আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > জীবনী > জ্যোতিরিন্দ্র মৈত্র আধুনিক বাংলা গানের গীতিকার

জ্যোতিরিন্দ্র মৈত্র আধুনিক বাংলা গানের গীতিকার

জ্যোতিরিন্দ্র মৈত্র বা জ্যোতিরিন্দ্রনাথ মৈত্র (নভেম্বর ১৮, ১৯১১ – অক্টোবর ২৬, ১৯৭৭; বঙ্গাব্দ অগ্রহায়ণ ৪, ১৩১৮ – কার্তিক ১১, ১৩৮৪) ছিলেন বিংশ শতাব্দীর অন্যতম প্রধান আধুনিক বাঙালি গীতিকার, কবি, লেখক ও গায়ক। তিনি বাংলা গানে আধুনিকতার পথিকৃতদের মধ্যে অন্যতম। তিনি অনেক উদীপনামূলক দেশপ্রেমের গান লিখে বিখ্যাত হয়েছেন। সংগীতের শিক্ষক হিসেবেও তিনি খ্যাতিমান।

জ্যোতিরিন্দ্র মৈত্রের জন্ম পাবনা জেলার শীতলাই গ্রামে। জমিদার পিতার কাছ থেকে তার জাতীয় আন্দোলনের দীক্ষালাভ ঘটে। কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের স্নাতক। কবি বিষ্ণু দে ছিলেন স্নাতকোত্তর ইংরাজি ক্লাসের সহপাঠী। ছাত্রাবস্থাতেই ‘পরিচয়’ পত্রিকায় কবিতা প্রকাশ পায়।

জ্যোতিরিন্দ্র মার্গসংগীতে দীক্ষা নেন হরিচরণ চক্রবর্তী, ভীষ্মদেব চট্টোপাধ্যায়, কালীনাথ চট্টোপাধ্যায়, ও আশফাক হোসেনের কাছে। তিনি রবীন্দ্রসংগীত শেখেন সরলা দেবী চৌধুরানী, ইন্দিরা দেবীচৌধুরানী ও অনাদিকুমার দস্তিদারের কাছে। এছাড়া কৈশোর থেকে তিনি বাজাতে পারতেন সেতার, এসরাজ, তবলা আর ঢাক। পাশ্চাত্য সংগীত এবং বাংলা লোকসংগীতেও তার উৎসাহ ছিল।

১৯৩৯ সাল থেকে জ্যোতিরিন্দ্র যোগ দেন প্রগতি আন্দোলনে এবং রচনা করেন ‘নবজীবনের গান’। পরে অনেক চলচ্চিত্রে তিনি সুর দেন। পঞ্চাশের দশকে তিনি দিল্লীপ্রবাসী হন এবং সেখানকার সংগীত নাটক একাডেমি ও ভারতীয় কলাকেন্দ্রের সঙ্গে যুক্ত হন। গানের সূত্রে ভারতের নানা জায়গা এবং মস্কো ও পূর্ব জার্মানী ভ্রমণ করেন। ১৯৭৭ সালের ২৬ অক্টোবর তার প্রয়াণ ঘটে।

তত্থসুত্র:

১. সুধীর চক্রবর্তী সম্পাদিত আধুনিক বাংলা গান, প্যাপিরাস, কলকাতা, প্রথম প্রকাশ ১ বৈশাখ ১৩৯৪, পৃষ্ঠা, ১৬৯।

আরো পড়ুন

Dolon Prova
জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ “স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে”। বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।

Leave a Reply

Top