আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > ইতিহাস > প্রথম বিশ্বযুদ্ধের কারণ অর্থনৈতিক দ্বন্দ্ব, সামরিকবাদ, সাম্রাজ্যবাদ ও জাতীয়তাবাদের বিকাশ

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের কারণ অর্থনৈতিক দ্বন্দ্ব, সামরিকবাদ, সাম্রাজ্যবাদ ও জাতীয়তাবাদের বিকাশ

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের কারণগুলো (ইংরেজি:Causes of World War I) বিতর্কিত; যদিও রাজনৈতিক, আঞ্চলিক ও অর্থনৈতিক দ্বন্দ্ব, সামরিকবাদ, জোটবদ্ধতা ও মিতালিকরণের একটি জটিল জাল, সাম্রাজ্যবাদ, জাতীয়তাবাদের বিকাশ এবং অটোমান সাম্রাজ্যের পতনের ফলে সৃষ্ট শক্তি শূন্যতাকে এই যুদ্ধের কারণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরুর আগের সময়কে বলা হয়ে থাকে সশস্ত্র শান্তির যুগ। কারণ এই সময় প্রায় প্রতিটি ইউরােপীয় রাষ্ট্র নানাভাবে তাদের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করতে থাকে। ইউরোপের বিভিন্ন দেশের সামরিক বাহিনীর আকার বৃদ্ধির আলেখ্য থেকে দৃষ্টিগােচর হয় যুদ্ধ না হলেও কোনাে দেশ নিশ্চুপ বসে থাকেনি। তারা আইন করে নির্দিষ্ট বয়সের মানুষকে সামরিক প্রশিক্ষণ নিতে বাধ্য করে। এক্ষেত্রে বিশেষ যুদ্ধের প্রস্তুতির ভাব অনেকটাই স্পষ্ট। এসময় বিভিন্ন শক্তিশালী দেশের দখলে থাকা অপেক্ষাকৃত দুর্বল রাষ্ট্রগুলাে যেমন স্বাধীন হওয়ার চেষ্টা করতে থাকে। তেমনি শক্তিশালী দেশগুলাের সন্দেহ, পরস্পর বিশ্বাসহীনতা, ভয়-ভীতি আর স্বার্থপর তৎপরতা বাড়িয়ে তােলে তাদের সম্পর্কের শীতলতা। ১৯ শতকের একেবারে গােড়া থেকে এক দশক নানা কারণে দুটি জোটে বিভক্ত হয়ে যায় পুরাে ইউরােপ। এর সাথে যুক্ত হয় পুরাে বিশ্বে তাদের সাথে সম্পর্কিত দেশগুলােও। আর সাথে জড়িত কারণগুলাের মধ্যে রয়েছে

জাতীয়তাবাদ বিশ্বযুদ্ধের কারণ  

ফরাসি বিপ্লবের সময় থেকে যে উগ্র ফরাসি জাতীয়তাবাদের উন্মেষ ঘটেছিল তা অনেকাংশে প্রথম বিশ্বযুদ্ধকেও প্রণােদিত করে। বলতে গেলে এর মধ্যদিয়েই অনেক ইউরােপের দেশ স্বাধীন হওয়ার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিল। ১৮১৫ সালের ভিয়েনা কংগ্রেস বাস্তবে রূপায়িত হয়নি। তবে ১৮৪৮ সালের পর থেকে শুরু করে ১৮৭০এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ইউরােপীয় দেশ অর্জন করে তাদের কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা। এর মধ্যে ইতালি, জার্মানি, গ্রিস, সার্বিয়া, রুমানিয়া, বুলগেরিয়া প্রভৃতি রাষ্ট্রের কথা বলা যেতেই পারে। পাশাপাশি তাদের সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে আরাে অনেক ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দেশ চেষ্টা করতে থাকে স্বাধীন হওয়ার। এক্ষেত্রে তাদের মধ্যে হঠাৎ জাগ্রত হওয়া জাতীয়তাবাদ পুরাে ইউরােপকে ঠেলে দেয় এক ভয়াবহ যুদ্ধের মধ্যে।

জাতিগত দ্বন্দ্ব বিশ্বযুদ্ধের কারণ

ইউরােপের বাইরে উপনিবেশ স্থাপন নিয়ে স্থানীয় পরিসর এবং নানা উপনিবেশে বিভিন্ন দেশের মধ্যে প্রতিনিয়ত সংঘাত চলে আসছিল। এরই মধ্যে ঘটে যায় বিখ্যাত সিডানের যুদ্ধ। যুদ্ধের পর ১৮৭১ সালে জার্মানি ফ্রান্সের থেকে লরেন ও আলসেস কেড়ে নেয়। এ দুই এলাকার মানুষ দীর্ঘদিন ফ্রান্সের অধীনে থাকায় নিজেদের ফ্রান্সের অধিবাসী বলে মনে করার পরেও নিরাপত্তার প্রশ্ন তুলে দখল করা হয় স্থান দুটি। অন্যদিকে জার্মান জাতির অংশ ও নৃতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতেও তারা জার্মান এই দাবিও তােলা হয় তখন। এ থেকে ফ্রান্স ও জার্মানির সংঘাত শুরু হয়। পাশাপাশি এমনি নানা অসম্ভব বাস্তবতাকে উপেক্ষা করে ১৮৭০ সালের দিকে প্রতিষ্ঠিত হয় ঐক্যবদ্ধ ইতালি। ঐক্যবদ্ধ ইতালির সাথে ট্রেনটিনাে ও ট্রিয়েস্টের সংযুক্তীকরণ নিয়ে একটি যুদ্ধ অবশ্যম্ভাবী হয়ে ওঠে। এ অঞ্চল অস্ট্রিয়ার দখলে থাকায় তাদের বিরুদ্ধে ইতালির অভিযান হয়ে যায় অবশ্যম্ভাবী। পাশাপাশি বলকান অঞ্চলে জাতিগত দাঙ্গা আরাে চাঙ্গা হলে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা আরও বেড়ে যায়।

উপনিবেশ বৃদ্ধি

ইউরােপের নানা দেশে শিল্প বিপ্লবের পর নানা ধরনের শিল্পজাত পণ্যের উৎপাদন বহুলাংশে বেড়ে যায়। এই বাড়তি পণ্যের বিপনন ও বাজারজাতকরণ নিয়ে ঝামেলায় পড়ে দেশগুলাে। তখন নতুন ভূখণ্ড দখলের অন্যরকম এক তাগিদ লক্ষ করা যায় তাদের মধ্যে। তাদের এই দখলবাজির প্রবণতাও প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সৃষ্টির জন্য অনেকাংশে দায়ী।

অর্থনৈতিক ও সাম্রাজ্যবাদ

ইউরােপে বিভিন্ন দেশের মধ্যে বিদ্যমান অর্থনৈতিক বৈষম্য ছিল চোখে পড়ার মত। অর্থনৈতিক দৈন্য তাদের বিশ্বের নানাদেশে উপনিবেশ স্থাপনে প্রণােদিত করে। এ নিয়েও ইউরােপের নানা দেশের মধ্যে চলত ক্রমাগত সংঘাত। বিশ্বের নানা স্থানে তাদের পণ্যবাজার সৃষ্টি নিয়ে যে অসুস্থ প্রতিযােগিতা সৃষ্টি হয় এ থেকে প্রতিষ্ঠা লাভ করে দীর্ঘস্থায়ী সংঘাত। এই সংঘাত একদিন অনেক বড় আকার ধারণ করে রূপ নেয় বিশ্বযুদ্ধের। এক্ষেত্রে বিশেষ করে অস্ট্রো-হাঙ্গেরি ও রাশিয়ার অর্থনৈতিক দ্বন্দ্বের কথা বলা যেতে পারে সবার আগে। পাশাপাশি ব্রিটেন অধিকৃত অঞ্চলের দিকে জার্মানির দৃষ্টি গেলে একটি যুদ্ধ হয়ে পড়ে অনিবার্য। আর সবদিক থেকে বিশ্লেষণ করলে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ ছিল অর্থনৈতিক। 

সামরিক শক্তি বৃদ্ধি

বিশ্বের নানাস্থানে বাজার সৃষ্টি ও বিভিন্ন দেশের সাথে অহেতুক প্রতিযােগিতা বহুগুণে বৃদ্ধি করে প্রতিটি দেশের সামরিক বাহিনীর আকার। বর্ধিত সেনাবাহিনীর ভরণপােষণের জন্য যে অতিরিক্ত অর্থ প্রয়ােজন অনেক দেশের পক্ষে এ সংস্থানও সম্ভব ছিল না। তাই যুদ্ধ আর দখলবাজিতে মেতে উঠতে হয় তাদের অস্তিত্বের প্রয়ােজনেই। তাদের ধারণা ছিল বিভিন্ন দেশের সাথে যুদ্ধে জিততে পারলে তাদের শক্তিমত্তা যেমন বাড়বে তেমনি বিশাল সৈন্যদলের দায়ভারও বইতে হবে না তাদের। 

আরো পড়ুন:  দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী বিশ্ব রাজনীতির প্রধান প্রধান শক্তি হচ্ছে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

ইতালি ও জার্মানির একত্রীকরণ 

ইউরােপের দুটি বিশাল ভূখণ্ড হিসেবে ইতালি ও জার্মানির কথা বলা যেতে পারে যারা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ভূখণ্ডে বিভক্ত থাকায় কোনােদিন নিজেদের অবস্থান জানান দিতে পারেনি। বিসমার্ক কিংবা গ্যারিবল্ডি আর কাউন্ট কাভুরের মত নেতার কৌশলে একত্রিত হয় জার্মানি ও ইতালি। তারপর থেকে তারা নিজেদের অধিকার প্রসঙ্গে বেশ সােচ্চার থাকেন। এতে করে ইউরােপের সাম্রাজ্যবাদী ও ঔপনিবেশিক রাষ্ট্রগুলাের আঁতে ঘা লাগে। তারা বুঝতে শুরু করে ধীরে ধীরে ইতালি কিংবা জার্মানির শক্তিবৃদ্ধি তাদের জন্য আখেরে মঙ্গল বয়ে আনবে না। আর শেষ পর্যন্ত ইতালি আর জার্মানির বিরুদ্ধে তাদের যুদ্ধটা লেগেই যায়।

দুর্দমনীয় জার্মানি

বিচ্ছিন্ন ভূখণ্ড হিসেবে ইউরােপের নানা শক্তির হাতে নিষ্পেষিত ছিল জার্মানি। তারা ঐক্যবদ্ধ স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর বিসমার্কের নেতৃত্বে অনেক শক্তিশালী অবস্থানে চলে যায়। একসময় যেসব দেশ তাদের দখল করে রেখেছিল এক্ষেত্রে তাদের শক্তিমত্তা ওই দেশগুলােকে ছাড়িয়ে যায়। এদিকে দীর্ঘদিন শােষিত জার্মানির মধ্যে তখন কাজ করছে তীব্র প্রতিশােধস্পৃহা। বিসমার্কের হাত ধরে যে নতুন ঐক্যবদ্ধ জার্মানি আত্মপ্রকাশ করেছিল তা কাইজার দ্বিতীয় উইলিয়ামের সময় এসে ইউরােপের দুর্দমনীয় শক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায়। ইউরােপের অন্য দেশগুলাের সেনাসংখ্যা বৃদ্ধি ও সামরিক প্রস্তুতি দেখে তারাও থেমে থাকেনি। একটি পর্যায়ে সবগুলাে শক্তিকে একই সাথে চ্যালেঞ্জ করে তারা প্রথম বিশ্বযুদ্ধ আসন্ন করে তােলে। বিশেষ করে কাইজার দ্বিতীয় ইউলিয়াম বিসমার্কের নীতি ত্যাগ করেন। তিনি মনে করেন ঐক্যবদ্ধ জার্মানিই সবকিছু নয়। আর এতে করে তিনি জার্মানি, অস্ট্রো-হাঙ্গেরি ও বলকান রাষ্ট্রগুলাের পাশাপাশি তুরস্ক পর্যন্ত নিজ দখলে নিয়ে গঠন করতে চেয়েছেন নিজস্ব এক বিস্তৃত সাম্রাজ্য। আর এই সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার চিন্তাই তাকে এতটা আগ্রাসী করে তােলে যা আসন্ন করে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ।

অস্ট্রিয়ায় রদবদল

অস্ট্রো-হাঙ্গেরি সাম্রাজ্যে দ্বৈত রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে ১৮৬৭ সালের দিকে হ্যাপসবুর্গরা তাদের শাসন নীতি পরিবর্তন করে। শাসন ক্ষমতায় জার্মান আভিজাত্যের প্রাধান্য খর্ব করা নিয়ে এসময় দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। বিশেষ করে একইসাথে জার্মান ও অস্ট্রিয়া দুই দেশের অভিজাতদের মানিয়ে নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা বেশ কঠিন হয়ে যায়। অস্ট্রিয়ার রাজনৈতিক অচলাবস্থা নিরসনের গৃহীত নানা উদ্যোগ হিসেবে সেখানে জার্মানদের প্রভাব ক্ষুন্নের চেষ্টা করা হয়। বিভিন্নভাবে দেশের অভ্যন্তরে নিয়ে আসার চেষ্টা করে স্লাভদের। এভাবে ক্রমাগত স্লাভ অভিবাসন তাদের অভ্যন্তরীণ সংকটকে আরাে বড় করে।

দখলবাজ মনােভাব

ইউরােপে নানা দেশের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি হেতু তারা পরস্পরের প্রতি সম্মানবােধ হারিয়ে ফেলে। বিশেষ করে প্রতিটি দেশ এবার চেষ্টা করে সীমাবদ্ধ সুযােগের মধ্যে থেকে যতটুকু পারা যায় নিজ রাজ্য পরিসীমা বাড়িয়ে নেয়া। বিশেষ করে ফ্রান্স ও ব্রিটিশদের নৌপথে যে দীর্ঘদিনের সংঘাত তা আরাে বড় আকারে হতে পারত। কিন্তু এবার সময়ের চাহিদায় যুদ্ধের প্রকৃতি বদলে যায়। উপনিবেশ প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ ও শক্তিশালী জার্মানি এবং ইতালি নতুন প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে হাজির হয়। 

চুক্তি ও জোট গঠন

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার বেশ আগে থেকেই ইউরােপের রাজনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে একটি নতুন ধারা সৃষ্টি হয়। এসময় নিজেদের শক্তি বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন দেশ পরস্পরের সাথে চুক্তিতে আবদ্ধ হয়। এই চুক্তি তাদের শক্তিমত্তার পাশাপাশি যুদ্ধবাজ প্রবণতাও বাড়িয়ে তােলে বহুলাংশে। এতে করে দেখা গেছে অনেক দুর্বল অর্থনীতির দেশও অহেতুক ক্ষমতা প্রদর্শনের ইচ্ছায় বিশাল সেনা সমাবেশ করে বসে। আর ওই সেনা সমাবেশ তাদের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে বাধ্য করে।

অমীমাংসিত বিরােধ

ইউরােপের বিভিন্ন দেশের মধ্যে দীর্ঘদিনের শত্রুতা কাজ করছিল। ঐতিহাসিকভাবে পরস্পরের পুঞ্জীভূত ক্ষোভ দিনে দিনে আরাে ভয়াবহ রূপ লাভ করে। এই ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ থেকেই একটি যুদ্ধ আসন্ন হয়ে পড়ে। ভূমি দখল, শক্তি প্রয়ােগ আর যুদ্ধবাজ প্রবণতা এই দেশগুলাের সম্পর্কহানির মূল কারণ।

শাসনগত জটিলতা

রাজতান্ত্রিক শাসনের ক্রমবিস্তার ইউরােপের বিভিন্ন দেশে জনগণের অধিকার বিপন্ন করেছিল। অরাজক পরিস্থিতিতে রাজতন্ত্র টিকিয়ে রাখার জন্য জনগণকে কোনাে একটা কাজে ব্যস্ত রাখাটা তখনকার প্রশাসনের জন্য বেশ জরুরি ছিল। দেশে শিক্ষা, চিকিৎসা আর কর্মসংস্থানের অভাব যখন চরমে তখন শাসকগােষ্ঠী নিজেদের পিঠ বাঁচাতে আগ্রহ দেখিয়ে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। এতে অন্তত কিছু মানুষের কর্মসংস্থান হয়। অতিরিক্ত সেনাসদস্য নিয়ােগ শাসকদের একটি সমর্থক গােষ্ঠী তৈরি করে। এদিকে সামরিক দিক থেকে বলবান কিন্তু শাসনান্ত্রিক কাঠামােয় জট পাকিয়ে ফেলেছে এমন রাষ্ট্রগুলাের শাসকরা নিজের ক্ষমতা সংহত করতেই পা বাড়ায় ভয়াবহ এ যুদ্ধের দিকে।

আরো পড়ুন:  দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণ সাম্রাজ্যবাদ, নাৎসি পার্টির ক্ষমতা দখল এবং ইতালি-জাপানের সমরবাদ

দ্রুত যুদ্ধ শেষের প্রচারণা

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরুর আগেই এর প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতির আপাত হিসাব দেখে অনেক সচেতন ও বিবেকবান মানুষ এর থেকে পিছিয়ে আসতে শুরু করেন। কিন্তু রাষ্ট্রপক্ষ তখন প্রচার চালায় যুদ্ধ শুরু হলে তাদের জয়লাভ সময়ের ব্যাপার। আর এক্ষেত্রে প্রত্যেক পক্ষই দাবি করে খুব দ্রুত যুদ্ধ শেষ হয়ে যাওয়ার। আর তারপর জনগণকে নানা সুবিধার প্রতিশ্রুতি পর্যন্ত দেয়া হয়। এই প্রচারণাও অনেক দিক থেকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধকে প্রণােদিত করে।

সিলাইফেনের ভূমিকা

প্রখ্যাত জার্মান সেনানায়কের নাম আলফ্রেড গ্রাফ ফন সিলাইফেন। তিনি বিশ্বযুদ্ধের জন্য জার্মানিকে প্ররােচিত করেন। বিশেষ করে তিনি ১৯০৫ সালের দিকে অবসর গ্রহণের পূর্বে জার্মানির উন্নয়নে কিছু প্রস্তাবনা পেশ করে যান। এক্ষেত্রে ১৯০৪ সালে রুশ-জাপান যুদ্ধে রাশিয়া হার মানলে তার প্রস্তাবনা বেশ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে যা প্ররােচিত করে অন্যসব যুদ্ধবাজ জার্মান সেনানায়ককে। প্রাথমিকভাবে অনেক দুঃসাহসী এ পরিকল্পনাও প্রথম বিশ্বযুদ্ধের জন্য অনেকাংশে দায়ী। 

ভিয়েনা কংগ্রেস

ফ্রান্স আধুনিক ইউরােপের ইতিহাসে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ফরসি বিপ্লব যেমন ইউরােপের রাজনৈতিক ইতিহাস ও মানচিত্র বদলে দিতে কার্যকর ভূমিকা পালন করেছিল। তেমনি ওয়াটারলুর যুদ্ধে নেপােলিয়নের পরাজয় ইউরােপের ইতিহাসকে প্রবাহিত করে ভিন্ন খাতে। যুদ্ধজয়ী ব্রিটেন, প্রশিয়া, রাশিয়া ও অস্ট্রিয়া এ সম্মেলনের আয়ােজক ছিলাে। এক্ষেত্রে অস্ট্রিয়ার মন্ত্রী মেটারনিক পুরাে ইউরােপকে জোর করে ঠেলে ফরাসি বিপ্লব পূর্ব অবস্থায় ফিরিয়ে নেয়ার প্রস্তাবনা পেশ করে। এ প্রস্তাবনাও প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরুর জন্য অনেকাংশে দায়ী। 

ফ্রাঙ্কো-প্রুশিয়া যুদ্ধ

১৮৭০-৭১ সালের দিকে অনুষ্ঠিত ফ্রাঙ্কো-প্রুশিয়া যুদ্ধ ইউরােপের শক্তিসাম্য নষ্ট করে। নিকট ভবিষ্যতে এ ভারসাম্যহীনতা বিভিন্ন শক্তিশালী দেশকে নিপীড়নকারী ও ক্ষতিকর হিসেবে চিহ্নিত করে। শেষ পর্যন্ত এই শক্তিসাম্য নষ্টের ঘটনা অনেক দিক থেকে বিশ্বযুদ্ধকে প্রণােদিত করেছে। 

বিসমার্কের দূরদর্শী পররাষ্ট্রনীতি

কুশলী নেতা ও সমরনায়ক অটো ফন বিসমার্কের নেতৃত্বে পতনােন্মুখ জার্মানি ধীরে ধীরে মাথা তুলে দাঁড়াতে শুরু করে। তারা অস্ট্রিয়া ও হাঙ্গেরির সাথে জোট গঠন করে শক্তিমত্তা আরাে বাড়িয়ে তােলে। পাশাপাশি রশিয়ার সাথে সফল কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করতে পারায় জার্মানির শক্তিমত্তা বেড়ে যায়। তিনি ফ্রান্স ছাড়া ইউরােপের প্রায় সব রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক তৈরি করেছিলেন। এজন্যই হয়ত ফ্রান্স জার্মানির প্রতি বিরূপ অবস্থান দেখিয়ে আসছে দীর্ঘদিন। এ দ্বিপক্ষীয় চুক্তির দুর্বলতা ও জার্মানির দ্রুত শক্তিবৃদ্ধির হেতু একটাই, যুদ্ধ জড়িয়ে পড়া। 

কাইজার দ্বিতীয় উইলহেম

একমাত্র ফ্রান্স ছাড়া ইউরােপের প্রায় সবগুলাে দেশের সাথে চুক্তি করেছিলেন বিসমার্ক। তিনি জানতেন চুক্তি করে নিজেদের ক্ষমতা বৃদ্ধি না করে অহেতুক যুদ্ধে জড়ালে শিশু জার্মানির পক্ষে তখনকার ইউরােপে টিকে থাকা সম্ভব হবে না। তবে কাইজার দ্বিতীয় ইউলহেম ক্ষমতায় বসলে তার অদূরদর্শিতা বিসমার্ককে ত্যক্ত বিরক্ত করে। তিনি ১৮৯০ সালে পদত্যাগ করলে কাইজার দ্বিতীয় উইলহেম আরাে অপ্রতিরােধ্য হয়ে ওঠেন। তিনি সাগরে ইংরেজ বাহিনীর মুখােমুখি হওয়ার মত আরেকটি শক্তিশালী নৌ-বাহিনী গড়ে তােলেন। নৌবাহিনীর দিক থেকে জার্মানির এমন শক্তিশালী অবস্থানে চলে যাওয়া ১৯০৪ সালের দিকে অ্যাংলাে-ফরাসি জোট গঠনে বাধ্য করে। এরপর জোট আরাে শক্তিশালী করে তুলতে ১৯০৭ সালে তারা রাশিয়াকে নিজেদের সাথে যুক্ত করে।

জার্মান-ইংরেজ নৌবহর 

কাইজার দ্বিতীয় উইলহেমের উত্থানের আগে সাগরে অপ্রতিরােধ্যভাবে রাজত্ব করত ইংরেজ নৌবাহিনী। তারা পর পর বেশ কয়েকটি নৌযুদ্ধে জয়লাভের মধ্য দিয়ে পুরােপুরি সাগরের ত্রাস হিসেবে আবির্ভূত হয়। ঠিক এমনি পরিস্থিতি কাইজারের পক্ষ থেকে জার্মান নৌবাহিনী গঠনের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন গ্রান্ড অ্যাডমিরাল অ্যালফ্রেড ফন টার্পিজ। ১৮৯৮-১৯১২ সালের মধ্যে তাঁর প্রচেষ্টায় জার্মান নৌবাহিনী ইংরেজদের সাথে সমান তালে পাল্লা দিয়ে লড়ার ক্ষমতা অর্জন করে। এদিকে ফার্স্ট সি লর্ড জ্যাকি ফিশার নতুন করে ঢেলে সাজান ইংরেজ নৌবাহিনীকে। দুই দেশের নৌবাহিনীর শক্তিমত্তা বৃদ্ধি নতুন করে আরেকটি সংঘাতে জড়াতে প্রণােদিত করে যাকে প্রথম মহাযুদ্ধের অন্যতম পরােক্ষ কারণ হিসেবে ধরা যেতে পারে। 

আরো পড়ুন:  গণচীনের মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাসে চীনের কমিউনিস্ট পার্টির ভূমিকা

ক্রমবর্ধমান সামরিকবাদ

১৯০৪ সালের পর ইউরােপের প্রায় প্রতিটি দেশ সেনাবাহিনীর আকার বৃদ্ধি করে। এ বর্ধিত সেনাবাহিনী তাদের কৃতকর্মের জন্য কোনাে নির্বাচিত সরকার নয় বরং দায়ী থাকতাে সম্রাটের কাছে। বেশিরভাগ যুদ্ধবাজ সম্রাট চাইতেন যেভাবেই হােক শান্তিতে-অশান্তিতে তার রাজ্যসীমা কিঞ্চিত হলেও বৃদ্ধি পাক। এ নীতি বুঝতে পেরে সামরিক বাহিনীর প্রধানরা বেপরােয়া হয়ে ওঠেন। তাদের অহেতুক যুদ্ধবাজ নীতিও প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরুর অন্যতম কারণ হিসেবে বিবেচ্য।

অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান বাহিনী 

যুদ্ধের শুরুটা হিসেব করতে গেলে অস্ট্রো-হাঙ্গেরির নাম সবার আগে চলে আসে। তাই যুদ্ধ শুরুর পূর্বে তাদের সৈন্যদলের অবস্থান ও যুদ্ধকালীন সাফল্য গাথা কিংবা ব্যর্থতার খতিয়ান সবই এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। অস্ট্রিয়া ও হাঙ্গেরির আলাদা সেনাবাহিনী থাকলেও তা ১৯১৪ সালের দিকে অর্ধলক্ষ অতিক্রম করতে পারেনি। তবে তাদের বিমান ও নৌবাহিনী বেশ শক্তিশালী ছিল। বলতে গেলে ক্ষুদ্রাকৃতির দেশ হলেও স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ হিসেবে টিকে থাকার ক্ষমতা তাদের ছিলাে। এক্ষেত্রে নানা স্থানের রণাঙ্গনে তারা আঘাত হানতে থাকে জল, স্থল ও অন্তরীক্ষ থেকে আক্রমণ চালানাের জন্য। তাদের সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ ছিলেন মার্শাল কাউন্ট ফন কনরাড। আগ্রাসী পররাষ্ট্রনীতির সমর্থক কনরাডও অনেক ক্ষেত্রে বিশ্বযুদ্ধ বাধার কেন্দ্রীয় চরিত্র হিসেবে কাজ করেছিলেন। পাশাপাশি গডউইন ব্রমবােস্কি ছিলেন একজন খ্যাতনামা পাইলট। পরপর প্রায় ৩৫টি যুদ্ধে জয়লাভ করে তিনি হয়ে ওঠেন পুরাে সেনাবাহিনীর অনেক পরিচিত মুখ।

সার্বিয়া

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আগে থেকেই বেশ শক্তিশালী ছিল সার্বিয়ান বাহিনী। ১৯০১ সালের দিকে প্রায় সব পরিণত বয়স্ক সার্বিয়ান যুবকের সেনাবাহিনীতে ভর্তি হওয়ার কথা বলা হলে মাত্র এক যুগ ব্যবধানে ১৯১২ সালে এসে ২ লাখ ৬০ হাজার সৈন্যের একটি বাহিনী গড়ে ওঠে তাদের। এরপর তারা মন্টেনিগ্রো, গ্রিস ও বুলগেরিয়ার সাথে যােগদান করে বলকান লীগে। তাদের মিলিত বাহিনী তুর্কি ভূখণ্ডের অনেক এলকা আগ্রাসন চালিয়ে দখল করে নেয়। ৩ লাখ ৬০ হাজার সৈন্যের বিরাট বাহিনী নিয়ে যুদ্ধে যােগদান করে প্রথম দিকে বেশ সফলতার সাথে কয়েকটি আক্রমণ তারা প্রতিহত করে। তবে অস্ট্রো-হাঙ্গেরির দুর্বার আক্রমণের মুখে ধসে গিয়ে ষাটোর্ধ্ব পুরুষদের যুদ্ধে নিয়ােগের পাশাপাশি মিত্রবাহিনীর দিকে। সাহায্যের জন্য হাত বাড়ায় সার্বিয়ানরা। 

১৯১৫ সালের ৫ অক্টোবরের দিকে তাদের সহায়তায় এসে পৌছায় ফ্রান্স-ব্রিটিশ মিত্রবাহিনীর একটি দল। ব্রিটিশ সেনাদলের নেতা জর্জ মিলনি সেলােনিকা ও ফরাসি দলপতি মরিস সরাই সীমান্তে সরাসরি জার্মানদের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষাব্যুহ তৈরিতে অংশ নিয়েছিলেন। তবে ১৯১৫ সালের দিকে জার্মান বাহিনীর দুর্বার আক্রমণে সেখান থেকে মিত্রবাহিনীসহ সার্বিয়ার সৈন্যরা পালিয়ে যায়। তাদের বেশিরভাগ প্রাণ বাঁচানাের তাগিদে গিয়ে আশ্রয় নেয় আলবেনিয়ার পার্বত্য অঞ্চলে।

বুলগেরিয়ার সেনাদল 

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ক্ষমতা প্রদর্শনের মহড়া ও শক্তিমত্তা বিচার করতে গেলে বুলগেরিয়ার সৈন্যদলকে তেমন গুরুত্বের মধ্যে ফেলা যায় না। তবে ২০ থেকে ৪৬ বছর বয়স্ক প্রতিটি পুরুষকে সেনাবাহিনীর ট্রেনিং বাধ্যতামূলক করার পর ১৯১২-১৩ সালের দিকে ১০ ডিভিশনে উন্নীত হয়েছিল। তারা বলকান ফ্রন্টে সমবেত হয়ে ১৯১৫ সালের দিকে সার্বিয়া আক্রমণ করে বসে। তাদের কোনাে কারখানা না থাকার পরেও জার্মান বাহিনীর থেকে সহায়তা পাওয়ায় কখনই গােলাবারুদ, বুলেট, কামান ও মেশিনগান সংকটে পড়তে হয়নি। পাশাপাশি জার্মান আর্মি এয়ার সার্ভিস তাদের লােকবলের পাশাপাশি বিমান দিয়েও সহায়তা করেন। শেষ পর্যন্ত ১২ লাখ বুলগেরিয়ার সৈন্য যুদ্ধে অংশ নিয়েছিল। যুদ্ধবিরতির আগে পর্যন্ত তাদের নিহত সৈন্যের সংখ্যা ছিল ১ লাখের উপরে।

দক্ষিণ আফ্রিকা ও জিম্বাবুয়ের বাহিনী 

১৯১২ সালের দিকে গঠিত দক্ষিণ আফ্রিকার বাহিনীতে ৫টি অশ্বারােহী রেজিমেন্টের পাশাপাশি একটি ক্ষুদ্র গােলন্দাজ দল যুক্ত করা হয়। জেনারেল জান স্মার্টসের নেতৃত্বে তাদের প্রায় ১ লাখ ৪৬ হাজার সৈন্য অংশ নেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধে। এর মধ্যে নিহত ও আহতের সংখ্যাও দশ হাজারের বেশি কিংবা কারাে কারাে মতে পাঁচ হাজারের মত। এদিকে স্থানীয় শিকারী বয়েড কানিংহামের নেতৃত্বে তৎকালীন রােডেশিয়া তথা জিম্বাবুয়েতে গঠিত হয় বিশেষ বাহিনী। তাদের সিংহভাগ গিয়ে উপস্থিত হয় পশ্চিম রণাঙ্গনে যার বেশিরভাগই ছিল পুরুষ ও ইউরােপীয় শ্বেতাঙ্গ।

তথ্যসূত্র

১. মো. আদনান আরিফ সালিম, আধুনিক বিশ্বের ইতিহাস, [Pdf]. বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, জানুয়ারি ২০১৯. সানজিদা মুস্তাফিজ ও সুমা কর্মকার. সম্পা. পৃষ্ঠা ৩৫-৪০; Retrieved from http://www.ebookbou.edu.bd/wp/OS/hsc4_2.php#hsc2855

Anup Sadi
অনুপ সাদির প্রথম কবিতার বই “পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি” প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে। তাঁর মোট প্রকাশিত গ্রন্থ ১০টি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশিত তাঁর “সমাজতন্ত্র” ও “মার্কসবাদ” গ্রন্থ দুটি পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। ২০১০ সালে সম্পাদনা করেন “বাঙালির গণতান্ত্রিক চিন্তাধারা” নামের একটি প্রবন্ধগ্রন্থ। জন্ম ১৬ জুন, ১৯৭৭। তিনি লেখাপড়া করেছেন ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।

Leave a Reply

Top
You cannot copy content of this page