You are here
Home > Posts tagged "পুঁজি"

লেনিনবাদী দৃষ্টিতে সংশোধনবাদ কী এবং কেন প্রতিরোধ করতে হবে

সংশোধনবাদ বা শোধনবাদ (ইংরেজি: Revisionism) বলতে বুঝতে হবে কোনো মতাদর্শকে বা তত্ত্বকে বিজ্ঞানের মতো অনুধাবন ও অনুশীলন না করে তাকে স্বতন্ত্রভাবে পুনঃপরীক্ষা করা। সংশোধনবাদ হলো মার্কসবাদের সংশোধিত তত্ত্ব। অর্থাৎ সংশোধনবাদ হলো মার্কসবাদের পরিপূর্ণভাবে বিকৃতি, এটি প্রলেতারিয়েতের বৈপ্লবিক সংগ্রাম বিরোধি, প্রলেতারিয়েতের একনায়কত্বের বিরোধী, শ্রেণিসংগ্রাম বিরোধি, বুর্জোয়া শ্রেণির দলগুলোর বিপরীতে শ্রমিক শ্রেণির

মেহনতি ও শোষিত মানুষের অধিকার ঘোষণা — ভি আই লেনিন

সংবিধান সভার সিদ্ধান্ত:[১] ১. ক) রাশিয়া এতদ্বারা শ্রমিক, সৈনিক এবং কৃষক প্রতিনিধিদের সোভিয়েতসমূহের প্রজাতন্ত্র বলে ঘোষিত হলো। কেন্দ্রীয় আর স্থানিক সমস্ত ক্ষমতা ন্যস্ত হলো এইসব সোভিয়েতের হাতে। খ) স্বাধীন জাতিসমূহের অবাধ সম্মিলনের নীতি অনুসারে সোভিয়েত জাতীয় প্রজাতন্ত্রগুলির ফেডারেশন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হলো রাশিয়া সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র। ২. মানুষের উপর মানুষের যাবতীয় শোষণ লোপ করা, সমাজের

হুমায়ূন আহমেদঃ লুটপাটের অর্থনীতির লাঠিয়াল

১৯৭১ পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের পাঁচ প্রতিক্রিয়াশীল জনপ্রিয় লেখকের একজন হুমায়ূন আহমেদ (১৯৪৮-২০১২)। হিমু, মিসির আলীর মতো দায়িত্ব ও কাণ্ডজ্ঞানহীন চরিত্র সৃষ্টি করে তিনি লক্ষ লক্ষ তারুণ্যকে পথভ্রষ্ট করেছিলেন। বাংলাদেশের এক বিশাল সংখ্যার তারুণ্যকে অরাজনৈতিক, দায়িত্বহীন, কাণ্ডজ্ঞানহীন, অবৈজ্ঞানিক, যৌনতাগ্রস্ত, হতাশাগ্রস্ত, অবসাদগ্রস্ত, উন্নাসিক, আত্মভোলা, নিস্ক্রিয়, ব্যধিগ্রস্ত, কর্মবিমুখ ও প্রতিক্রিয়াশীল করতে হুমায়ুন আহমেদের

কবিতা জানাতে চায়

কবিতা নিরবে পাড়ি দেয় এক যুগ থেকে অন্য যুগে, সে ছবি আঁকে, সিন্দুকে বন্দি থাকা ইতিহাসের কষ্ট নিয়ে, সে প্রশ্ন করে, প্রতিবাদ জানায় সময়ের দাবি তুলে ধরে।   একটি কবিতা জানাতে চায় কৃষকের ন্যায্য পাওনার ভাষা, সভ্যতা গড়ে যে শ্রমিক তার কতটুকু মজুরি? উত্তপ্ত পথকে জুতা আর প্রখর তাপকে ছাতা বানায় যে বৃদ্ধ হকার;— পুঁজির বোঝা ঠেলে

কার্ল মার্কসের পুঁজি গ্রন্থ প্রসঙ্গে একটি আলোচনা

পুঁজি বা ডাস কাপিটাল (জার্মান Das Kapital; ইংরেজি Capital; বাংলা পুঁজি) কার্ল মার্কসের লেখা পুঁজিবাদের সমালোচনামূলক একটি বই। এই বই সমাজ প্রগতি সম্বন্ধে তৎকালীন প্রচলিত অভিমতে বিপ্লব ঘটিয়েছিল এবং অর্থনীতিকে এক বিজ্ঞানসম্মত ভিত্তির উপরে স্থাপন করেছিল। পুঁজিবাদের অর্থনৈতিক সম্পর্কগুলো, তার দুই বিপরীত প্রধান শ্রেণি প্রলেতারিয়েত ও বুর্জোয়ার অভ্যন্তরীণ বৈরিতা, পুঁজিপতিদের স্বার্থ

পুঁজির উদ্ভব গ্রন্থের সূচিপত্র

পুঁজির উদ্ভব --- কার্ল মার্কস* ১. আদি সঞ্চয়ের রহস্য ২. ভূমি থেকে কৃষিজীবী জনগণের উচ্ছেদ ৩. পনের শতকের শেষ থেকে উৎখাতদের বিরদ্ধে রক্তাক্ত বিধান। পার্লামেণ্টের আইনে মজুরির অবনমন ৪. পুঁজিবাদী খামারীর উদ্ভব ৫. শিল্পের ওপর কৃষি বিপ্লবের প্রতিক্রিয়া। শিল্প পুঁজির জন্য ঘরোয়া বাজার সৃষ্টি ৬. শিল্প পুঁজিপতির উদ্ভব ৭. পুঁজিবাদী সঞ্চয়ের ঐতিহাসিক প্রবণতা ৮. উপনিবেশনের আধুনিক

কমিউনিস্ট পার্টির ইশতেহার, রক্ষণশীল অথবা বুর্জোয়া সমাজতন্ত্র

--- কার্ল মার্কস ও ফ্রিডরিখ এঙ্গেলস ৩ সমাজতন্ত্রী ও কমিউনিস্ট সাহিত্য ২. রক্ষণশীল অথবা বুর্জেয়া সমাজতন্ত্র বুর্জোয়া সমাজের অস্তিত্বটা ক্রমাগত বজায় রাখার উদ্দেশ্যেই বুর্জোয়া শ্রেণির একাংশ সামাজিক অভাব-অভিযোগের প্রতিকার চায় । এই অংশের মধ্যে পড়ে অর্থনীতিবিদেরা, লোকহিত ব্ৰতীরা, মানবতাবাদীরা, শ্রমিক শ্রেণীর অবস্থার উন্নয়নকারীরা, দুঃস্থ-ত্ৰাণ সংগঠকেরা, পশুক্লেশ নিবারণী সভার সদস্যরা, মাদকতা নিবারণের গোঁড়া প্রচারকেরা, সম্ভবপর সবরকম

কমিউনিস্ট পার্টির ইশতেহার, প্রলেতারিয়েত ও কমিউনিস্টগণ

--- কার্ল মার্কস ও ফ্রিডরিখ এঙ্গেলস দ্বিতীয় অংশ প্রথম অংশ পড়ুন এই লিংক থেকে পরিবারের উচ্ছেদ! উগ্র চরমপন্থীরা পর্যন্ত কমিউনিস্টদের এই গৰ্হিত প্ৰস্তাবে ক্ষেপে ওঠে। আধুনিক পরিবার অর্থাৎ বুর্জোয়া পরিবারের প্রতিষ্ঠা কোন ভিত্তির উপর? সে ভিত্তি হলো পুঁজি, ব্যক্তিগত লাভ। এই পরিবারের পূর্ণ বিকশিত রূপটি শুধু বুর্জোয়া শ্রেণির মধ্যেই আবদ্ধ। কিন্তু এই অবস্থারই অনুপূরণ

কার্ল মার্কসের জীবন — ভি আই লেনিন

নতুন পঞ্জিকা অনুসারে কার্ল মার্কসের জন্ম হয় ১৮১৮ সালে ৫ মে ত্রিয়ের শহরে (প্রুশিয়ার রাইন অঞ্চলে)। তার পিতা ছিলেন আইনজীবী, ধর্মে ইহুদি, ১৮২৪ সালে তিনি প্রটেস্টান্ট ধর্ম গ্রহণ করেন। পরিবারটি ছিল সচ্ছল ও সংস্কৃতিবান, কিন্তু বিপ্লবী নয়। ত্রিয়েরের স্কুল থেকে পাশ করে মার্কস প্রথমে বন এবং পরে বার্লিন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি

আদি সঞ্চয়ের রহস্য — কার্ল মার্কস

আমরা দেখেছি টাকা পরিবর্তিত হয় পুঁজিতে; পুঁজি মারফত উদ্বৃত্ত মূল্য গড়ে ওঠে, এবং উদ্বৃত্ত মূল্য থেকে আসে আরো পুঁজি। কিন্তু পুঁজি সঞ্চয় মানে আগে ধরে নিতে হয় উদ্বৃত্ত মূল্য, উদ্বৃত্ত মূল্যের ক্ষেত্রে আগে পুঁজিবাদী উৎপাদন, পুঁজিবাদী উৎপাদনের ক্ষেত্রে আবার আগে পণ্য উৎপাদন-কর্তাদের হাতে যথেস্ট পরিমাণ পুঁজি ও শ্রমশক্তির অস্তিত্ব ধরে

Top