আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > প্রাণ > উদ্ভিদ > গুল্ম > কালো ছিটকি দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পুর্ব এশিয়ার গুল্ম

কালো ছিটকি দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পুর্ব এশিয়ার গুল্ম

বৈজ্ঞানিক নাম: Phyllanthus urinaria.

সমনাম: Phyllanthus leprocarpus Wight (1852).

ইংরেজি নাম: Chamber Bitter.

স্থানীয় নাম: হাজারমণি, কালো ছিটকি।

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস

জগৎ/রাজ্য: Plantae

অবিন্যাসিত: Angiosperms

অবিন্যাসিত: Eudicots

অবিন্যাসিত: Rosids

বর্গ: Malpighiales

পরিবার: Phyllanthaceae

গোত্র: Phyllantheae

উপগোত্র: Flueggeinae

গণ: Phyllanthus

প্রজাতি: Phyllanthus urinaria.

বর্ণনা: কালো ছিটকি সহবাসী, বর্ষজীবী বা কখনও বহুবর্ষজীবী, ঋজু বা আরোহী রোমশ বিহীন বা অণুরোমশ বীরুৎ। এরা প্রায় ৫০ সেমি উঁচু। কান্ড অতিশয় শাখান্বিত, ক্ষুদ্র শাখা ৩-১০ সেমি লম্বা, চ্যাপ্টা, পক্ষল । পত্র একান্তর, উপপত্র ডিম্বাকার-ভল্লাকার,প্রায় ১.৫ মিমি লম্বা, দীর্ঘা, মূলীয় অংশ কর্ণসদৃশ অভিক্ষেপ যুক্ত, বৃন্ত অতিশয় খাটো, ০.৫ মিমি লম্বা, পত্রফলক রৈখিক বা দীর্ঘায়ত থেকে দীর্ঘায়ত বিডিম্বাকার, ৫-২০ x ২-৯ মিমি, কখনও সামান্য কাস্তে আকৃতি বিশিষ্ট, শীর্ষ স্থলাগ্র বা সূক্ষ্মাগ্র, মূলীয় অংশ জুলাগ্র এবং কখনও অপ্রতিসম, পার্শ্বীয় শিরা ৪-৬ জোড়া, নিচের পৃষ্ঠ উজ্জ্বল। পুষ্প কাক্ষিক।

পুংপুষ্প: সবৃন্তক, বৃন্ত ০.৫ মিমি লম্বা, উপরের অংশ কর্ণসদৃশ বৃত্যংশ ৬টি, হলুদাভ-সাদা, ০.৩- ০.৬ x ০.২-০.৪ মিমি, উপবৃত্তাকার থেকে দীর্ঘায়ত বিডিম্বাকার, স্থলাগ্র, রোমশ বিহীন, চাকতি গ্রন্থি ৬টি, সবুজ, বৃত্যংশের সাথে একান্তর, পুংকেশর ৩টি, পুংদন্ড সম্পূর্ণ যুক্ত, পরাগধানী অবৃন্তক, ঋজু, অনুদৈর্ঘ্য বিদারী।

স্ত্রীপুষ্প: একল, কাক্ষিক, বৃন্ত ০.৫ মিমি লম্বা, বৃত্যংশ ৬টি, অর্ধ সমান, ০৭-১.১ x ০.২-০.৪ মিমি, দীর্ঘায়ত-ভল্লাকার, স্থলাগ্র বা সূক্ষ্মাগ্র, অর্ধরোমশবিহীন, হলুদাভ, মধ্যশিরা লালাভ, চাকতি বর্তুলাকার, চ্যাপ্টা, অখন্ড গর্ভাশয় অর্ধগোলাকার, আড়াআড়ি ১ মিমি, গর্ভদন্ড ৩টি, মুক্ত, ২খন্ডিত, খন্ড বক্র।

ফল: ক্যাপসিউল, গোলাকার, ব্যাস ৪ মিমি।

বীজ: ত্রিকোণাকার, ১.০-১.২ x ০.৮-১০ মিমি, অনুপ্রস্থ খাঁজযুক্ত, পেছনে ও পাশে ১২-১৫ টি খাজ হালকা। ধূসর বাদামী ।

ফুল ও ফল ধারণ: এপ্রিল-অক্টোবর।

ক্রোমোসোম সংখ্যা: 2n = ৫২ (Gill et al., 1973).

আবাসস্থল: শুষ্ক মাঠ, পথিপার্শ্ব, পতিত জমি এবং অরণ্যের প্রান্ত।

বিস্তৃতি: কম্বোডিয়া, চীন, ভারত, লাওস, ইন্দোনেশিয়া, জাপান, মালয়েশিয়া, শ্রীলংকা ও ভিয়েতনাম। বাংলাদেশের চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, ঢাকা, যশোর, রাজশাহী ও রাঙ্গামাটি জেলায় পাওয়া যায়।

অর্থনৈতিক ব্যবহার/গুরুত্ব/ক্ষতিকর দিক: উদ্ভিদ মূত্র বর্ধক, শোথ রোগ, গনোরিয়া জননেন্দ্রিয় ও মূত্র সংক্রান্ত পীড়ায় ব্যবহার করা হয়। ফল কটু, অম্ল ও শীতলতাদায়ী এবং পিপাসা ও শ্বাসনালীর প্রদাহ, কুষ্ঠ, পেত্তিক সমস্যা ও হাপানিতে উপকারী। গাছটি মাছের খামারে বিষ প্রয়োগেও ব্যবহার করা হয় (Chopra et al., 1956)।

জাতিতাত্বিক ব্যবহার: কম্বোডিয়ায় গাছটি পেশি সঙ্কোচক ও জ্বর নিবারক রূপে ব্যবহৃত। উদ্ভিদ সিক্ত পানি দ্বারা যকৃত ও উদরাময় রোগের চিকিৎসা করা হয়। ভারতের ছোট নাগপুরে শিশুদের অনিদ্রা রোগে মূলের ব্যবহার প্রচলিত (Kirtikar et al., 1935)।

বংশ বিস্তার: বীজে বংশ বিস্তার ।

প্রজাতিটির সংকটের কারণ: বর্তমানে বড় কোন সংকট নেই।

সংরক্ষণ:

বর্তমান অবস্থা: আশংকা মুক্ত (lc)।

গৃহীত পদক্ষেপ: নেই।

প্রস্তাবিত পদক্ষেপ: বর্তমানে সংরক্ষণের পদক্ষেপ গ্রহণ নিপ্রয়োজন।

তথ্যসূত্র:

১.রহমান, এম অলিউর (আগস্ট ২০১০)। অ্যানজিওস্পার্মস ডাইকটিলিডনস”  আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; হাসান, মো আবুল; বেগম, জেড এন তাহমিদা; খন্দকার মনিরুজ্জামান। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ। (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা ৪৮০-৪৮১। আইএসবিএন 984-30000-0286-0

আরো পড়ুন

Dolon Prova
জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ “স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে”। বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।

Leave a Reply

Top