Main Menu

অরুচি কমাতে ভেষজ ঔষধের ব্যবহার

হঠাৎ করে খাবারে অরুচি দেখা দিলে সেটাকে কখনই অবহেলা করা উচিত নয়। কারণ এই অরুচি থেকেই মানুষের দেহে কোনো না কোনো জটিল রোগ বাসা বাঁধতে পারে।  খাবারে অরুচি এলে শরীরের স্বাভাবিক আচরণে পরিবর্তন দেখা যায়। তাই মনোযোগ দিতে হবে শরীরের দিকে জন্ডিস হয়েছে কিনা, পাকস্থলীর বা অন্ত্রের কোনো সমস্যায় বা অম্লতা বেড়েছে কি না। এই অরুচি যদি সাময়িক হয় বা এর ফলে শরীরের বিশেষ কোনো পরিবর্তন দেখা না দেয় তাহলে কিছু ভেষজ উপায়ে অল্প কিছু দিনের মধ্যে এ-থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।  

১. অরুচিতে সিকি কাপ জলে ২ চা-চামচ আন্দাজ আদার রস ও সামান্য লবণ মিশিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট মুখে পুরে রাখতে হয়, তারপর ফেলে দিতে হয়; এতে খাওয়ার রুচি ফিরে আসে। আর লবণ না দিয়ে ঐ জল মুখে রাখলে সান্নিপাতিক দোষজনিত দাঁতের মাড়ি ফোলা আরাম হয়।

২. অরুচি যতই পরানো হোক না কেন, অড়হরের ডালের যুষ অল্প আদা মরিচ বাটা দিয়ে সাঁতলে তার সঙ্গে পরিমাণ মতো লবণ মিশিয়ে বারে বারে একটু একটু করে খেতে হবে। যুষ এক/দেড় কাপ সমস্ত দিনে খেলেই চলবে। ৫০ গ্রাম আন্দাজ ডালের যুষ করতে হবে।

৩. অনেক কারণেই অরুচি হয়, এটা যদি পিত্তরে প্রাবল্যে হয়ে থাকে তা হলে ঐ ৩/৪ গ্রাম খেসারি গরমজলে ভিজিয়ে খেলে ঐ অরুচিটা সেরে যাবে, অনেক সময় এর সঙ্গে ক্রিমির উপদ্রবও দেখা যায়, এটাতে সেটাও চলে যায়।

 ৪.  অরুচিতে অল্প ডালিমের ফলের রস, বিট লবণ ও মধু একত্রে মিশিয়ে কুলকুচা করে ফেলে দিলে অরুচি কমে যায়। এটি চক্তদত্তের অভিমত।

৫. যে অরুচিকে কিছুতেই কমানো যাচ্ছে না, সেক্ষেত্রে সুজির হালুয়ার সঙ্গে নিমপাতা চূর্ণ ২৫o থেকে ৩০০ মিলিগ্রাম মিশিয়ে খেলে কয়েক দিনের মধ্যেই ওটা উপশম হয়।

৬. নালতে পাতার মতো নিসিন্দা পাতার সুপ্ত (ঘিয়ে ভেজে) খেলে (একটি বোঁটায় ৩ থেকে ৪টি পাতা থাকে, সেই রকম একটি বা দুটি পাতা) পুরোনো অরুচি সারে। নিসিন্দার ফুলও ঐভাবে খেলে অরুচি সারে।

 ৭. যমের অরুচি বলে একটা কথা আছে; এ কথার অর্থ কিন্তু যমেরও ভক্ষ্য নয়; মানুষের ক্ষেত্রে কিন্তু ঠিক তারই উল্টো। যে কোনো স্বাদের জিনিসই হোক না কেন, সে কোনোটাই খেতে চায় না, অথচ ক্ষিধেয় পেট জ্বলে যায়। এক্ষেত্রে আমড়া গাছের মাঝের অংশের ছালের রস ১ চা চামচ আধা কাপ জলে মিশিয়ে এক টিপ লবণ ও মিষ্টি দিয়ে সরবতের মতো করে খেলে ঐ অরুচিটা সেরে যাবে।

৮. স্বাদু কাকমাচীর পাতা অল্প সিদ্ধ করে, জল ফেলে দিয়ে সেই শাক ঘি দিয়ে সাঁতলে শাকের মতো প্রথমে ভাতের সঙ্গে খেলে অরুচি সেরে যাবে।

৯. কয়েকদিন থেকে কিছুই মুখে রুচছে না, বমি আসে, মুখ দিয়ে তিতো (তিক্ত) জল বেরোয়, এক্ষেত্রে বুঝতে হবে, তাঁর রসবহ স্রোত বিকারগ্রস্ত। তাই সেখানে কচি কাঁকুড়ের রস ৩ থেকে ৪ চা চামচ একটু মিছরি মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে একবার খেতে হবে। এর দ্বারা ঐ অসুবিধাটা চলে যাবে।

১০. এ অরুচির ক্ষেত্রে থাকে পিত্ত শ্লেষ্মার দোষ, তার প্রধান লক্ষণ থাকবে জিভটা ফাটা ফাটা এবং জিভের ধারটা লাল; কিছু খেলেই জ্বালা করে আর মুখে কিছুতেই যেন রুচি হয় না; এক্ষেত্রে কালো বা সাদা কাসুন্দের পাতা অল্প লবণ দিয়ে সিদ্ধ করে তবে জল ফেলার দরকার নেই; তা ঘিয়ে সাঁতলে ৮ থেকে ১০ গ্রাম আন্দাজ শাকের মতো ভাতের সঙ্গে খেলে ২ থেকে ৩ দিনেই অরুচিটা সেরে যাবে; কিন্তু বেশি খেলে পেটে বায়ু হওয়ার ভয় থাকে, সুতরাং অল্প খাওয়াই ভালো।

১১. যাঁদের মুখে কিছু ভাল লাগে না, খেতে ইচ্ছে হয় না, তাঁরা গুলঞ্চের পাতা ভেজে খেয়ে দেখুন, তাহলে অরুচি চলে যাবে।

১২. যে অরুচি শ্লেষ্মাবিকারে আসে অর্থাৎ সর্দিতে মুখে অরুচি হলে তেলাকুচোর পাতা একটু সিদ্ধ করে, জলটা ফেলে দিয়ে শাকের মত রান্না করে (অবশ্য ঘি দিয়ে সাঁতলে রান্না করতে হবে) খেলে; এর দ্বারা অরুচি সেরে যাবে।

সতর্কীকরণ: ঘরে প্রস্তুতকৃত যে কোনো ভেষজ ওষুধ নিজ দায়িত্বে ব্যবহার করুন।

তথ্যসূত্রঃ

১. আয়ুর্বেদাচার্য শিবকালী ভট্টাচার্য: চিরঞ্জীব বনৌষধি খন্ড ১ ও ২, আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড, কলকাতা।

আরো পড়ুন






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *