আপনি যা পড়ছেন

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথাসাহিত্যে অভিবাসন প্রক্রিয়া হচ্ছে চরিত্রসমূহের আবাস স্থানান্তর

মানিক সাহিত্যে অভিবাসন

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় (মে ১৯, ১৯০৮ – ডিসেম্বর ৩, ১৯৫৬) তাঁর কথাসাহিত্যে পূর্ব বাংলার নদীনালা, খালবিল, প্রকৃতির মধ্যেই বেঁচে থাকা সাধারণ মানুষের কথা, জীবন ও পারিপার্শ্বিক ছবিগুলাে নিখুঁতভাবে তুলে ধরতে গিয়ে তাদের অভিবাসন ও স্থানান্তরকেও তুলে ধরেছেন। লেখক জীবনের বিভিন্ন অভিজ্ঞতাকে একত্রিত করেছেন নিজের সাহিত্যে যা ধারণাতীতভাবে অতিরিক্ত রকম স্বীকারােক্তিমূলক’ ও ‘আত্মজৈবনিক’ [১]। আরো পড়ুন

ভাষার মৃত্যু বা ভাষার বিলুপ্তি হচ্ছে যখন কোনো ভাষা দ্বিতীয় ভাষীদের কাছেও অজ্ঞাত

ভাষার মৃত্যু

ভাষাতাত্ত্বে, কোনও ভাষা তার শেষ স্থানীয় কথককে হারালে ভাষার মৃত্যু (ইংরেজি: Language death) ঘটে। সংযোজিত অর্থে, ভাষার মৃত্যু বা ভাষার বিলুপ্তি হলো যখন ভাষাটি দ্বিতীয় ভাষীদের কাছেও আর জ্ঞাত নয়। অন্যান্য অনুরূপ যেসব শব্দ বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করে সেগুলো হচ্ছে ভাষাহত্যা (ইংরেজি: linguicide), প্রাকৃতিক বা রাজনৈতিক কারণে কোনও ভাষার মৃত্যু,

ভাষা যোগাযোগের জটিল প্রণালীগুলির বিকাশ, অধিগ্রহণ, রক্ষণাবেক্ষণ এবং ব্যবহার সমন্বিত করে

ভাষা (ইংরেজি: Language) হচ্ছে এমন একটি পদ্ধতি যা যোগাযোগের জটিল প্রণালীগুলির বিকাশ, অধিগ্রহণ, রক্ষণাবেক্ষণ এবং ব্যবহার সমন্বিত করে, বিশেষভাবে এটি মানুষের করার ক্ষমতা আছে; একটি ভাষা হচ্ছে এমন একটি নির্দিষ্ট পদ্ধতির উদাহরণ। মানুষের চিন্তার অর্থবহ ধ্বনিসমষ্টি হলো ভাষা। আমাদের চিন্তা থেকে ধ্বনির আশ্রয়ে ওষ্ঠের মধ্য দিয়ে

শুদ্ধতার কবিতা উত্তরায়ণের কবিতা

‘যারা ভারি পণ্ডিত তারা সুন্দরকে প্রদীপ ধরে দেখতে দেখতে চলে আর যারা কবি ও রূপদক্ষ তারা সুন্দরের নিজেরই প্রভায় সুন্দরকে দেখে নেয়, অন্ধকারের মধ্যেও অভিসার করে তাদের মন।’ শিল্পাচার্য অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘সুন্দর’ নিবন্ধে এই যে স্মরণীয় বাচন উপহার দিয়েছেন, এ-কথা মনে পড়ল কি এজন্যে যে, গহনভাবনার ডুবুরি কবি সুন্দরের আবাহনে জগৎ-সংসারের

কমিউনিস্টদের পার্টি বিষয়ক ধারণায় দুই লাইনের সংগ্রাম নাকি এক প্রস্তরীভূত পার্টি?

বাংলাদেশে বামপন্থীদের ভেতরে রাজনৈতিক দল সংক্রান্ত আলোচনায় নানা প্রবণতা কাজ করে। বামপন্থীদের বৃহৎ অংশটি নিজেদেরকে কমিউনিস্ট বা সাম্যবাদী এবং দলের সদস্য হিসেবে নিজেদেরকে কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য বলে। এছাড়াও সমাজতন্ত্রী এবং সমাজগণতান্ত্রিক বা গণতান্ত্রিক দল হিসেবেও বামপন্থীরা নিজেদেরকে উপস্থাপন করতে চায়। সাধারণত সমাজতন্ত্রী ও সাম্যবাদী দলগুলোর ভেতরে বাংলাদেশে ও বাংলাভাষী অঞ্চলে

বাংলা ভাষার সহজীকরণ ও বাংলা পরিভাষা সমস্যা

বলা হচ্ছে বাংলা ভাষা পৃথিবীর চতুর্থ জনসংখ্যাবহুল ভাষা। প্রায় ৩০ কোটির বেশি মানুষ এই ভাষায় কথা বলে। সংখ্যাগত দিক দিয়ে এই পরিমাণ মোটেই হেলাফেলার নয়। কিন্তু তদুপরি কী আমরা এই ভাষা নিয়ে শঙ্কা পোষণ করি না? বাংলা ভাষা কী তার অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই করছে বা বাংলা ভাষা কী একটি মৃত

জাতীয়তাবাদ প্রসঙ্গে লেনিনবাদ

জাতীয়তাবাদ বা জাতিয়তাবাদ বা Nationalism হলো মতবাদিক ও রাজনৈতিক নীতি যা অন্যান্য জাতির তুলনায় কোনো এক জাতির শ্রেষ্ঠত্ব, জাতিয় বিশেষত্ব, জাতিদম্ভ, জাতিয় বিচ্ছিন্নতা, বিদ্বেষ ও শত্রুতা সম্পর্কিত ভাবধারা ও ধারণাকে একত্রে প্রকাশ করে। আর বুর্জোয়া জাতিয়তাবাদ হচ্ছে পুঁজিবাদি সমাজের সৃষ্ট, যা অনিবার্যভাবে বিভিন্ন জাতির মধ্যে বিরোধ, বর্ণবৈষম্য, জাতিয় ও উপনিবেশিক

বিশ্লেষণবিহীন ছোট লেখার ভুল প্রসঙ্গে

বিশ্লেষণবিহীন ছোট লেখা হয়ত মনের ছোট একটি ভাব প্রকাশের জন্য যথেষ্ট। কিন্তু ছোট এক দুই বাক্যের লেখা কোনো গবেষণাকর্ম নয়। দার্শনিক চিন্তার অনেক কাজের একটি হচ্ছে দর্শন কোনো না কোনো শ্রেণির সেবা করে। ফলে প্রাধান্যকারি শ্রেণিটির চিন্তা সেই নির্দিষ্ট সময়ের প্রভাবশালী দার্শনিকগণ উপস্থাপন করেন। এই উপস্থাপনার ভেতরেই লুকিয়ে আছে ছোট

রবীন্দ্রনাথের ছিন্নপত্রে বাঙলার রূপ

ছিন্নপত্রকে এক কথায় কী বলা যায়? ছিন্নপত্র উনিশ শতকের শেষ দশকের বাংলাদেশ। ১৮৮৫ থেকে ১৮৯৫ সালের বাঙলা দেশ। মনে হয় উত্তরটি সম্পূর্ণ হলও না, ছিন্নপত্র হলও উনিশ শতকের শেষ দশকের বাঙলাদেশের পরিবেশ ও প্রকৃতি। ছিন্নপত্রে আছে অনেক কিছু, নেইও অনেক কিছু, থাকতে পারতোও অনেক কিছু। এক চব্বিশ বছরের তরুণ পত্রগুলো

শ্রমিক ও যন্ত্রের বিরোধ এবং লুডবাদী আন্দোলন

ইউরোপের শিল্প বিপ্লবের ফলে একদিকে পুরোনো হস্তশিল্প ও কুটিরশিল্প ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় আর অন্যদিকে শহরে শহরে যন্ত্রভিত্তিক শিল্পকারখানা প্রতিষ্ঠিত হয়।  শিল্প বিপ্লবের শুরুর দিকে পুঁজিবাদের নানা ক্ষতিকর অনুষঙ্গের আবির্ভাবের কারণে নতুনতর যন্ত্রপাতির নিয়োগ, অবাধ প্রতিযোগিতা, অতি উৎপাদন, মন্দা, ছাঁটাই ইত্যাদি ঘটতে থাকে এবং কর্মহীন বেকার মানুষ বাড়তে থাকে। সচেতন, রাজনৈতিক জ্ঞানসমৃদ্ধ

Top
You cannot copy content of this page