Main Menu

আদা একটি ঔষধি কন্দজ গুল্ম

বৈজ্ঞানিক নাম: Zingiber officinale Rosc., Trans. Linn. Soc. Lond. 8: 348 (1807).

সমনাম: Amomum singiber L. (1753).

ইংরেজী নাম: Ginger.

স্থানীয় নাম: আদা

ব্যবহারযোগ্য আদা, আলোকচিত্র: Bff, cc-by-sa-3.0

জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস

জগৎ/রাজ্য: Plantae

বিভাগ: Angiosperms

অবিন্যাসিত: Monocots

অবিন্যাসিত: Commelinids

বর্গ: Zingiberales

গোত্র: Zingiberaceae

গণ: Zingiber

প্রজাতি: Zingiber officinale Rosc., Trans. Linn. Soc. Lond. 8: 348 (1807).

বর্ণনা: আদা জিঞ্জিবার গণের ছোট রাইজোমসমৃদ্ধ বীরুৎ, রাইজোম সুগন্ধী, ঝাঁঝালো স্বাদ, ভিতরে ফিকে হলুদ। পত্রল-কান্ড প্রায় ০.৫- ১.০ মিটার লম্বা। পাতা অবৃন্তক, রেখ-ল্যান্সাকার, দ্বীর্ঘাগ্র, মসৃণ বা অতি রোমশ, নিচে মধ্যশিরা বরাবর, লিগিউল ২৪ মিমি লম্বা, ঝিল্লিবৎ, অগভীরভাবে দ্বিখন্ড। স্পাইক মুলজ, ৪.৫-৭.০ X ২.০-২.৫ সেমি, ডিম্বাকার, মঞ্জরীদন্ড ১০-২০ সেমি লম্বা, খাড়া, ৩-৫ সেমি লম্বা ল্যান্সাকার সীথ দ্বারা আবৃত। মঞ্জরীপত্র উপবৃত্তাকার, কাসপিডেট, প্রায় ২.৫ x ৩.০ সেমি, সবুজ, কিনারা ক্রীম-হলুদ, নিচেরটি সাধারণত মিউক্রোনেট, ঘনভাবে প্রান্ত-আচ্ছাদী, উপমঞ্জরীপত্র মোটামুটি মঞ্জরীপত্রের সমান, প্রায় ২.৪ সেমি লম্বা কিন্তু অপেক্ষাকৃত চিকন, ঝিল্লিবৎ, পেচানো। বৃতি স্ফীত, ১০-১২ মিমি লম্বা, ৩-দন্তুর, একপাশ বিদীর্ণ। দলনল ২.২-২.৫ সেমি লম্বা, পাপড়ি ৩টি, ক্রীম-হলুদ, পিঠেরটি প্রায় ২০ x ৮ মিমি, মাথার দিকে ক্রমান্বয়ে সরু। লেবেলাম বিডিম্বাকার, প্রায় ১.৫x১.০ সেমি, গাঢ় বেগুনী, মাঝে মাঝে ক্রীম-হলুদ ছোপ, অগ্র খাঁজকাটা। ষ্টেমিনোড ২, ডিম্বাকার, ৬-৭ X ৩-৪ মিমি, প্রায় নীচ পর্যন্ত মুক্ত। পুংদন্ড প্রায় ১-২ মিমি লম্বা, পরাগধানী প্রায় ৮.৫ মিমি লম্বা, ক্রীম-হলুদ, ঠোট ৭-৮ মিমি লম্বা, কালচে বেগুনী। গর্ভাশয় ৩.০ x ২.৫ মিমি, মসৃণ, গর্ভমুন্ড ফানেলাকৃতি, কিনারা সিলিয়াযুক্ত, গর্ভাশয় উপরস্থ গ্রন্থি রেখাকার, প্রায় ৫ মিমি লম্বা, মুক্ত। ফুল ধারণ ঘটে সেপ্টেম্বর-নভেম্বর।

ক্রোমোসোম সংখ্যা : 2n = ২২ (Kumar and | Subramanium, 1986).

আবাসস্থল: উচ্চভূমিতে চাষ করা হয়। বিস্তৃতি ও গ্রীষ্মমন্ডলীয় এশিয়ায় ব্যাপক চাষ হয়। বাংলাদেশে এটি সারাদেশেই চাষ হয়।

অর্থনৈতিক ব্যবহার/গুরুত্ব/ক্ষতিকর দিক: রাইজোম উত্তেজক, বায়ু নাশক, হজমকারক, পাকস্থলীর শক্তি বর্ধক, যৌনশক্তি বর্ধক, রুচিকারক, মূত্র বর্ধক। মনে করা হয় এটি স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করে, ঠান্ডা, কফ, ব্রঙ্কাইটিস ও হাঁপানির  প্রতিকার করে। বদহজম, পেটফাঁপা, বমি, খিচুনি এবং পাকস্থলির অন্যান্য যন্ত্রণাময় দেওয়া হয়। এটি পিত্তরোগ, গলার ঘা, স্বরভঙ্গ এবং বাকশক্তি ব্যবহার হয়। এর রাইজোম একটি জনপ্রিয় মসলা, তরকারী, চাটনি ও অন্যান্য খাবার তৈরীতে ব্যবহার হয়। এর থেকে আচার করা হয় এবং বিভিন্ন পানীয় সুগন্ধী করতে ব্যবহার করা হয়। আদা চিবালে রুচি বাড়ে। আদার ভেষজ গুনাগুণ সম্পর্কে বিস্তারিত পড়ুন

আদা ও শুঠের ১০টি ভেষজ গুণাগুণ

জাতিতাত্বিক ব্যবহার: লবণসহ আদা চিবালে বায়ুজনিত পেট ব্যথা উপশম হয়। আদা চা ইনফ্লুয়েঞ্জা, সর্দি এবং গলাব্যথা উপশমে একটি জনপ্রিয় পানীয়।

বংশ বিস্তার: রাইজোম দ্বারা বংশ বিস্তার হয়।

প্রজাতিটির সংকটের কারণ: কোনো সংকট নাই।

সংরক্ষণ ও বর্তমান অবস্থা: আশংকা মুক্ত (lc)।

গৃহীত পদক্ষেপ: সংরক্ষণের কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

প্রস্তাবিত পদক্ষেপ: প্রয়োজন নাই।

তথ্যসূত্র:

১. মোহাম্মদ ইউসুফ, (আগস্ট ২০১০)। অ্যানজিওস্পার্মস ডাইকটিলিডনস”  আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; হাসান, মো আবুল; বেগম, জেড এন তাহমিদা; খন্দকার মনিরুজ্জামান। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ। ১২ (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা ৪৯১-৪৯২। আইএসবিএন 984-30000-0286-0

আরো পড়ুন






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *