Main Menu

গুড়ের যত গুণ

গুড় আখ কিংবা খেজুরের রস হতে তৈরি করা এক প্রকারের মিষ্ট দ্রব্য। যদিও কোথাও কোথাও তালের রস হতেও গুড় তৈরি করা হয়। এই তিন গাছের অধিকাংশ জলীয় রস ঘন করে পাক দিয়ে গুড় তৈরি করা হয়।

আমরা এই নিবন্ধে মূলত আখের গুড়ের বিষয়ে আলোচনা করছি। গুড়ে আখের রসের সব খনিজ ও ক্ষারক পদার্থ সুরক্ষিত থাকে। এই সব খনিজের জন্যেই গুড় এরকম অস্বচ্ছ ও অপরিষ্কার দেখায়। পণ্ডিত ভাবমিশ্র গুড়কে উদ্দেশ্য করে বলেছেন ‘দোষত্রয়ক্ষয়কারয়’ নমো গুড়ায়। অর্থাৎ বাত, পিণ্ড আর কফ এই তিন দোষ নাশ করে গুড়।

গুড় শীঘ্রই হজম হয়ে যায়। গুড়ের সমান ওজনের চিনি হজম হতে অনেক বেশি সময় লাগে। গুড়ে চিনির চেয়ে শতকরা তেত্রিশ ভাগ পোষকতত্ত্ব (পুষ্টিগুণ) বেশি আছে। সেইজন্যে চিনির তুলনায় গুড় বেশি শক্তি দেয়।

যিনি শারীরিক ভাবে দুর্বল, যাঁর কোনো আঘাত লেগেছে, যার অর্শ, শ্বাস, মূর্চ্ছা প্রভৃতি রোগ আছে, অধিক পথ হাঁটার জন্যে যিনি ক্লান্ত, যিনি খুব বেশি পরিশ্রমের কাজ করেছেন, যিনি পড়ে গিয়ে আঘাত পেয়েছেন, যাঁর নেশা হয়ে গেছে, বা যাঁর শরীরে কোনো রকমের বিষ ঢুকে গেছে, যিনি মূত্রকৃচ্ছতায় (প্রস্রাব কম হওয়ায়) ভুগছেন, যার পাথুরি রোগ হয়েছে (কিডনি বা গলস্টোন), যিনি পুরানো জ্বর বা ম্যালেরিয়ায় ভুগছেন, যাঁর রক্তপিত্ত, দাহ, তৃষ্ণা ইত্যাদির কষ্ট আছে, যাঁর রক্তের দোষ (রক্তবিকার) হয়েছে, এমনকী যিনি ক্ষয় রোগে ভুগছেন তিনি যদি নিয়মিতভাবে পুরানো গুড় খান তাহলে সুফল পাবেন।

সুস্থ থাকতে গুড়ের প্রয়োগ:

১. আদা গুড় খেয়ে কোনো কাজ আরম্ভ করলে সে কাজে কাশক্তি বেশি পাওয়া যায়। সেইজন্যে আগে বলা হত আদা গুড় খেয়ে কাজে লেগে যাও অথাৎ পুণোদ্যমে কাজ শুরু করো।

২. আদা ও গুড় একসঙ্গে মিশিয়ে খেলে কফ দূর হয়।

৩. হরীতকীর সঙ্গে গুড় মিশিয়ে খেলে পিত্তের প্রকোপ দূর হয়।

৪. শুঠের (শুকনা আদা) সঙ্গে গুড় মিশিয়ে খেলে সব রকমের বায়ুর প্রকোপ নাশ হয়।

৫. গুড়, শুঠ ও অল্প ঘি মিশিয়ে পাতিলেবু আকারে লাড্ডু তৈরি করে খেলে বর্ষাকালে ও শীতকালে বায়ুনাশ হয়, খিদে পায়। এই লাড্ডু খেলে বর্ষাকালে বৃষ্টিতে ভিজলেও সর্দি হয় না।

৬. পরিশ্রম করবার পর গুড় খেলে ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। মানুষের কাছে গুড়ই সেইজন্যে খাদ্য একাধারেও পরিশ্রমীর পথ্য। সেইজন্যে বলা হয়ে থাকে গুড় যত পুরানো হয় তত বেশি শরীরে উপকার দেয়। সুশ্রুতের অভিমতে, পুরোনো গুড় নতুন গুড়ের চেয়ে বেশি উপকারী ও অত্যন্ত হিতকর। বাণভট্ট বলেন পুরোনো গুড় হার্টের পক্ষে উপকারী।

আয়ুর্বেদ মতে পুরোনো গুড় সহজে হজম হয় সেজন্যে রক্তাস্বল্পতা, জন্ডিস, পিত্ত, ত্রিদোষ এবং কোনো জায়গায় ফুলে ওঠা দূর করে। গুল্ম, অর্শ, অরুচি, ক্ষয়, কাশি, বুকের আঘাত, ক্ষীণতা প্রভৃতি অসুখ ও অসুবিধেতে সঠিক ওষুধের সঙ্গে পুরোনো গুড় খেলে সুফল পাওয়া যায় ।

গুড় যত পুরোনো হয় ততই বেশি শীতল হয়ে যায়—অর্থাৎ উষ্ণভাব কমে যায়।

তথ্যসূত্রঃ

১. সাধনা মুখোপাধ্যায়: সুস্থ থাকতে খাওয়া দাওয়ায় শাকসবজি মশলাপাতি, আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড, কলকাতা, নতুন সংস্করণ ২০০৯-২০১০, পৃষ্ঠা ৪৩-৪৪।

আরো পড়ুন

জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন।

তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে । বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *