আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > Posts tagged "ভারতীয় বিপ্লবী"

কল্যাণী দাস ছিলেন স্বাধীনতা আন্দোলনের যুগান্তর দলের বিপ্লবী

১৯০৭ সালের ২৮শে মে তারিখে কল্যাণী দাস জন্মগ্রহণ করেছিলেন কটকে। তার পিতা বেণীমাধব দাস, মাতা সবল দাস, ছোট ভগ্নী বীণা দাস। তাদের পিতৃভূমি ছিলও চট্টগ্রাম। দুই বোন কল্যাণী ও বীণার জীবনে গভীর প্রভাব ছিল তাঁদের পিতামাতার এবং বড়মামা অধ্যাপক বিনয়েন্দ্রনাথ সেনেব। পিতামাতার নিকট থেকেই শুনতেন তার বড় মামার মহৎ চরিত্রকথা। পিতার কাছ থেকে কল্যাণী ও বীণা ছোটবেলায় বসে বসে শুনতেন সমাজ বিপ্লবীদেব জীবনী। একটা আদর্শের জন্য মানুষ যে কত বড় ত্যাগ স্বীকার করতে পারে সেসব কথা শুনে শুনে বিপ্লবী রাজনীতির দিকে আকৃষ্ট হন। আরো পড়ুন

বিনোদচন্দ্র চক্রবর্তী ছিলেন ব্রিটিশবিরোধী অগ্নিযুগের বিপ্লবী

বিপ্লবী বিনোদ চক্রবর্তী

বিনোদচন্দ্র চক্রবর্তী বা বিনোদ চক্রবর্তী (ইংরেজি: Binodchandra Chakrabarty) (১৯০৯ - ২৫ এপ্রিল, ১৯৭৩) ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন অন্যতম ব্যক্তিত্ব এবং অগ্নিযুগের বিপ্লবী। তিনি ময়মনসিংহের বিপ্লবী সংগঠন সাধনা সমিতির বিশিষ্ট কর্মী ছিলেন। বিনোদ চক্রবর্তী দীর্ঘ ১৬ বছর সন্ত্রাসবাদী ব্রিটিশ রাজের কারাদণ্ড ভোগ করেন এবং জনগণের মুক্তির

নরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষ ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের অগ্নিযুগের বিপ্লবী

নরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষ (জন্ম : ১৪ এপ্রিল, ১৯১২ – মৃত্যু ৪ আগস্ট ১৯৯৪) ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নিযুগের বিপ্লবী। বিপ্লবী মৃণাল কান্তি ঘোষ চৌধুরীর সংস্পর্শে যুগান্তর দলে যোগ দেন। বিপ্লবী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অপরাধে তিনি বহুবার গ্রেপ্তার হন, কারাবরণ করেন এবং শাস্তি ভোগ করেন। অস্ত্রসহ পলাতক জীবন কাটিয়েছেন বহু বছর। আরো পড়ুন

স্বদেশরঞ্জন মুখোপাধ্যায় ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের অগ্নিযুগের বিপ্লবী

স্বদেশরঞ্জন মুখোপাধ্যায় (জন্ম : ১৯২৪ – মৃত্যু ২০০৩) ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নিযুগের বিপ্লবী। ১৯৪২ সালের আগস্ট আন্দোলনে তিনি সরাসরি যোগদান করেন। সে সময় পুলিসের গুলি তাঁর পায়ে লাগে। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে তিনি ছয় মাস বন্দি ছিলেন। আরো পড়ুন

ইন্দুসুধা ঘোষ ছিলেন স্বাধীনতা আন্দোলনের যুগান্তর দলের বিপ্লবী

ইন্দুসুধা ঘোষ ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব, নারী সেবক ও অগ্নিযুগের বিপ্লবী। তিনি যুগান্তর দলের বিপ্লবী ছিলেন এবং ব্রিটিশের বিরুদ্ধে সংগ্রামে নেতৃত্ব দেবার কারণে বেশ কিছু বছর জেলে অতিবাহিত করেন। তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৯০৫ সালে ময়মনসিংহে। বাবার বাড়ি ঢাকা জেলার বজ্রযোগিনীতে। আরো পড়ুন

চারুশীলা দেবী ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের বিপ্লবী নেত্রী

চারুশীলা দেবী ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নিযুগের বিপ্লবী। তিনি ১৯৩২ সালের আইন অমান্য আন্দোলনে যোগদান করেন এবং দেড়বছরের কারাদণ্ড লাভ করেন। তিনি ১৮৮৩ সালে মেদিনীপুরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি মেদিনীপুর স্থানীয় ছিলেন। পিতার নাম রাখালচন্দ্র অধিকারী, মা কুমুদিনী দেবী। আরো পড়ুন

ইন্দুমতী সিংহ চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহের নেত্রী

ইন্দুমতী সিংহ ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নিযুগের বিপ্লবী। চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠনের অন্যতম বিপ্লবী নেতা অনন্ত সিংহের বড় বোন ইন্দুমতী সিংহ। তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৮৯৮ সালে। তাদের পিতা গোলাপ সিংহ। তাঁদের পূর্বপুরুষরা রাজপুত ছিলেন কিন্তু ইন্দুমতী মধ্যে বংশের কোনো অহংকার ছিলো না। আরো পড়ুন

ননীবালা দেবী ছিলেন উপনিবেশবাদ বিরোধী ভারতীয় নারী বিপ্লবী

ননীবালা দেবী ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নিযুগের বিপ্লবী। তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৮৮৮ সালে হাওড়া জেলার বালিতে। পিতার নাম সূর্যকান্ত ব্যানার্জী, মা গিরিবালা দেবী। এগারো বছর বয়সে বিবাহের পর ষোলো বছর বয়সে তিনি বিধবা হন এবং বাবার কাছেই ফিরে আসেন। আরো পড়ুন

ক্ষীরোদাসুন্দরী চৌধুরী ছিলেন বাংলার উপনিবেশবাদ বিরোধী নারী বিপ্লবী

ক্ষীরোদাসুন্দরী চৌধুরী ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন ব্যক্তিত্ব ও অগ্নিযুগের বিপ্লবী। তিনি ১৮৮৩ সালে ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইলের সুন্দাইল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক ভূমিও সেখানেই। পিতার নাম শিবসুন্দর রায় ও মাতা দুর্গাসুন্দরী দেবী। তিনি ছিলেন বিপ্লবীদের মা। আরো পড়ুন

Top
You cannot copy content of this page