You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > প্রাণ > উদ্ভিদ > বীরুৎ > মনোমুগ্ধকর বর্ষজীবী চিরজীবী ফুল প্যানসি বা পাঁচুর চাষ ও পরিচর্যা পদ্ধতি

মনোমুগ্ধকর বর্ষজীবী চিরজীবী ফুল প্যানসি বা পাঁচুর চাষ ও পরিচর্যা পদ্ধতি

প্যানসি বা পাঁচু (Pansy) একটি মনোমুগ্ধকর বহুবর্ষজীবী চিরজীবী ফুল হলেও আমাদের দেশে বর্ষজীবী শীতকালীন হিসেবে চাষাবাদ হয়ে থাকে। ফুল অনেকটা প্রজাপতির মতো দেখায় এবং এর রঙ হয় বেগুনি, নীল, হলুদ ও সাদা। সমতল অঞ্চলে অক্টোবর এবং পার্বত্য অঞ্চলে মার্চ মাসে বীজ বপন করতে হয়। সারযুক্ত দো-আঁশ মাটি এবং ঠাণ্ডা ও আর্দ্র আবহাওয়া এই ফুল চাষের বিশেষ উপযোগী। গাছের উচ্চতা ১৫-৩০ সেঃ মিঃ হয়ে থাকে। প্যানজি টবে ও কেয়ারীতে চাষযোগ্য।

প্যানসি বা পাঁচু ফুলের জাত:

প্যানজি ফুলের জাত হিসেবে উল্লেখ করার মতো তেমন নেই। ফুলের রঙ এর ভিন্নতা রয়েছে এবং জাত বলতে সমতল অঞ্চলের শীতকালীন এক বর্ষজীবী এবং পার্বত্য অঞ্চলের বহুবর্ষজীবী জাত দুটিই প্রধান।

জমি প্রস্তুত:

প্যানজির জমি প্রস্তুত দুই ধাপে করতে হয়। বীজতলা এবং চারা লাগানোর জমি।

চারা উৎপাদনের বীজতলা প্রস্তুত:

সূর্যের আলোযুক্ত জায়গায় উঁচু দো-আঁশ বা বেলে মাটিই বীজতলার জন্যে উপযোগী। ৭৫ সেঃ মিঃ থেকে ১ মিঃ প্রস্থ ও ১.৫ মিঃ থেকে ৩ মিঃ বা তারও বেশি দৈর্ঘ্য এবং ভূমি থেকে ১০-১৫ সেঃ মিঃ উচু জমি বাছাই করে তার চারপাশে ২০-৩০ সেঃ মিঃ চওড়া ও ১০-১৫ সেঃ মিঃ গভীর সেনোলা রাখতে হবে। বীজ তলা প্রস্তুতির কাজগুলি যথাক্রমে-

ক. মাটি কুপিয়ে নরম ও ঝুরঝুরে করতে হবে ।

খ. কোপানো মাটির সাথে ঝুরঝরে মাটির ১০ ভাগ এর সাথে ১ ভাগ পচা পাতা সার বা শুষ্ক গোবর সার মিশাতে হবে।

গ. উপরোক্ত আয়তনের জমিতে ২০০-২৫০ গ্রাম এস এস পি ও ৫০-৬০ গ্রাম পটাশ প্রয়োগ করে মিশানোর পর মাটি সমান করে দিতে হবে।

আরো পড়ুন:  প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বাড়াতে ফুলের ভূমিকা

ঘ. এই সময় ব্রাসিকল ৭৫ এবং বি সি ৫০ এর ০৪% স্প্রে দ্বারা ৪-৬ সেঃ মিঃ গভীর পর্যন্ত মাটি ভিজিয়ে মাটি শোধন করতে হবে ।

ঙ.  ৪ থেকে ৫ দিন পর মাটির উপর স্তর আলগা করে জমিতে বীজ বা কাটিং লাগাতে হবে।

প্যানসি বা পাঁচুর চারা লাগানোর জমি প্রস্তুত:

প্যানসি ফুল চাষের জমি উর্বর, উঁচু, শুষ্ক ও সহজে জল নিষ্কাশন করা যায় এমন জমিই উত্তম। দক্ষিণ খোলা উর্বর হালকা দো-আঁশ মাটি প্যানসি চাষে উপযোগী। তবে এটেল মাটি আরো ভালো।

ক. নির্বাচিত জমি লাঙ্গল বা কোদাল দিয়ে ৪/৫ বার গভীর ভাবে কর্ষণ করে মাটিকে ঝুরঝুরে করতে হবে।

খ. আগাছা, ইট, পাটকেল, পাথর, আবর্জনা ইত্যাদি পরিষ্কার করে প্রতি ১০০ মিটার জায়গায় ২০০ কেজি পাতা-পচা সার বা গোবর সার, ৬-১০ কেজি কাঠের ছাই, ২-৩ কেজি এস এস পি সার মাটিতে মিশিয়ে দিতে হবে।

গ. এটেল মাটির জমিতে চাষের সময় সামান্য চুন মিশাতে হবে যা দো-আঁশ মাটিতে দরকার হবে না। মাটি শোধণের জন্যে সমগ্র মাটিতেই ৩০ গ্রাম অলড্রিন এবং ২৫০ গ্রাম ব্রাসিকল ২০ সামান্য গুড়া সারের সাথে মিশিয়ে দিতে হবে।

ঘ. এই অবস্থায় মাটি সমতল করে ৩/৪ সেঃ মিঃ বীজের ও ৪-৫ টি পাতার কলমের চারা রোপনের ব্যবস্থা করতে হবে।

চারা তৈরী ও লাগানো:

বীজ হতে হোক আর কাটিং বা তেউড় হতেই হোক যথাযথ কোনো চারা উৎপাদনের কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে এবং উৎপাদিত চারা সেপ্টেম্বর হতে অক্টোবর মাসে লাগানোর ব্যবস্থা নিতে হবে।

ক. প্রস্তুতকৃত জমির মাটি সমতল ও নরম করে ফুলের চারা লাগানোর জন্যে ১ হতে ১.৫ ফুট দূরে দূরে জমিতে লাইন টানতে হবে ।

খ. লাইনের উপর উৎপাদিত বা সংগৃহীত চারাগুলি ০.৭৫ হতে ১.০ ফুট দূরে দূরে লাগাতে হবে।

আরো পড়ুন:  ফুল দীর্ঘদিন সতেজ রাখার সহজ কিছু উপায়

প্যানসি বা পাঁচুর পরিচর্যা ও যত্ন:

প্যানজি গাছের বেলায়ও কতিপয় পরিচর্যা ও যত্ন নেয়ার প্রয়োজন পড়বে।

ক. গাছের উচ্চতা ১৫-২০ সেঃ মিঃ হলেই ডগা কেটে দিতে হবে যাতে গাছ বেশ, ঝাড়ালো ও মঞ্জুরীদণ্ড বহুল হয় ।

খ. গাছের সাবধানে পানি দিতে হবে যাতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে গাছের গোড়ায় পচন না লাগে।

গ. লম্বা মঞ্জুরীর ফুল পেতে হলে একটি মাত্র ডাল রেখে বাকী ডালগুলি কেটে দিতে হবে।

ঘ. প্রথমবার ফুল দেওয়া শেষ হলে মাটির উপর ৭-৮ সেঃ মিঃ রেখে উপরের অংশ। কেটে ফেলতে হবে।

ঙ. এ সময় গাছের গোড়ার মাটি সাবধানে কুপিয়ে সার প্রয়োগ করে হালকা ভাবে জলসেচের ব্যবস্থা করলে পরবর্তীতে ফুল ভালো হবে।

প্যানসি বা পাঁচু ফুল সংগ্রহ:

ক. প্যানজি গাছের ফুল পরিপূর্ণভাবে প্রস্ফুটিত হলে তা সংগ্রহ করে নিজেদের ব্যবহারে লাগাতে হবে অথবা বাণিজ্যিক ভাবে বাজারজাত করার ব্যবস্থা নিতে হবে।

খ. প্যানজির ফুল বেশ শক্ত প্রাণের, গাছে ১০ থেকে ১২ দিন পর্যন্ত শক্ত থেকে পরে আস্তে আস্তে শুকিয়ে যায়।

গ. বোটাসহ ফুল সংগ্রহ করে টবে রাখা যায় এবং বাণিজ্যিকভাবে প্যাক করে বাজারে পাঠানো যায়। ফুল তুলে বোটাগুলি বালতির পানিতে ডুবিয়ে রেখে পরে প্যাক করতে হবে।

ঘ. লক্ষ্য রাখতে হবে কুড়ি অবস্থায় ফুল যাতে তোলা না হয়। এ অবস্থায় ফুল তুললে তা ফুটে বড় হবে না এবং ক্রেতা পছন্দ করবে না।

তথ্যসূত্র:

১. সিরাজুল করিম আধুনিক পদ্ধতিতে ফুলের চাষ প্রথম প্রকাশ ২০০১ ঢাকা, গতিধারা, পৃষ্ঠা ১১২-১১৪। আইএসবিএন 984-461-128-7

Dolon Prova
জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ “স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে”। বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।

Leave a Reply

Top