You are here
Home > সাহিত্য > কবিতা

৫৬,০০০ বর্গমাইল

এক বাও মেলে না, দুই বাও মেলে না;   সত্য খুঁজে ফিরি আমি রাজপথে আহত শ্রমিক নদীর বহুল নিচে বাস করে সত্যের চকমকি রূপ; শ্রমমুক্তির ইশতেহার জানায় বহুমুখী কাজের হিসাব তালপাতার পুঁথি আর ই-বইয়ের কারুকাজ এঁকে চলে সবহারার ফুলবাগানে একঝাঁক কল্পগোলাপের তোড়া। এইপথে শ্রমিকের ক্রমমুক্তি হলে সুরমা-মেঘনা-যমুনার

Oh how wonderful!

Mother cooked herself in the kitchen Father is the lumber of burning fire, Burn to ashes; The ashes are taken in the laboratory, By showing the laboratory test reports With great enthusiasm the elected representative accepts Foreign dollars, Nice mundane ways! The son sells blood, Buys alluring lottery tickets, The daughter is on her way looking for customers. All are very

শুভ বিদায়

আবার দেখা, হারানোর বহুদিন পরে; আবার অন্য এক স্থানে, — বহুদিন খুঁজেছি, পাইনি। — পাবে কীভাবে? সেই যে ট্রেন থেকে নেমে গেলে? ট্রেনগুলোয় অল্পক্ষণের জন্যই আলাপ হয়। আমিও নেমেছিলাম, তবে বহুদূর এসে। আমি ছিলাম কিছুক্ষণের তেমনি অন্য এক ট্রেনের যাত্রী। স্টেশন ছেড়ে চলে এসেছি। আবার অন্য কোনো ট্রেনে অন্য কোনো দিন আলাপ হবে। —

Che, the blood smeared light

(To Shamim Parvez) On the base of the rebellion of the oppressed people There are songs, tales, there are defense after wailing, Arrival and departure also. In large timespan, as they lose little moments, Gripping the neck of unjust, some people arise the heads; Communes of equality constructed in

একদা সাক্ষাতে

একদা পাখির দিকে চেয়ে চেয়ে আদিগন্ত বিস্তৃত হিমালয় পেরিয়ে দূরে বহুদূরে মৃত্যু আর জীবনের মাঝখানে একটি ঘটনা কেউ আর কোনোদিন না জানুক তুমি তো জেনেছ মুহূর্তের সাক্ষাতটুকু শেষ হলে বাঁচবে পুনর্বার জিতবার আরাধনা। বহুবার ঘুরেফিরে এসেছি যেই মোড়ে আড়মোড়া ভেঙে মনটাকে করতে সচল মন চল অন্যখানে চল। বারবার একইপথে ঘুরপাক খাওয়া এতোই মেধাবী মানুষ তবুও তো ভুলে যায় পুরনো শেকড় একটি সাক্ষাত তবু

জানুয়ারি ২

বুকের মাঝখানে রক্তের অবিরাম গতিতে ঘোরে যে বিশ্ব, তাঁর এক কোণে কাজ করছেন এক লড়াকু তরুণ। হাতে হাতে ঘুরে ঘুরে মায়েদের ঘরে ঘরে উড়ছে যে মুক্তি নিশান, এক হাত হতে অন্য হাতে, এক কোল হতে অন্য কোলে, যে শিশুরা লাফালাফি করছে মুগ্ধতায়, তারাই আজ সবাই পূবের আকাশ মুক্তির দশকের উদ্বেলিত আগুন দেখে যে ভীরু কিশোরটিও সাহসী হয়েছে, তার

To Fanny by John Keats

Physician Nature! let my spirit blood! O ease my heart of verse and let me rest; Throw me upon thy tripod, till the flood Of stifling numbers ebbs from my full breast. A theme! a theme! Great Nature! give a theme;

Kiss and freedom

What do you see? —The brightness of light? —What are you touching? —His face; incoherent efflulgent chin, Green smooth forest, flavored violet Crape-myrtle, Flower of water hyacinth bathed in dew; Both of our time, overwhelmed, Kissing, warm hygro soft shy and shameless beauty of uncommon civilization Our diverse freedom; This happiness, We get in love, in war and in post-war pain, The

আর্ট

আমি হাত দেখতে জানি, আমি দেরি করে আসার পার্থিব কারণ জানি না শুধু জানি, তুমি ঘন চুলের মতো গাঢ় আকাশের খুব পাশে আঁকো এক লোহিত সূর্য, ওখানে মেয়েরা মেঘ হয়ে পাখিদের খুব কাছে ভালোবাসার স্রোতে বেঁচে আছে। মাঝে মাঝে ভালো লাগে তোমার অনাদরের ডাক, সত্যজিতের সিনেমা খুঁজতে গিয়ে দেখেছি তোমার সজীব চোখে ঘুঙুর পরা বাঙলার

মেঘলা রাতের চাঁদ বনাম অন্ধ পথিক

হাঁটছিলাম কজন তরুণ অন্ধবদ্ধ রাতে   টর্চলাইট হাতে কেউ ডাকলো ইশারাতে, বললো ডেকে, চলেছো কোথায়, সংগে নেবে আমায়, আমরা বললাম, রাত-বিরেতে যোদ্ধা হতে চাই সংগে আলো, ভালোই হলো তুমি কি শিকারি হাতটা ধরো বুদ্ধি করো হয়েছে মাঠ তৈরি, বাঁশবাগানে আছেরে ভুত, ভাবনা গোলমেলে শত্রুপক্ষের চোরারা গেছে ভিন দেশির কোলে শ্রমিক-কৃষক এগোচ্ছে পথ, ছুটছে হাজার ঘরে আমরা খুঁজি, আমরা মরি,

Top