You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > খবর > পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমী আয়োজিত প্রথম আন্তর্জাতিক কনফারেন্স অনুষ্ঠিত

পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমী আয়োজিত প্রথম আন্তর্জাতিক কনফারেন্স অনুষ্ঠিত

প্রথম আন্তর্জাতিক কনফারেন্স

ঢাকার নীলক্ষেতে পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমী আয়োজিত প্রথম আন্তর্জাতিক কনফারেন্স গত ২৩ ও ২৪ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে অনুষ্ঠিত হয়েছে। কনফারেন্সের মূল বিষয় হচ্ছে “Bangladesh 2030: Opportunities and Challenges”. অনুষ্ঠানটি সকাল দশটায় প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার মিলনায়তনে নাসিউল আলমের স্বাগত ভাষণের মাধ্যমে শুরু হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারে পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান।

স্বাগত ভাষণে নাসিউল আলম জাতীয় পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমী যেসব প্রশিক্ষণ প্রদান করেন সেসব সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা প্রদান করেন। তিনি উল্লেখ করেন যে জাতীয় পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমীর লক্ষ্য হচ্ছে ‘Earn, Learn and return’. তিনি দেশের মেগা প্রকল্প যেমন, পদ্মা সেতু প্রকল্প, রূপপুর আনবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এবং মেট্রোরেল প্রকল্প সম্পর্কে উছ্বসিত প্রশংসা করেন।

পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমীর মহাপরিচালক মোহাম্মদ আবুল কাসেম প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম সম্পর্কে ধারণা দেন এবং বলেন যে, যদিও এটি প্রথম আন্তর্জাতিক সম্মেলন, এই প্রতিষ্ঠান দীর্ঘ তিন দশক ধরে দেশের উন্নয়নের ক্ষেত্রে গৃহীত সকল পরিকল্পনায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।

মন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন যে আপনারা সারা পৃথিবীর গবেষক ও শিক্ষার্থীদের কাজে জড়িত করে আমাদের দক্ষতা সকলের সামনে তুলে ধরুন। অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে যদি বিদেশিরা এসে অংশগ্রহণ করে তবে পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমীতে করবে না কেন?

ড. শামসুল আলম তার প্রধান প্রবন্ধ উপস্থাপক হিসেবে বাংলাদেশের উন্নয়নের অর্জন এবং সতর্কতাসমূহকে তুলে ধরেন। তিনি লিখেছেন, গত দশকে বাংলাদেশের উন্নয়ন কার্যক্রম অবিচ্ছিন্ন গতি অর্জন করেছে। ব্যতিক্রমী শক্তিশালী উন্নয়ন রেকর্ডের সূচকগুলি দেশকে আরও উচ্চতর লক্ষ্যে অনুপ্রাণিত করেছে। দেশটি এখন ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ মধ্যম আয়ের স্থিতিতে পৌঁছতে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের মর্যাদায় পৌঁছতে আগ্রহী। বর্তমানে দেশটি তার সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার (এসএফওয়াইপি) আওতায় প্রত্যাশা ২০২১ বাস্তবায়নের কাজ করছে। এসএফওয়াইপি, যার সাথেও যুক্ত হয়েছে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি), পরিপ্রেক্ষিত পরিকল্পনা (২০১০-২০২১) এবং বাংলাদেশ ডেল্টা পরিকল্পনা ২১০০।

আরো পড়ুন:  সময়ের স্ফুলিঙ্গকে ধারণ করবে ‘অবরুদ্ধ সময়ের কবিতা’ --- খুলনায় কবিদের উচ্চারণ

বাংলাদেশ প্রায় ৮% মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে এবং বিশ্বের দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির একটি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। ২০১৫ সালে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা অর্জন করে এবং ২০২৪ সালের মধ্যে একটি উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়ে বাংলাদেশ এক মাইলফলক স্পর্শ করেছে। ২০১৬ সালে অর্থনীতি ৭.০ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে যা দেড় দশকেরও বেশি সময় ধরে ৬.০ শতাংশ প্রবৃদ্ধির জাল ভেঙে ফেলেছে। পঞ্চম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় ২০১৯ অর্থবছরে মাথাপিছু আয় বেড়েছে ১৯০৯ মার্কিন ডলারে, যা একই সময়ের ২০১৮ অর্থবছরের তুলনায় ১৭৫১ মার্কিন ডলারের চেয়ে বেশি। বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশ এখন ৩৪তম স্থানে রয়েছে, যাঅনেক প্রতিষ্ঠিত দেশ (ডব্লিউইএফ ২০১৮) এর চেয়ে এগিয়ে। ২০৩০ সালের মধ্যে, বাংলাদেশ বিশ্বের ২৪তম বৃহত্তম অর্থনীতিতে পরিণত হবে।

বাংলাদেশ ২০০০-২০০৫ সময়কালে দারিদ্র্যের হার ১.৮ শতাংশ থেকে ২০০৫ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে ১.৭ শতাংশে কমিয়ে এনেছে। এবং ২০১০ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে ১.৭ শতাংশ থেকে ২০১০ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে ১.২ শতাংশ হ্রাস করতে সক্ষম হয়েছে। সর্বশেষ গৃহস্থালী আয় ও ব্যয় সমীক্ষা (Household Income and Expenditure Survey, HIES)) ২০১৬ রিপোর্টে, উচ্চ দারিদ্র্যসীমার আওতাধীন দারিদ্র্যের হার ২৪.৩ শতাংশ নিবন্ধিত হয়েছে এবং নিম্ন দারিদ্র্যসীমার জন্য এই হার ১২.৯ শতাংশ চিহ্নিত হয়েছে।

দক্ষ খাদ্য বিতরণ ব্যবস্থার মাধ্যমে উন্নত পল্লী অবকাঠামো, উদারকৃত কৃষি যোগান, উৎপাদিত বাজার এবং বাজারের শারীরিক ও ডিজিটাল সংহতকরণের মাধ্যমে খাদ্য সুরক্ষা সম্পর্কিত উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি কেবল পল্লী অর্থনীতিকে পুনরুজ্জীবিত করতে সহায়ক নয়, কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সহায়তা করেছে।

ওয়ারপোর কাজ সম্পর্কে অনুপ সাদির প্রশ্ন

জন্মের সময় থেকে বাংলাদেশের আয়ু (২০১৮ সালের ৭২.৩ বছর) উন্নয়নে অগ্রগতি হয়েছে। ২০১৫ সালে প্রতিরোধক সম্প্রসারণ কর্মসূচির (Expanded Programme on Immunisation – ইপিআই) কভারেজ থেকে জানা যায় যে ৮২.৫ শতাংশ শিশুদের পুরোপুরি টিকা দেওয়া হয়েছিল যা ১৯৮৫ সালে মাত্র ২.০ শতাংশ ছিল। বাংলাদেশে পাঁচ বছরের কম বয়সী মৃত্যুর হার ১৯৮২ সালে এক হাজার জীবিত জন্মের মধ্যে ২১২ জনের মৃত্যুর চেয়ে ২০১৮ সালে ২৯ জনের মৃত্যু ঘটেছিল।  মোট উর্বরতার হারও (total fertility rate, টিএফআর) ১৯৭৫ সালের ৬.৩ থেকে ১৯৯১ সালের ৪.৩-এ নেমেছিল এবং সর্বশেষে ২০১০ সালে ২.০৫ এ নেমেছিল।

Leave a Reply

Top