আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > দর্শন > সমাজদর্শন

সমাজদর্শন কাকে বলে

সমাজদর্শন (ইংরেজি: Social Philosophy) হচ্ছে সমাজ সম্পর্কিত দার্শনিক চিন্তাভাবনা। অন্য কথায় সমাজদর্শন হচ্ছে সামাজিক আচরণ এবং সমাজ ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের ব্যাখ্যামূলক সম্পর্কের চেয়ে নৈতিক মূল্যবোধের পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন প্রশ্নের গবেষণা। সমাজতত্ত্ব সমাজের সামগ্রিক আলোচনা হলেও তাকে পূর্ণাঙ্গ আলোচনা বলা যায় না। সমাজ বিজ্ঞানের ন্যায় সমাজতত্ত্ব বস্তুনিষ্ট মূল্য-নিরপেক্ষ। সমাজতত্ত্বে বিভিন্ন সামাজিক সম্বন্ধগুলো—অর্থনৈতিক,

প্রতিষ্ঠানসমূহ হচ্ছে ব্যক্তির আচরণ পরিচালনাকারী সমাজতত্ত্বের প্রত্যয়

প্রতিষ্ঠান বা অনুষ্ঠান-প্রতিষ্ঠান (ইংরেজি: Institution) মুলত সমাজতত্ত্বের একটি প্রত্যয়। বিভিন্ন অর্থে এই ধারনাটি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে “স্থিতিশীল, মূল্যবান, আচরণের পুনরাবৃত্তিমূলক নমুনা” বা সামাজিক শৃঙ্খলার প্রক্রিয়া। প্রতিষ্ঠানগুলো একটি নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের মধ্যে একগুচ্ছ ব্যক্তির আচরণ পরিচালনা করে। প্রতিষ্ঠানগুলোকে সাধারণত সামাজিক উদ্দেশ্যের সঙ্গে চিহ্নিত করা হয়। প্রতিষ্ঠানগুলি জীবিত আচরণ পরিচালনাকারী নিয়মকানুনসমূহের মধ্যস্থতা

গণতন্ত্র ও নীতিশাস্ত্রের পারস্পরিক সম্পর্ক

গণতন্ত্রে ন্যায়-অন্যায়, উচিত-অনুচিত, ভালো-মন্দের বোধকে সমসাময়িক কালের সাথে সামঞ্জস্য রেখে নবায়ন করে নিতে হয়। গণতন্ত্রে নীতিশাস্ত্রকে সময় পরিবর্তনের সাথে যুগোপযোগী করে নিতে হয়। বাংলা ভাষায় ন্যায়-অন্যায়, ভালো-মন্দ, উচিত-অনুচিত ইত্যাদি শব্দ থাকলেও এসব কথা সম্পর্কে বিস্তারিত লিখিত আলোচনা নেই। আর নীতিবিদ্যা বা নীতিশাস্ত্র [ইংরেজি:ethics] বলে যে একটি পাঠ্য বিষয় আছে সেই

Top