You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > আন্তর্জাতিক > এশিয়া > চীন > চীনা গৃহযুদ্ধ চীনের কুওমিনতাং ও কমিউনিস্ট পার্টির মধ্যে ১৯২৭-১৯৪৯ সময়ে চলা গৃহযুদ্ধ

চীনা গৃহযুদ্ধ চীনের কুওমিনতাং ও কমিউনিস্ট পার্টির মধ্যে ১৯২৭-১৯৪৯ সময়ে চলা গৃহযুদ্ধ

গণচীনের ঘোষণা

চীনা গৃহযুদ্ধ বা চীনের গৃহযুদ্ধ (ইংরেজি: Chinese Civil War) ছিল চীনের একটি গৃহযুদ্ধ যা কুওমিনতাং (কেএমটি) নেতৃত্বাধীন চীন প্রজাতন্ত্রের সরকার (আরওসি) এবং চীনের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিসি) -এর মধ্যে ১৯২৭ থেকে ১৯৪৯ সালের মধ্যে স্থায়ীভাবে লড়াই হয়েছিল। যদিও ১৯৪৫ থেকে ১৯৪৯ সাল পর্যন্ত চার বছরের লড়াইয়ের দিকে বিশেষ মনোযোগ দেওয়া হয়েছে, যুদ্ধটি ১৯২৭ সালের আগস্টে উত্তর অভিযানের সময় কেএমটি-সিপিসি জোট ভেঙে যাওয়ার পরে শুরু হয়েছিল। সংঘর্ষ দুটি পর্যায়ে সংঘটিত হয়েছিল, প্রথমটি ১৯২৭ এবং ১৯৩৭ সালের মধ্যে এবং দ্বিতীয়টি ১৯৪৬ থেকে ১৯৫০ পর্যন্ত; ১৯৩৭ থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত দ্বিতীয় চীন-জাপানি যুদ্ধ ছিল একটি বিরতি যাতে উভয় পক্ষই জাপানের আগ্রাসি বাহিনীর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়েছিল।

গৃহযুদ্ধের ফলস্বরূপ চীনে একটি বড় বিপ্লব ঘটেছিল, কমিউনিস্টরা মূল ভূখণ্ডের চীনে নিয়ন্ত্রণ লাভ করে এবং ১৯৪৯ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী চীন (পিআরসি) প্রতিষ্ঠা করে। অন্যদিকে মার্কিন সহযােগিতায় চিয়াং কাইশেক তাইওয়ান দ্বীপে আশ্রয় গ্রহণ করে সেখানে স্বাধীন এক সরকার গড়ে তােলেন এবং মার্কিন সরকারের পৃষ্ঠপােষকতায় গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের বিরুদ্ধাচরণ শুরু করেন। তাইওয়ান জলপ্রণালীর দুই দিকের দু’পক্ষের মধ্যে দীর্ঘস্থায়ী রাজনৈতিক ও সামরিক দূরে সরে থাকার অবস্থান তৈরি হয়েছিল, তাইওয়ানের আরওসি এবং মূল ভূখণ্ডের চীনে পিআরসি উভয়ই সরকারীভাবে সমস্ত চীনকে বৈধ সরকার বলে দাবি করেছে।

জাপানের সাথে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়ে যাওয়ার পরে চীনে কমিউনিস্ট ও কুয়ােমিনতাং-এর মধ্যে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহানুভূতি স্বভাবতই থাকে চিয়াং কাইশেকের কুয়ােমিনতাং সরকারের দিকে এবং মার্কিন সরকার চিয়াং কাইশেককে নানা রকম সাহায্য দিয়ে চীনে তাঁর শাসন সুপ্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করে। কমিউনিস্ট ও কুয়ােমিনতাং এই দুই দল মিলে যাতে একটি ঐক্যবদ্ধ সরকার স্থাপন করতে পারে মার্কিন সরকারের পক্ষ থেকে সে চেষ্টাও করা হয়। কিন্তু কুয়ােমিনতাংকে বাঁচিয়ে রাখার সব চেষ্টাই ব্যর্থ হয়। চিয়াং কাইশেক সরকারের প্রতি চীনের জনসাধারণের আর কোনো মােহ ছিল না। কমিউনিস্টদেরদের দুর্বার অগ্রগতিতে কুয়োমিনতাং সম্পূর্ণরূপে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে।[১]

আরো পড়ুন:  একে-৪৭ হচ্ছে সাম্প্রতিক বিশ্বের জনপ্রিয়তম গ্যাস পরিচালিত স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্র

বিশ্বযুদ্ধের একেবারে শেষ পর্যায়ে জাপানের বিরুদ্ধে সােভিয়েত ইউনিয়ন যােগ দেওয়ায় কমিউনিস্টদের আরও সুবিধা হয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত ১৯৪৯ খ্রিস্টাব্দের পয়লা অক্টোবর পিকিং-এ কমিউনিস্ট পরিচালিত সরকার স্থাপিত হয় এবং এইভাবে গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের (People’s Republic of China) পত্তন ঘটে।

তথ্যসূত্র:

১. গৌরীপদ ভট্টাচার্য, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পুস্তক পর্ষদ, কলকাতা, পঞ্চম সংস্করণ ডিসেম্বর ১৯৯১, পৃষ্ঠা ৩৫২।

Anup Sadi
অনুপ সাদির প্রথম কবিতার বই “পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি” প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে। তাঁর মোট প্রকাশিত গ্রন্থ ১০টি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশিত তাঁর “সমাজতন্ত্র” ও “মার্কসবাদ” গ্রন্থ দুটি পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। ২০১০ সালে সম্পাদনা করেন “বাঙালির গণতান্ত্রিক চিন্তাধারা” নামের একটি প্রবন্ধগ্রন্থ। জন্ম ১৬ জুন, ১৯৭৭। তিনি লেখাপড়া করেছেন ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।

Leave a Reply

Top