আপনি যা পড়ছেন

চীনা অস্ত্র আমদানিতে আওয়ামি উৎসাহ বাংলাদেশকে সাম্রাজ্যবাদের অধীনস্থ করেছে

গণতন্ত্র হচ্ছে সামন্তবাদ, প্রাচ্য স্বৈরতন্ত্র ও জমিদারতন্ত্রের উৎখাত; জমির উপর কৃষকের পরিপূর্ণ মালিকানা। সেই গণতন্ত্রের কথা এখন আর কেউ বলে না। কিন্তু গণতন্ত্রের শত্রুরও অভাব নেই। চীনা সাম্রাজ্যবাদসহ সকল সাম্রাজ্যবাদ এখন গণতন্ত্র ও স্বাধীনতাবিরোধী হয়ে গেছে। পুঁজিবাদ সাম্রাজ্যবাদে রূপান্তরের পর গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে অনবরত যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। এই যুদ্ধ চালাতে গিয়ে তারা

চীনা সমাজের শ্রেণি বিশ্লেষণ — মাও সেতুং

মার্চ ১৯২৬ কমরেড মাও সে তুং এই প্রবন্ধটি লিখেছিলেন ১৯২৬ সালের মার্চ মাসে। সে সময়ে পার্টির ভেতরে যে দু’ধরনের বিচ্যুতি ছিলো, তার বিরোধিতা করার জন্যই তিনি এই প্রবন্ধটি লিখেছিলেন। তৎকালে পার্টির ভেতরকার প্রথম বিচ্যুতির প্রবক্তা ছিল ছেন তুসিউ। এরা কেবলমাত্র কুওমিনতাঙের সঙ্গে সহযোগিতা করতেই মনোযোগ দিয়েছিল এবং কৃষকদেরকে ভুলে গিয়েছিল—এটা ছিল

গণচীনের ইতিহাসে চীনের কমিউনিস্ট পার্টির ভূমিকা

গণপ্রজাতন্ত্রী চীন (চৈনিক: 中国 অর্থাৎ "মধ্যদেশ", ম্যান্ডারিন উচ্চারণে: চুংকুও) পূর্ব এশিয়ার একটি রাষ্ট্র যেখানে চীনের কমিউনিস্ট পার্টি ১৯৪৯ সালে গৃহযুদ্ধে জয়লাভ করে এবং চীনের মূল ভূখণ্ডে গণপ্রজাতন্ত্রী চীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে। ১৩০ কোটি জনসংখ্যার অধিকারী বর্তমান চীন পৃথিবীর সবচেয়ে জনবহুল এবং আয়তনের দিক থেকে এশিয়ার সর্ববৃহৎ রাষ্ট্র। এর আয়তন প্রায়

গণচীনের হারিয়ে যাওয়া লাল রং এবং বর্তমান সাম্রাজ্যবাদী চীন

মাও সে তুং-এর লাল চীন রং পাল্টিয়ে সংশোধনবাদের রং ধারণ করেছে মাও-এর মৃত্যুর পরেই সেই ১৯৭৬ সালে। সেই খবর কমিউনিস্টদের কাছে অনেক পুরোনো। চীনের কমিউনিস্ট পার্টিতে সংশোধনবাদি ভুয়া কমিউনিস্টরা তার পর থেকেই ক্ষমতা দখল করে রয়েছে। ফলে একদা চিনের লাল রং পালটে হয়ে গিয়েছিলো সংশোধনবাদের নীল রং। সেটিও ছিলো পার্টির

Top