনোয়ারুল ইসলাম ও সুপ্রিয় চাকমা, (আগস্ট ২০০৯)। “পাখি”। আহমাদ, মোনাওয়ার; কবির, হুমায়ুন, সৈয়দ মোহাম্মদ; আহমদ, আবু তৈয়ব আবু। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ ২৬ (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা – ৭৩। আইএসবিএন 984-30000-0286-0।

২. “Surniculus lugubris“, http://www.iucnredlist.org/details/22728167/0,  The IUCN Red List of Threatened Species। সংগ্রহের তারিখ: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮।

৩. বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত সংখ্যা, জুলাই ১০, ২০১২, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, পৃষ্ঠা-১১৮৪৫৫।

আরো পড়ুন






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *