You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > রাজনীতি > জাতীয় মুক্তিযুদ্ধ হচ্ছে স্বাধীনতা অর্জনের জন্য জাতিসমূহের দ্বারা পরিচালিত জনগণের যুদ্ধ

জাতীয় মুক্তিযুদ্ধ হচ্ছে স্বাধীনতা অর্জনের জন্য জাতিসমূহের দ্বারা পরিচালিত জনগণের যুদ্ধ

জাতীয় মুক্তিযুদ্ধ বা জাতীয় মুক্তির বিপ্লবসমূহ (ইংরেজি: Wars of national liberation বা national liberation revolutions) হচ্ছে জনগণের সেসব যুদ্ধ যা স্বাধীনতা অর্জনের জন্য জাতিগুলি পরিচালনা করে। বিদ্রোহী জাতীয়তার মানুষেরা পৃথক সার্বভৌম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে বিদেশী শক্তির বিরুদ্ধে বা কমপক্ষে যাদেরকে বিদেশী হিসাবে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে এই শব্দটি যুদ্ধের সাথে একত্রে ব্যবহার করে। ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে, এই যুদ্ধগুলিকে বলা হয় সমুত্থান, বিদ্রোহ বা স্বাধীনতার যুদ্ধ।[১] গেরিলা যুদ্ধ তৎপরতা বা সামঞ্জস্যহীন যুদ্ধ তৎপরতা প্রায়শই অন্যান্য রাষ্ট্রের সমর্থন নিয়ে জাতীয় মুক্তি আন্দোলনকারী হিসাবে চিহ্নিত গোষ্ঠীগুলি ব্যবহার করে।

বিউপনিবেশবাদী আন্দোলনের সময় যারা লড়াই করেছিল তাদের জন্য “জাতীয় মুক্তিযুদ্ধ” শব্দটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়। যেহেতু এই যুদ্ধগুলি মূলত পশ্চিমা শক্তি এবং তাদের অর্থনৈতিক প্রভাবের বিরুদ্ধে তৃতীয় বিশ্বে চালিত হয়েছিল এবং শীতল যুদ্ধের একটি প্রধান বৈশিষ্ট্যকে ধারণ করেছিল; তাই এই বাক্যাংশটি প্রায়শই পক্ষপাতদুষ্ট বা নিন্দাসূচক হিসাবে পাশ্চাত্যে উপনিবেশবাদীদের কাছে বিবেচিত হয়েছে। এই ধরনের কিছু কিছু যুদ্ধ সোভিয়েত ইউনিয়নের দ্বারা কথায় কথায় বা বস্তুগতভাবে সমর্থিত হয়েছিল, যাতে সোভিয়েত ইউনিয়ন নিজেকে সাম্রাজ্যবাদবিরোধী শক্তি বলে উল্লেখ করেছিল এবং সেসব যুদ্ধে সাম্রাজ্যবাদী পশ্চিমা সমর্থিত মুৎসুদ্দি সরকারগুলিকে প্রতিস্থাপন করে স্থানীয় কমিউনিস্ট বা অন্যান্য অ-পশ্চিমাপন্থী দলগুলির ক্ষমতা দখলকে সমর্থন করেছিল। যাই হোক, এটি সবসময় যে সোভিয়েত প্রভাবের ফলেই ঘটেছে এমন নিশ্চয়তা দেয়া যায় না।

সোভিয়েত ইউনিয়নের সাথে ক্রমবর্ধমান প্রতিযোগিতার পাশাপাশি, গণপ্রজাতন্ত্রী চীন নিজেদেরকে পাশ্চাত্য প্রভাবের বাইরে স্বাধীন জাতীয়তাবাদী বিকাশের মডেল হিসাবে উপস্থাপন করেছিল। বিশেষভাবে চীনের এই জাতীয় ভঙ্গিমা এবং অন্যান্য দীর্ঘমেয়াদী শত্রুতার অর্থ পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদী শক্তির জন্য হুমকী হিসাবে বিবেচিত হয়েছিল এবং ফলশ্রুতিতে চীনারা নিজেদের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামরিক সম্পদগুলি ভিয়েতনামের মুক্তি আন্দোলনে সহায়তা করার জন্য ব্যবহার করেছিল। ১৯৬১ সালের জানুয়ারিতে সোভিয়েত প্রধানমন্ত্রী নিকিতা ক্রুশ্চেভ বিশ্বজুড়ে “জাতীয় মুক্তিযুদ্ধ”কে সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দেন।[২]

আরো পড়ুন:  পুঁজিবাদী দেশগুলিতে রাজনৈতিক পরিস্থিতির ক্ষেত্রে বর্ধমান উত্তেজনা – জে. ভি. স্তালিন

লেনিনবাদী দৃষ্টিতে জাতীয় মুক্তি সংগ্রাম

“সাম্রাজ্যবাদ” সংক্রান্ত সাম্যবাদী ধারণা ভ্লাদিমির লেনিনের ১৯১৬ সালের বই “সাম্রাজ্যবাদ, পুঁজিবাদের সর্বোচ্চ স্তর”-এ তাত্ত্বিক রূপ ধারণ করেছিল। জাতীয়তার প্রশ্নে লেনিনবাদী পার্টির কর্মসূচির মূল দাবিটি ছিলো জাতিসমূহের পরিপূর্ণ সমতা, জাতির আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার এবং একক প্রলেতারিয় সংগঠনে সমস্ত জাতির শ্রমিকদের দৃঢ় সম্মিলন।

মূল নিবন্ধ: লেনিনবাদী দৃষ্টিতে পরাধীন নির্যাতিত জাতির স্বাধীনতা

সাম্রাজ্যবাদবিরোধী জাতীয় মুক্তিসংগ্রামগুলি ও উপনিবেশগুলির সাথে সাম্রাজ্যের সম্পর্কের বিষয়টিতে সোভিয়েত এবং চীনা কমিউনিস্ট পার্টিকে জড়িত করেছিল। হো চি মিন, ১৯৩০ সালে ভিয়েত-মিন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন এবং ১৯৪৫ সালের আগস্ট বিপ্লবের পরে ২ সেপ্টেম্বর, ১৯৪৫ সালে সাম্রাজ্যবাদী ফ্রান্সের বিরুদ্ধে ভিয়েতনামের স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন। উল্লেখ্য হো চি মিন ১৯২১ সালে ফরাসি কমিউনিস্ট পার্টির (পিসিএফ) প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন।

আইনি সমস্যা

আন্তর্জাতিক আইনে সাধারণত বলা হয় যে আত্ম-নিয়ন্ত্রণের আইনী অধিকার প্রাপ্ত ব্যক্তিরা জাতীয় স্বাধীনতার যুদ্ধের অধিকারী। পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্রগুলি এই যুদ্ধগুলিকে গৃহযুদ্ধ হিসাবে দেখাতে চায়, সাম্রাজ্যবাদ দ্বারা নিপীড়িত রাষ্ট্রগুলি এবং কমিউনিস্ট রাষ্ট্রগুলি সেসব যুদ্ধকে আন্তর্জাতিক যুদ্ধ হিসাবে দেখায়। শ্রেণিবিন্যাসের এই পার্থক্যটি জটিল পরিস্থিতিতে যুদ্ধের আইনগুলি প্রয়োগ করার উপযোগিতা নিয়ে বিভিন্ন ধারণা তৈরি করে। তবে, আজ সকল রাষ্ট্রের মধ্যে নীতিগতভাবে সাধারণ সম্মতি রয়েছে যে জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারকে হতাশ করার জন্য শক্তি প্রয়োগ অবৈধ।

নীতি এবং কৌশল

জাতীয় মুক্তির যুদ্ধগুলি সাধারণত গেরিলা যুদ্ধ ব্যবহার করে লড়াই করা হয়। এই কৌশলগুলির মূল উদ্দেশ্য হলো যেখানে গেরিলা-বিরোধী কার্যক্রম আছে সেখানে গেরিলা-বিরোধী বাহিনীর ব্যয় বৃদ্ধি করা। জাতীয় মুক্তিযুদ্ধগুলি সাধারণত প্রচুর পরিমাণে জনসমর্থনের উপর নির্ভর করে, সাধারণ নাগরিকরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সমর্থন সরবরাহ করে। অবশেষে, জাতীয় মুক্তির যুদ্ধগুলি প্রায়শই বড় শক্তিধর রাজনীতির বৃহত্তর অনুষঙ্গে সন্নিহিত থাকে এবং প্রায়শই বদলি [Proxy] যুদ্ধ হিসেবে বিবেচিত হয়।

জাতীয় মুক্তির যুদ্ধের এই নীতিগুলি ব্যাখ্যা করে যে সেগুলো বিদেশি শাসকদের বিরুদ্ধে কেন বাস্তবিকই সফল এবং দেশীয় শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে কেন যথেষ্ট ব্যর্থ। বিদেশী শাসনব্যবস্থাগুলির সাধারণত একটি সীমা থাকে যার বাইরে তারা যুদ্ধ করার চেয়ে বাড়ীতে যেতে অধিক পছন্দ করে। বিপরীতে একটি দেশীয় শাসনব্যবস্থার যাওয়ার কোনও জায়গা নেই, এবং বিকল্পের অভাবের কারণে আরও কঠোরভাবে লড়াই করবেন। তদুপরি, বিদেশী শাসনব্যবস্থাগুলিতে সাধারণত তুলনামূলকভাবে কম সক্রিয় সমর্থক থাকে, যাদেরকে প্রায়শই সহজেই চিহ্নিত করা যায়, ফলশ্রুতিতে গেরিলা সেনাবাহিনীকে আক্রমণ পরিচালনায় কাজে লাগানো যায়। বিপরীতে, দেশীয় সরকারগুলিতে প্রায়শই অনেক বেশি জনপ্রিয় সমর্থন পাওয়া যায় এবং তাদের সমর্থকরা সহজে স্বীকৃত হয় না, ফলশ্রুতিতে গেরিলা অপারেশন পরিচালনা করা আরও শক্ত করে তোলে।

আরো পড়ুন:  বাঙালির যুদ্ধচিন্তা হচ্ছে বঙ্গ অঞ্চলের জনগণের নিজ সম্পদ রক্ষার সাধারণ লড়াই

বিউপনিবেশবাদী আন্দোলনের সময়

আজ্ঞামূলক প্যালেস্টাইনে ইহুদি সমুত্থান (১৯৪৪-১৯৪৭), ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতা যুদ্ধ (১৯৪৫-১৯৪৯) এর পরে ইরিয়ান জায়ার স্বাধীনতা (১৯৬০-১৯৬২), প্রথম ইন্দোচিনা যুদ্ধ (১৯৪৬-১৯৫৪), ভিয়েতনাম যুদ্ধ (১৯৫৯-৭৫), এবং আলজেরীয় স্বাধীনতা যুদ্ধ (১৯৫৪-৬২)– এই যুদ্ধগুলি সংঘাতের বিদ্রোহী পক্ষগুলির দ্বারা জাতীয় মুক্তিযুদ্ধ হিসাবে বিবেচিত হয়ে থাকে। বর্ণবাদী শাসনের বিরুদ্ধে আফ্রিকান জাতীয় কংগ্রেসের (এএনসি) লড়াই জাতীয় মুক্তিযুদ্ধের আরেকটি উদাহরণ। এসব বিদ্রোহের বেশিরভাগই সোভিয়েত ইউনিয়ন দ্বারা সমর্থিত হয়েছিল এবং সোভিয়েত ইউনিয়ন একটি সাম্রাজ্যবাদবিরোধী শক্তি বলে দাবি করেছিল, যদিও এই যুক্তি দেয়া হতো যে খোদ সোভিয়েত ইউনিয়নও উপনিবেশবাদের চর্চা করেছিল। ১৯১৭ সালের অক্টোবরের বিপ্লব এবং পরবর্তী রাশিয়ান গৃহযুদ্ধের পর থেকে, কমিউনিস্টের বিপ্লবী লক্ষ্যগুলির অনেকগুলি উপনিবেশবাদবিরোধী নেতারা ভাগ করে নিয়েছিল, এভাবে উপনিবেশবাদবিরোধী শক্তি এবং মার্কসবাদের মধ্যে উদ্দেশ্যগত জোটকে ব্যাখ্যা করেছিল।

১৯৬১ সালের জানুয়ারিতে, টঙ্কিন উপসাগরের ঘটনার তিন বছর আগে যা ভিয়েতনাম যুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যুক্ত হওয়ার বৃদ্ধিকে চিহ্নিত করে, তখন থেকে সোভিয়েত ইউনিয়নের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নিকিতা ক্রুশ্চেভ বিশ্বজুড়ে “জাতীয় মুক্তিযুদ্ধের” সমর্থনের প্রতি প্রতিশ্রুতি দেবেন। একই দশকে, ফিদেল কাস্ত্রোর নেতৃত্বে কিউবা অ্যাঙ্গোলা এবং মোজাম্বিকের জাতীয় মুক্তি আন্দোলনকে সমর্থন করবে। পর্তুগিজ উপনিবেশিক যুদ্ধ অবশেষে এপ্রিল কার্নেশন বিপ্লবের পরে ১৯৭৫ সালে অ্যাঙ্গোলা, মোজাম্বিক এবং গিনি-বিসাউকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসাবে স্বীকৃতি দেয়।

চলমান যেসব যুদ্ধ জাতীয় মুক্তি সংঘাত হিসাবে সংজ্ঞায়িত হয়েছে

প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও) একটি “অফিসিয়াল” জাতীয় মুক্তি আন্দোলন, যার অর্থ হচ্ছে পিএলও আফ্রিকার ঐক্য সংস্থা (ওএইউ) এবং জাতিসংঘের কাছ থেকে সরকারীভাবে স্বীকৃত। অনেক কুর্দি বিশ্বাস করে যে কুর্দি-তুর্কি সংঘাত তুরস্কের কুর্দি জনগণের জাতীয় মুক্তি যুদ্ধ । কিছু ইরাকি সমুত্থিত গোষ্ঠী এবং কিছু রাজনৈতিক দল বিশ্বাস করেন যে ইরাক যুদ্ধ মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের বিরুদ্ধে জাতীয় মুক্তি যুদ্ধ ছিল।

তথ্যসূত্র:

১. Rubinstein, Alvin Z. (1990). Moscow’s Third World Strategy. Princeton University Press. p. 80. ISBN0-691-07790-8.
২. Little, Wendell E. (1980). “Wars of National Liberation—Insurgency”. Air University Review (September–October). Retrieved 2010-07-16.

Anup Sadi
অনুপ সাদির প্রথম কবিতার বই “পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি” প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে। তাঁর মোট প্রকাশিত গ্রন্থ ১০টি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশিত তাঁর “সমাজতন্ত্র” ও “মার্কসবাদ” গ্রন্থ দুটি পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। ২০১০ সালে সম্পাদনা করেন “বাঙালির গণতান্ত্রিক চিন্তাধারা” নামের একটি প্রবন্ধগ্রন্থ। জন্ম ১৬ জুন, ১৯৭৭। তিনি লেখাপড়া করেছেন ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।

Leave a Reply

Top