You are here
Home > রাজনীতি > বামরাজনীতি

মার্কসবাদ লেনিনবাদবিরোধী বাসদ এবং বাংলাদেশের কমিউনিস্টদের জন্য তার ঐতিহাসিক শিক্ষা

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল, বা সংক্ষেপে বাসদ, গঠিত হয় ১৯৮০ সালের ৭ নভেম্বর মহান রুশ বিপ্লব দিবসে। শুরুর দিন থেকেই এই সংগঠনটি নিজেদেরকে মার্কসবাদী-লেনিনবাদী হিসেবে পরিচয় দিয়ে আসছে। তারপর প্রায় চার দশক অতিক্রান্ত হতে চলল। বাসদের ব্যবচ্ছেদ করার সময় এসেছে এবং এই সংগঠনটি সম্পর্কে আমাদের ক্ষুদ্র পরিসরে হলেও একটি মূল্যায়ন দাঁড়

কমিউনিস্টদের পার্টি বিষয়ক ধারণায় দুই লাইনের সংগ্রাম নাকি মনোলিথিক পার্টি?

বাংলাদেশে বামপন্থীদের ভেতরে রাজনৈতিক দল সংক্রান্ত আলোচনায় নানা প্রবণতা কাজ করে। বামপন্থীদের বৃহৎ অংশটি নিজেদেরকে কমিউনিস্ট বা সাম্যবাদী এবং দলের সদস্য হিসেবে নিজেদেরকে কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য বলে। এছাড়াও সমাজতন্ত্রী এবং সমাজগণতান্ত্রিক বা গণতান্ত্রিক দল হিসেবেও বামপন্থীরা নিজেদেরকে উপস্থাপন করতে চায়। সাধারণত সমাজতন্ত্রী ও সাম্যবাদী দলগুলোর ভেতরে বাংলাদেশে ও বাংলাভাষী অঞ্চলে

নেপালের নির্বাচনে সংশোধনবাদী বামপন্থিরা এগিয়ে

নেপালের সাম্প্রতিক নির্বাচনে সংশোধনবাদী বামপন্থিরা এগিয়ে রয়েছে। নেপালের কমিউনিস্ট পার্টি, সিপিএন-এমালে নেপালের ৭৬টি ফেডারেল পার্লামেন্ট আসনে বিজয়ী হয়েছে এবং এ পর্যন্ত ৫টি আসনে এগিয়ে রয়েছে। এই দলটি ১৫৮টি প্রাদেশিক আসনে নির্বাচনে জিতেছে এবং ৭টি প্রাদেশিক আসনে এগিয়ে রয়েছে। একইভাবে, পুষ্প কমল দহল প্রচণ্ড নেতৃত্বাধীন নেপালের কমিউনিস্ট পার্টি সিপিএন (মাওবাদী কেন্দ্র)

জাসদ, ফ্যাসিবাদ সাম্রাজ্যবাদের কার্যক্রম বাস্তবায়নের এক গণবিরোধী দলের নাম

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল, বা সংক্ষেপে জাসদ, গঠিত হয় ১৯৭২ সালে। এই দলটির নামের সাথে মিল পাওয়া যায় হিটলারের নামের দলটির। আডলফ হিটলারের (১৮৮৯ - ১৯৪৫) দলের নাম ছিল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক দল। শুরু থেকেই দলটির নাম নিয়ে বিতর্ক দেখা দেয় এবং মার্কসবাদীরা এটিকে ফ্যাসিবাদী দল হিসেবে বলতে শুরু করে। কেননা

মার্কসবাদ লেনিনবাদবিরোধী জাসদ বাসদ এবং একটি পুস্তকের মূল্যায়ন

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল নামক কতিপয় ক্ষুদে বুর্জোয়া সমাজ গণতন্ত্রীর যে সংগঠনটি ১৯৮০ সালে জোড়াতালি দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলো তার ভিত্তি হিসেবে কাজ করেছিলো মার্কসবাদ লেনিনবাদ বিরোধি জাসদের বিভক্তি। জাসদ আগাগোড়াই ছিলো একটি মার্কিনপন্থী প্রতিক্রিয়াশীল রাজনৈতিক সংগঠন। রুশ মার্কিন দুই সাম্রাজ্যবাদী দ্বন্দ্বে মার্কিনপন্থী কিছু ছাত্রনেতা ১৯৭১ পরবর্তী প্রেক্ষাপটে ১৯৭২ সালে গড়ে

এক দেশে সমাজতন্ত্র, স্তালিন ত্রতস্কি বিতর্ক

এক দেশে সমাজতন্ত্রের (Socialism in one country) তত্ত্বটি মূলত ভ্লাদিমির লেনিনের উদ্ভাবিত। ১৯২৪ সালে ইওসিফ স্তালিন এটিকে সামনে নিয়ে আসেন, ১৯২৫ সালে নিকোলাই বুখারিন এটিকে বিস্তৃত করেন এবং অবশেষে সোভিয়েত ইউনিয়ন এটিকে রাষ্ট্রীয় নীতি হিসেবে গ্রহণ করে। ইউরোপে ১৯১৭-১৯২১ সালের ভেতরে জার্মানি এবং হাংগেরিতে প্রলেতারিয় বিপ্লবের পরাজয় বলশেভিকদের আসন্ন বিশ্ব-বিপ্লবের আশাকে

বিশ্বজুড়ে মার্কসবাদ, মুক্তি কোন পথে

মার্কসবাদের উদ্ভব উনিশ শতকে হলেও বিশ শতকে এই মতবাদের প্রায়োগিক দিক জাজ্বল্যমানরূপে দেখা দেয়। ১৯১৭ সালের রুশ বিপ্লবের পর একে একে ষোলটি রাষ্ট্র, পৃথিবীর জনসংখ্যার প্রায় এক তৃতীয়াংশ মার্কসবাদী বিশ্বের বাস্তব উদাহরণ হয়ে ওঠে। সোভিয়েত ইউনিয়ন, পোল্যান্ড, পূর্ব জার্মানি, হাঙ্গেরি, বুলগেরিয়া, চেকশ্লোভাকিয়া, রুমানিয়া, যুগোশ্লাভিয়া, আলবেনিয়া, চীন, উত্তর কোরিয়া, মঙ্গোলিয়া, ভিয়েতনাম,

বাংলাদেশে মার্কসবাদ চর্চা

বাংলাদেশে মার্কসবাদ প্রভাব বিস্তার করতে আরম্ভ করে বিশ শতকের দ্বিতীয় দশক থেকে। বিশ শতকের শুরু থেকেই বিপ্লবী অনুশীলন ও যুগান্তর দলের সদস্যবৃন্দের ভেতরে মার্কসবাদী চিন্তা খুব ক্ষুদ্র আকারে কাজ করতে থাকে। ১৯২০ সালের ১৭ অক্টোবর কমিউনিস্ট ইন্টারন্যাশনালের দ্বিতীয় কংগ্রেসের পর তাসখন্দে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি প্রতিষ্ঠিত হলে বাঙলায় তার ঢেউ লাগে।

বামপন্থী পরিচয়ধারীরা কেন মার্কসবাদী লেনিনবাদী নয়

বামপন্থী রাজনীতি (ইংরেজিতে: Left-wing politics) হচ্ছে সেই রাজনৈতিক অবস্থান বা কর্মকাণ্ড যা সামাজিক অসাম্য ও সামাজিক ক্রমাধিকারতন্ত্রের বিরুদ্ধে সামাজিক সাম্যকে গ্রহণ বা সমর্থন করে। এই রাজনীতি বিশেষভাবে জড়িত থাকে সমাজে যারা অন্যের তুলনায় কম পায় বা সুযোগহীন থাকে তাদের ব্যাপারে সদর্থক কথাবার্তা বলতে এবং এই বামপন্থী রাজনীতি পূর্বধারনা করে যে

Top