Main Menu

নয়ন মোহিনী দশটি ফুল

[URIS id=2287]

বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ায় সহজলভ্য দশটি সুন্দর ফুল সম্পর্কে এখানে সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেয়া হচ্ছে। ফুলগুলি হচ্ছে সূর্যমুখী, ফরাসী গাঁদা, রক্তজবা, বাঁধা গোলাপ, বড় বাগানবিলাস, গাঢ় লাল বোতল ব্রাশ, বড় চামেলি, পাতি অলকনন্দা, নয়নতারা, লালীগুরান ফুল। এই ফুল দশটি দেখতে দারুণ মনোহর। ফুলগুলো আলংকারিক এবং সহজে গাছ তৈরি করা যায়, বাগানে চাষ করা যায়। ফুঁলে গৃহের চারদিকে সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি হয়। ফুলগুলো আপনাদের মনকে প্রফুল্ল করুক, সেই কামনায়। যারা ছবিগুলো তুলেছেন তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞতা। এই ফুলগুলোর ভেতরে লালীগুরান ও নয়নতারার রয়েছে ঔষধি গুণাবলি।

১. সূর্যমুখী: সূর্যমুখী বা পাতি সূর্যমুখী (বৈজ্ঞানিক নাম: Helianthus annuus ইংরেজি: Common Sunflower) এস্টারেসি  পরিবারের হেলিয়ান্থুস গণের বিরুৎ। সূর্যমুখী লম্বা রোমশ, বর্ষজীবী, উচ্চতা ১৮০ সেমি বা ততোধিক হয়। সারা বৎসর জুড়ে ফুল ফোটে। পাকিস্তান, ভারত এবং বাংলাদেশে উদ্ভিদটি প্রধানত সৌন্দর্য বর্ধক উদ্ভিদ রূপে বাগানে আবাদ করা হয়, কিন্তু ইদানিং উদ্ভিদটি (ভোজ্য) তেল উৎপাদনক্ষম হিসেবে জমিতে আবাদ করা হচ্ছে।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: সূর্যমুখী সূর্যমুখী বাণিজ্যিক তেলজাতীয় খাদ্য শস্য

সূর্যমুখী ফুল, আলোকচিত্র: Vengolis

২. ফরাসি গাঁদা (বৈজ্ঞানিক নাম: Tagetes patula, ইংরেজি: French Marigold) এস্টারেসি পরিবারের টাগেটেস গণের গুল্ম।  এটি  অনেকে প্রতিষ্ঠানে বা গৃহের শোভাবর্ধনের জন্য লাগিয়ে থাকে। এই ফুল ঋজু, সভঙ্গ, রোমশ, একবর্ষজীবী বীরুৎ, অনূর্ধ্ব ৮০ সেমি বা ততোধিক উঁচু হয়।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: ফরাসী গাঁদা

ফরাসি গাঁদা, আলোকচিত্র: Adityamadhav83

৩. রক্তজবা (বৈজ্ঞানিক নাম: Hibiscus rosa-sinensis) মালভেসি পরিবারের হিবিস্কাস গণের একটি ছোট বৃক্ষ। রক্তজবা গাছ টি ২-৪ মি. উঁচু, কাণ্ড খসখসে, পাতা মসৃণ ও চকচকে, ফুল ১০-১৫ সে. মি. চওড়া। ফুল এক ক অথবা দ্বৈত। গাছটি কষ্টসহিষ্ণু, অল্প যত্নে জন্মে। শাখা কলম দ্বারা এর বংশ বিস্তার হয়। প্রায় সারা বছরই গাছে ফুল ফোটে। বর্তমানে অনেক ধরনের হাইব্রীড জবার অস্তিত্ব পাওয়া যায় এবং সেগুলোর মধ্যে বর্ণবৈচিত্র প্রচুর। দেখতে সুদৃশ্য হওয়াতে এদেরকে আমরা সাধারণত বাগানে শোভাবর্ধনকারী উদ্ভিদ হিসাবে লালন করে থাকি।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: রক্তজবা একটি জনপ্রিয় আলংকারিক ফুলগাছ

রক্ত জবার ফুল ও পাতা, আলোকচিত্র: Judgefloro. CC-BY-SA-4.0

৪. বাঁধা গোলাপ (বৈজ্ঞানিক নাম: Rosa centifolia, ইংরেজি: Cabbage Rose, Moss or Provence Rose) হচ্ছে রোজেসি পরিবারের রোজ গণের  একটি সপুষ্পক গুল্ম। এটিকে বাংলাদেশে আলংকারিক উদ্ভিদ হিসেবে বাগানে বা গৃহে চাষাবাদ করা হয়। এই গুল্মটি বাড়ির টবে বা বাগানের শোভাবর্ধন করে।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: বাঁধা গোলাপ বিশ্বব্যাপী বাগান ও টবের সহজলভ্য আলংকারিক ফুল

বান্ধা গোলাপ, আলোকচিত্র: Joydeep

৫. বড় বাগান বিলাস (বৈজ্ঞানিক নাম: Bougainvillea spectabilis) (ইংরেজি: Paper Flower বা great bougainvillea) হচ্ছে নিকটাগিনাসি পরিবারের বোগেনভিলিয়া গণের  একটি সপুষ্পক লতানো গুল্ম। এদেরকে বাংলাদেশ ও ভারতে সুদৃশ্য আলংকারিক উদ্ভিদ হিসেবে বাগানে বা গৃহে চাষাবাদ করা হয়।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: বড় বাগান বিলাস শোভাবর্ধক আলংকরিক ফুল

বড় বাগানবিলাস, আলোকচিত্র: Alex Lomas

৬. গাঢ় লাল বোতল ব্রাশ (বৈজ্ঞানিক নাম: Melaleuca citrinus, ইংরেজি নাম: Red Bottle Brush) হচ্ছে এ্যানোনেসি পরিবারের  মেলালুকা গণের একটি সপুষ্পক গুল্ম বা বৃক্ষ। এই উদ্ভিদ অনেকে বাড়ির বাগানের শোভাবর্ধন করার জন্য লাগিয়ে থাকে। এদের পল্লব সরু এবং ঝুলন্ত, বাকল ধূসরাভ বাদামী, অত্যন্ত রুক্ষ। জানুয়ারী থেকে ডিসেম্বর মাসে এদের ফুল ফোটে।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: গাঢ় লাল বোতল ব্রাশ শোভাবর্ধক ছোট আকারের চিরহরিৎ বৃক্ষ

গাড় লাল বোতলব্রাশ, আলোকচিত্র: S.G.S.

৭. চামেলি বা বড় চামেলি (বৈজ্ঞানিক নাম: Jasminum grandiflorum   ইংরেজি: Catalonian Jasmine বা Spanish Jasmine) হচ্ছে ওলিয়াসি পরিবারের Jasminum গণের লতানো বা অর্ধলতানো গুল্ম। চামেলি মসৃণ পত্রঝরা গুল্ম। এটি লম্বায় ২ থেকে ৪ মিটার ও উপশাখাগুলো বৃত্তাকার, কোণীয় বা খাঁজকাটা হয়। জুন থেকে নভেম্বর মাসের মধ্যে এর ফুল ও ফল ধরে।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: চামেলি গ্রীষ্ম প্রধান দেশের সুগন্ধি ফুল

বড় চামেলী, আলোকচিত্র: Adityamadhav83

৮. পাতি অলকনন্দা বা হারকাকরা (প্রজাতি: Allamanda cathartica ইংরেজি নাম golden trumpet, common trumpetvine, বা yellow allamanda)  এপোসিনাসি পরিবারের অ্যালামান্ডা গণের একটি সপুষ্পক চিরহরিৎ, আরোহী গুল্ম। ফুল ও ফল ধারণ ঘটে সারা বৎসর। বংশ বিস্তার হয় বীজ এবং কাণ্ডের কাটিং দ্বারা।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: পাতি অলকনন্দা গ্রীষ্মমণ্ডলের শোভাবর্ধনকারী গাছ

পাতি অলকনন্দা, আলোকচিত্র: বিশ্বরূপ গাঙ্গুলি

৯. নয়নতারা (বৈজ্ঞানিক নাম: Catharanthus roseus ইংরেজি নাম: Madagascar periwinkle, rose periwinkle, or rosy periwinkle) এপোসিনাসি পরিবারের ক্যাথারান্থুস গণের একটি বহুবর্ষজীবী বীরুৎ বা উপ-গুল্ম। এদেরকে সাধারণত বাগানের আলংকারিক উদ্ভিদ হিসেবে টবে বা বাগানে রোপণ করা হয়। ফুল ও ফল ধারণ ঘটে প্রায় সারা বৎসর ধরে।

মূল প্রবন্ধ পড়ুন: নয়নতারা এপোসিনাসি পরিবারের একটি আলংকারিক ফুল

নয়নতারা, আলোকচিত্র: Biswarup Ganguly

১০. লালী গুরাঁস বা রডোড্রেনড্রন (বৈজ্ঞানিক নাম: Rhododendron arboreum, ইংরেজি নাম: Tree rhododendron, burans বা gurans) এদেরকে ভুটান, চীন, ভারত, মায়ানমার, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান এবং থাইল্যান্ডে পাওয়া যায়। ফুলটি হিমালয়ের পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে এবং বাংলার দার্জিলিং-এ জন্মে। লালীগুরাঁস নেপালের জাতীয় ফুল। লালীগুরান এতোই লাল যে যখন গাছে ফুল ফোটে তখন চোখ ফেরানো যায় না।

রডোডেনড্রন ফুল, নেপালের জাতীয় ফুল, আলোকচিত্র: দোলন প্রভা

বাগান তৈরি করুন, দেহ ও মনকে প্রফুল্ল রাখুন, আশপাশের পরিবেশটাকে বদলে দিন।

আরো পড়ুন

অনুপ সাদির প্রথম কবিতার বই পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে। তাঁর মোট প্রকাশিত গ্রন্থ ১০টি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশিত তাঁর সমাজতন্ত্র মার্কসবাদ গ্রন্থ দুটি পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। ২০১০ সালে সম্পাদনা করেন বাঙালির গণতান্ত্রিক চিন্তাধারা নামের একটি প্রবন্ধগ্রন্থ।

জন্ম ১৬ জুন, ১৯৭৭। তিনি লেখাপড়া করেছেন ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *