আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > প্রকৃতি > নদী > সাইদুলি নদী বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নেত্রকোনা জেলার একটি নদী

সাইদুলি নদী বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নেত্রকোনা জেলার একটি নদী

সাইদুলি নদী বা সাইডুলি নদী বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নেত্রকোনা জেলার একটি নদী। নদীটির দৈর্ঘ্য ৪০ কিলোমিটার, গড় প্রস্থ ৮৫ মিটার এবং নদীটির প্রকৃতি সর্পিলাকার। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড বা “পাউবো” কর্তৃক সাইদুলি নদীর প্রদত্ত পরিচিতি নম্বর উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদী নং ৭৭।

প্রবাহ: সাইদুলি নদীর উৎপত্তি হয়েছে নেত্রকোনা সদর উপজেলার বিশোড়া গ্রামের এবং বিল সুলাঙ্গির প্রবাহ থেকে। তবে পানি বিশেষজ্ঞ ম. ইনামুল হক তাঁর বাংলাদেশের নদনদী গ্রন্থে এই নদীর উৎপত্তি হিসেবে বলেছেন আটপাড়া উপজেলার সরমাইসা এলাকাকে।[২] এই নদী মূলত মগড়া নদীপ্রবাহের বা মগড়া নদী জলসম্ভারের (ইংরেজি: drainage basin) অংশ।

প্রবাহপথে নদীটি নেত্রকোনা সদর অতিক্রম করে মদন এবং কেন্দুয়া উপজেলার সীমানা নির্ধারণ করে প্রবাহিত হয়ে মদন উপজেলার তেতুলিয়ার কাছে দুভাগে বিভক্ত হয়। দক্ষিণের শাখাটির নাম হয় বারুনী নদী এবং বামের শাখাটি সাইদুলি নামেই আমাশিয়া বিলের দুদিক দিয়েই প্রবাহিত হয়ে মগড়া নদিতে পতিত হয়।

চিত্রের ইতিহাস: কেন্দুয়া-আটপাড়া উপজেলার সীমান্ত এলাকা শরিষাকোটা গোপালপুর থেকে আলোকচিত্রটি তুলেছেন আবুল কালাম আল আজাদ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে।

তথ্যসূত্র:

১. মোহাম্মদ রাজ্জাক, মানিক (ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। “উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদী”। বাংলাদেশের নদনদী: বর্তমান গতিপ্রকৃতি (প্রথম সংস্করণ)। ঢাকা: কথাপ্রকাশ। পৃষ্ঠা ২২৩। আইএসবিএন 984-70120-0436-4

২. হক, ম ইনামুল, বাংলাদেশের নদনদী, অনুশীলন, ঢাকা, প্রথম প্রকাশ জুলাই ২০১৭, পৃষ্ঠা ১৭৩।

আরো পড়ুন

Anup Sadi
অনুপ সাদির প্রথম কবিতার বই “পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি” প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে। তাঁর মোট প্রকাশিত গ্রন্থ ১০টি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশিত তাঁর “সমাজতন্ত্র” ও “মার্কসবাদ” গ্রন্থ দুটি পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। ২০১০ সালে সম্পাদনা করেন “বাঙালির গণতান্ত্রিক চিন্তাধারা” নামের একটি প্রবন্ধগ্রন্থ। জন্ম ১৬ জুন, ১৯৭৭। তিনি লেখাপড়া করেছেন ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।

Leave a Reply

Top