You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > Posts tagged "বুদ্ধিজীবী"

মনীষী প্রসঙ্গে

মনীষী বা বুদ্ধিজীবী (ইংরেজি: Intelligentsia) হচ্ছে জটিল মানসিক শ্রমের সাথে জড়িত শিক্ষিত ব্যক্তিদের একটি স্ট্যাটাস ক্লাস যারা তাদের সমাজের সংস্কৃতি ও রাজনীতিকে সমালোচনা, নির্দেশনা ও নেতৃত্বের মাধ্যমে গঠন করে। আবেগের দিক থেকে বুদ্ধিজীবি শব্দ দ্বার চিন্তাশীল, এমনকি বিবেকবান, প্রগতিশীল একটি মহলকে বুঝান হয়। বাংলাদেশের সামাজিক রাজনীতির ইতিহাসের পটভূমিতে শিক্ষিত

বুদ্ধ্যঙ্ক প্রসঙ্গে

বুদ্ধ্যঙ্ক বা আইকিউ (ইংরেজি: Intelligence quotient বা IQ) হচ্ছে মানবিক বুদ্ধিমত্তা মূল্যায়নের জন্য পরিকল্পিত বিভিন্ন মানসম্মত পরীক্ষা থেকে প্রাপ্ত মোট ফল। ব্যক্তির সঙ্গে ব্যক্তির মানসিক ক্ষমতা বা বুদ্ধির পার্থক্য নির্ধারণ করার জন্য ঊনবিংশ শতক থেকেই ফেকনার, গালটন, হেলমজ প্রমুখ মনোবিজ্ঞানীরা বিভিন্ন পরীক্ষা বা অভিক্রিয়ার চেষ্টা করতে শুরু করেন। গোড়ার দিকে

বুদ্ধিবাদ প্রসঙ্গে

বুদ্ধিবাদ (ইংরেজি: Intellectualism) দ্বারা বুদ্ধির ব্যবহার, বিকাশ, এবং ব্যায়ামকে বোঝানো হয়। বুদ্ধিবাদ বলতে কখনো কখনো মনীষী হওয়ার অভ্যাস এবং মনের জীবনকে বোঝায়। জ্ঞানের ক্ষেত্রে বুদ্ধির ভূমিকা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু মানুষের বুদ্ধি তার দেহ এবং বাস্তব পরিবেশ-বিচ্ছিন্ন কোনো স্বাধীন শক্তি নয়। বাস্তব পরিবেশের সঙ্গে ব্যক্তিক প্রত্যক্ষ সম্পর্কের মাধ্যমে ব্যক্তির মানসিক বা বুদ্ধিগত ক্ষমতার জন্ম হয়েছে এবং তার বিকাশ ঘটেছে। বুদ্ধির এই আপেক্ষিক বিচার এবং তার দ্বন্দ্বমূলক বৈশিষ্ট্যের স্বীকৃতি সর্বযুগে সমান নয়। আরো পড়ুন

‘চীনের শ্রমিক’ পত্রিকার পরিচয় প্রসঙ্গে — মাও সেতুং

৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪০ ‘চীনের শ্রমিক’[১] পত্রিকার প্রকাশ একটা প্রয়োজন মেটাল। নিজের রাজনৈতিক পার্টি, চীনের কমিউনিস্ট পার্টি, কর্তৃক পরিচালিত হয়ে চীনের শ্রমিকশ্রেণি গত কুড়ি বছর ধরে বীরত্বপূর্ণ সংগ্রাম পরিচালনা করে এসেছেন, জনগণের মধ্যেকার রাজনৈতিকভাবে সবচেয়ে সজাগ অংশে পরিণত হয়েছেন, এবং হয়ে উঠেছেন চীন বিপ্লবের নেতা। সাম্রাজ্যবাদ ও সামন্তবাদের বিরুদ্ধে কৃষক জনসাধারণ এবং

লেনিনবাদী দৃষ্টিতে সংস্কৃতি ও সাংস্কৃতিক বিপ্লব

মানুষেরই শুধু সংস্কৃতি আছে যা অন্য প্রাণীর নেই; আর এই সংস্কৃতিই তার জীবনকে উন্নত করে। মানুষের ইতিহাস অন্য প্রাণী থেকে পৃথক হয়েছে তার সংস্কৃতির কারণে। সংস্কৃতির শক্তিতে মানুষ বেঁচে থাকে, সংস্কৃতির সাহায্যে সে প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করে, প্রকৃতিকে কাজে লাগায়, পরিবেশকে উন্নত করে। সংস্কৃতি মানুষের জীবন, পরিবেশ, কর্ম, উদ্দেশ্য ও

সমাজতান্ত্রিক সমাজ গড়তে সমাজতান্ত্রিক শিক্ষার গুরুত্ব

বিশ শতকের প্রথমার্ধে জনগণকে সুশিক্ষিত করার কথা বলা হতো; পাকিস্তানকালিন সময়েও জনগণকে সুশিক্ষা দেয়ার কথা বলা হয়েছে; কিন্তু বাংলাদেশ হবার পরে সুশিক্ষা বা শিক্ষার পরিবর্তে স্বাক্ষরতা শব্দটি চালু করা হয়। একবিংশ শতাব্দীর শূন্য দশকের বাংলাদেশে শিক্ষা সংক্রান্ত আলাপ-আলোচনা, লেখালেখি, চিন্তার প্রকাশ নেই বললেই চলে। এই সময়ে দেশবাসির মনে শিক্ষার গুরুত্ব

Top