You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > আন্তর্জাতিক > এশিয়া > ভারত > আধুনিক আসামের ইতিহাসের আরম্ভ আসামে ব্রিটিশ উপনিবেশবাদের বিস্তার থেকে

আধুনিক আসামের ইতিহাসের আরম্ভ আসামে ব্রিটিশ উপনিবেশবাদের বিস্তার থেকে

আসামের ইতিহাস বাংলার ইতিহাস

আধুনিক আসামের ইতিহাস শুরু হয়েছে আসামে ব্রিটিশ উপনিবেশবাদের বিস্তারের পর থেকে। আসামে উপনিবেশিক যুগের সূচনা হয়েছিল ১৮২৬ সালে ইয়াণ্ডাবুর চুক্তির পরে ব্রিটিশ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে এবং ১৯৪৭ সালের পরে ব্রিটিশদের পরিবর্তে দিল্লির নয়া-উপনিবেশিক যুগে প্রবেশের মধ্য দিয়ে। ১৯৪৭ সালে পূর্বদেশের একটি অংশের, মূলত কলকাতার পুঁজিপতিরা যোগ দিয়েছে দিল্লি সাম্রাজ্যের সাথে। বোম্বাই, দিল্লি আর করাচীর পুঁজিপতিরা দাঙ্গা বাঁধিয়ে পূর্বদেশকে লুট করার চক্রান্তে সেসময় সফল হয়েছে। এরপর বহুবার তারা বারবার পূর্বের দেশসমূহে দাঙ্গা লাগিয়েছে, অরুনাচল, আসাম ও মনিপুরে গণহত্যা চালিয়েছে।

বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি (১৮২৬–১৮৭৩)

১৮২৪ সালে, প্রথম অ্যাংলো-বার্মিজ যুদ্ধ শুরু হয়েছিল। ব্রিটিশরা আসামে বর্মি গ্যারিসনে আক্রমণ করেছিল এবং ১৮২৫ সালের মধ্যে, বার্মিজদেরকে আসাম থেকে তাড়ান হয়েছিল। ইয়াণ্ডাবুর সন্ধি অনুসারে, বার্মিজ রাজা বাগ্যিদাও আসামের উপর সমস্ত দাবি ত্যাগ করেন। ব্রিটিশরা এভাবে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার প্রভু হয়ে ওঠে এবং তারা আসামে তাদের শাসনকে সুসংহত করতে শুরু করে।

আসামকে বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির অংশ হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। উজানি আসামের একীভূতকরণ ১৮৩৭ সালে চায়ের সফল উৎপাদক হিসেবে চিহ্নিত হয় এবং ১৮৩৯ সালে আসাম কোম্পানির যাত্রা শুরু হয়। ১৮৫৯ সাল থেকে চা বাগানের জন্য মধ্য ও পূর্ব ভারতীদেরকে শ্রমিক হিসেবে আমদানি করা হয়েছিল। অবিচ্ছেদ্য চুক্তির ভিত্তিতে এই শ্রম গোষ্ঠীর লোকেদেরকে কার্যত দাসত্বের দিকে পরিচালিত করেছিল বর্বর ব্রিটিশ বেনিয়ারা। যে পরিস্থিতিগুলিতে তারা আসামে স্থানান্তরিত হয়েছিল তা এত ভয়াবহ ছিল যে প্রায় ১০% কখনই এই যাত্রায় বেঁচে ছিল না। উপনিবেশিক ব্রিটিশ সরকারের আফিম ব্যবসায়ের উপর ইতিমধ্যে একচেটিয়া ছিল।

১৮৭৪ সালের বঙ্গভঙ্গ

১৮৭৪ সালের আগে বেঙ্গল প্রেসিডেন্সী ছিল মূল বাংলা, বিহার ও উড়িষ্যা এবং ছোট নাগপুর নিয়ে গঠিত। বাঙালি অধ্যুষিত জেলা গোয়ালপাড়া, কাছাড় এবং সিলেটকে বিচ্ছিন্ন করে আসামে অন্তর্ভুক্ত করা সত্ত্বেও, বঙ্গ থেকে গেছিল ব্রিটিশ ভারতের সর্বাধিক জনবহুল প্রদেশ যার আয়তন ছিল প্রায় ১,৮৯,৯০০ বর্গ মাইল এবং জনসংখ্যা ছিলো প্রায় ৭ কোটি ৮৫ লক্ষ। ব্রিটিশ সরকারের মধ্যে অনুভূতিটি ছিল যে একক ব্যক্তির দ্বারা এই প্রদেশ পরিচালিত হওয়া প্রশাসনিকভাবে খুব সুবিধাজনক ছিল না এবং সে কারণেই সম্ভবত এই প্রদেশটির আয়তন এবং জনসংখ্যা হ্রাস করার পরিকল্পনাটি ‘আনুষ্ঠানিক’ভাবে নেয়া হয়েছিল[১]।

আরো পড়ুন:  বাংলায় মোগল-শাসনের বিশেষ বৈশিষ্ট্য

প্রকৃতপক্ষে ১৮৬৬ সালে উড়িষ্যায় দুর্ভিক্ষের পরে স্যার স্টাফোর্ড নর্থকোট প্রশাসনিক সুবিধার্থে এবং দক্ষতার ভিত্তিতে “বেঙ্গল প্রেসিডেন্সীর বিশাল আকার হ্রাস” করার পরামর্শ দিয়েছিলেন এবং তখন থেকেই বাংলার মানচিত্রকে আবার নতুন করে আঁকার প্রস্তাবগুলি শুরু হয়েছিল।[২] সেই সময়ে বঙ্গ, বিহার, ওড়িশা ও আসাম বেঙ্গল প্রেসিডেন্সীর অন্তর্ভুক্ত ছিল। এসব আলাপের প্রেক্ষিতে আসামের প্রধান কমিশনারশিপ গঠনের মাধ্যমে ১৮৭৪ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি এই বেঙ্গল প্রেসিডেন্সী প্রদেশকে দ্বিখণ্ডিত করা হয়েছিল।[৩]

আসামের রাজনীতি

ভারতের আসামের রাজনৈতিক কাঠামোতে আনুষ্ঠানিক রাজ্যপাল পদটি নেতৃত্বে রয়েছে। তাকে আসাম বিধানসভার সদস্যগণ যারা মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদ দ্বারা সহায়তা করেন। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে রাজ্যপাল আরও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে, এর বিশেষ কারণ হচ্ছে শেষ দুইজন গভর্নর প্রাক্তন সেনাবাহিনী জেনারেল ছিলেন এবং সেনাবাহিনীকে উলফা এবং অন্যান্য সশস্ত্র সমুত্থানকারী দলগুলির বিরুদ্ধে সমুত্থান-বিরোধী অভিযানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল।

২০১৬ সালে, বিজেপি বা ভারতীয় জনতা পার্টি আসাম নির্বাচনে জিতেছিল এবং কেরালা, পুডুচেরি, তামিলনাড়ু এবং পশ্চিমবঙ্গে খুব বেশি অগ্রগতি করতে ব্যর্থ হয়ে আসাম রাজ্যে প্রথমবারের মতো নিজস্ব সরকার গঠন করেছিল। আসামে, এটি ২৯.৮ শতাংশ ভোট নিয়ে ১২৬টি আসনের মধ্যে ৬০টিতে জিতেছিল। আসামে ভোটে জিতেই বিজেপি এনআরসি নামক গণবিরোধী প্রক্রিয়া হাতে নেয় এবং ১৯ লক্ষ্য আসামবাসী জনগণকে অনাগরিক ঘোষণা করে সবাইকে বন্দি শিবিরে নিখেপ করে।[৪]

তথ্যসূত্র:

১. R. C. Majumdar, History Of The Freedom Movement in India, Vol.2 p.3
২. S. Sarkar, Swadeshi Movement In Bengal, p.9
৩. শ্রী যোগেন্দ্রনাথ গুপ্ত, আসামের ইতিহাস, পপুলার এজেন্সি, কলিকাতা, ১৩৩৬ বঙ্গাব্দ, পৃষ্ঠা ১৪৬।
৪. অনুপ সাদি, ২ নভেম্বর ২০১৯, “ভারতীয় জনতা পার্টি ভারতের জনগণ, গণতন্ত্র, স্বাধীনতা ও মানবতার শত্রুদের সংগঠন“, রোদ্দুরে.কম।

Anup Sadi
অনুপ সাদির প্রথম কবিতার বই “পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি” প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে। তাঁর মোট প্রকাশিত গ্রন্থ ১০টি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশিত তাঁর “সমাজতন্ত্র” ও “মার্কসবাদ” গ্রন্থ দুটি পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। ২০১০ সালে সম্পাদনা করেন “বাঙালির গণতান্ত্রিক চিন্তাধারা” নামের একটি প্রবন্ধগ্রন্থ। জন্ম ১৬ জুন, ১৯৭৭। তিনি লেখাপড়া করেছেন ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।

Leave a Reply

Top