You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > প্রাণ > উদ্ভিদ > গুল্ম > ভাঁট বা ঘেঁটুর নানা ভেষজ গুণ

ভাঁট বা ঘেঁটুর নানা ভেষজ গুণ

ঘেঁটু অথবা ভাঁট (Clerodendrum infortunatum) গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ হলেও উচ্চতায় প্রায় চার ফুট পর্যন্ত হয়। শীতের শেষর দিকে গাছে ফুল ফোঁটে এবং গরমকালে ফল ধরে। অযত্নে বেড়ে ওঠা এই গাছে ফুল অনেকের দৃষ্টি আকর্ষন করে। এই গাছের পাতা, মূল ব্যবহার করা হয় পেটের অসুখ, চর্মরোগ ইত্যাদি রোগের ঘরোয়া ভেষজ ওষুধ হিসাবে।

আরো পড়ুন: পাহাড়ি ভাঁট বা ঘেঁটু একটি ভেষজ দৃষ্টিনন্দন ফুল

বিভিন্ন অসুখে ব্যবহার:

ক্রিমির উৎপাতে: এ গাছের পাতার রস খুবই তিতা স্বাদের হয়। চিরতার পরিবর্তে এর রস ব্যবহার করলে ক্রিমি মরে যায়। যদি পেটে ছোট ছোট ক্রিমি হয়, তাহলে মলদ্বার দিয়ে পিচকারি দিলে সব ছোট ক্রিমি মরে যায়।

কাঁকড়া বা বিছার কামড়ে: এ গাছের পাতা এবং ফুল শিল দিয়ে সামান্য পানি সাথে বেটে দশংনের জায়গায় প্রলেপ দিলে যন্ত্রণা কমবে এবং বিষও বিনষ্ট হয়ে যাবে।

ম্যালেরিয়ায়: এ রোগে বিশেষ করে ছোট ছেলেমেয়েদের খুবই ভালো কাজ দেয়। দিনে তিনবার টাটকা পাতার রস ২ চামচ করে খাওয়াতে হবে।

টিউমারে:  ঘেঁটুর মূল বেটে টিউমারের ফোলা অংশে ভালোভাবে প্রলেপ দিয়ে তার ওপর কাপড়ের ফালি জড়িয়ে রাখা দরকার। কিছুদিন নিয়ম করে প্রয়োগ করতে হবে।

বিভিন্ন চর্মরোগে: দেহের যে কোন চর্মরোগে ঘেঁটু পাতাকে থেঁতো করে রাতে শোয়ার সময় প্রলেপ দিয়ে পরিষ্কার পাতলা কাপড়ের ফালি ছিড়ে বেঁধে দিতে হবে। এরকম চার পাঁচ দিন করলেই চর্মরোগ সেরে যাবে।

কোষ্ঠবদ্ধতায়: ঘেঁটু পাতার রস ৩০ মি.লি. পরিমাণ সকালে খালিপেটে খেলে পেট পরিষ্কার হয়ে যায়। তবে এ পরিমাণ বয়স্কদের জন্যে। শিশু অথবা বালক বা অল্প বয়স্কদের এর অর্ধেক পরিমাণ একইভাবে খাওয়াতে হবে। গাছের ডালের ওপরের দিকের কচি পাতা সংগ্রহ করে পরিষ্কার করে শিলে সামান্য পানি দিয়ে বেটে রস বের করা দরকার।

আরো পড়ুন:  আফিম বা আফিং গুল্মে আছে নানাবিধ ভেষজ গুণাগুণ

পেটের যন্ত্রণায়: পেটে মল জমলে অথবা দীর্ঘদিন ধরে বদহজমে ভুগলে মাঝে মাঝে পেটে যন্ত্রণা করে। ঘেঁটুর মূলের ৫ থেকে ৭ গ্রাম পরিমাণ রস এক গ্লাস ঘোলের সাথে মিশিয়ে খেলে যন্ত্রণা থাকে না।

মাথার উকুনে: গোসল করার তিন ঘণ্টা আগে টাটকা ঘেঁটু পাতার রস মাথায় ভালোভাবে মাখলে উকুন মরে যায়। তবে নিয়ম করে তিন থেকে চার দিন ব্যবহার করা দরকার।

শরীরে বলবৃদ্ধি:  দীর্ঘ রোগ ভোগের পর শরীর দুর্বল হলে ঘেঁটুপাতার রস রোজ  তিন থেকে চার চামচ পরিমাণ খেলে শরীরে দ্রুত পূর্বের বল ফিরে আসে।

সতর্কীকরণ: ঘরে প্রস্তুতকৃত যে কোনো ভেষজ ওষুধ নিজ দায়িত্বে ব্যবহার করুন।

তথ্যসূত্র:

১. আঃ খালেক মোল্লা সম্পাদিত;লোকমান হেকিমের কবিরাজী চিকিৎসা; মণিহার বুক ডিপো, ঢাকা, অক্টোবর ২০০৯; পৃষ্ঠা ৪৩-৪৪।

Dolon Prova
জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ “স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে”। বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।

Leave a Reply

Top