Main Menu

সাহিত্য প্রসঙ্গে লেনিন

 
 

বড়-রুশীদের জাতীয় গর্ববোধ — ভি আই লেনিন

জাতীয়তা নিয়ে, পিতৃভূমি নিয়ে আজকাল কতই না আলাপ আলোচনা, কতো তর্কবিতর্ক, চেচামেচি! ইংলণ্ডের উদারনীতিক ও র‍্যাডিকাল মন্ত্রীরা, ফ্রান্সের অসংখ্য ‘অগ্রণী’ সাংবাদিক (প্রতিক্রিয়াশীল সাংবাদিকদের সঙ্গে দেখা যাচ্ছে তাদের পরিপূর্ণ সায়), রাশিয়ার গাদাগাদা সরকারী, কাদেতপন্থী ও প্রগতিশীল লিখিয়ে (কিছু-কিছু, নারোদনিক ও ‘মার্কসবাদী’ পর্যন্ত) —হাজারটা রকমারি সরে ‘স্বদেশের মুক্তি ও স্বাধীনতা নিয়ে, জাতীয় স্বয়ম্ভরতার মহা নীতি নিয়ে প্রশস্তি গাইছে সকলেই। তার মধ্যে বোঝা মুশকিল কোথায় শেষ হচ্ছে জল্লাদ নিকোলাই রমানভের বা নিগ্রো ও ভারতীয় দলনকারীর ভাড়াটে চারণদের কণ্ঠ এবং কোথায় শুরু হচ্ছে অকাট কূপমণ্ডকের গলা, যে হয় নির্বুদ্ধিতায়, নয় মেরুদণ্ডহীনতায় গা ভাসিয়েছে ‘স্রোতে’।Read More


আমাদের সংবাদপত্রগুলির চরিত্র — ভি আই লেনিন

বড় বেশি জায়গা দেওয়া হচ্ছে সাবেকী বিষয়বস্তু নিয়ে রাজনীতিক আলোড়নের জন্যে — রাজনীতিক-চমকপ্রদ উচ্চরবের জন্যে, আর নতুন জীবন গড়ার বিষয়ে, সে সম্বন্ধে তথ্যাদির জন্যে জায়গা দেওয়া হচ্ছে বড্ড কম। কেন, বুর্জোয়াদের পা-চাটা মেনশেভিকদের জঘন্য বিশ্বাসঘাতকতা, পুঁজির পবিত্র অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্যে ইং-জাপানী আক্রমণ অভিযান, জার্মানির বিরুদ্ধে নখ-দন্তবিকাশ করছে মার্কিন বহু কোটিপতিরা, ইত্যাদি, ইত্যাদি সহজ-সরল, সাধারণ্যে জ্ঞাত, স্পষ্ট প্রসঙ্গ, যেগুলো সম্বন্ধে লোকে ইতিমধ্যে একরকম ওয়াকিবহাল, এমনসব বিষয়ে ২০০-৪০০ লাইন রচনা করার বদলে আমরা বিশ কিংবা এমনকি দশ লাইনই লিখি নে কেন? এইসব জিনিস সম্বন্ধে আমরা নিশ্চয়ই লিখব এবং এক্ষেত্রের প্রত্যেকটা নতুন তথ্যেরRead More


রাশিয়ায় শ্রমিক পত্র-পত্রিকার ইতিহাস থেকে — ভি আই লেনিন

[কয়েকটা অংশ] রাশিয়ায় শ্রমিক পত্র-পত্রিকার ইতিহাস অবিচ্ছেদ্যভাবেই গণতান্ত্রিক আর সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। তাই, মুক্তির জন্যে আন্দোলনের প্রধান পর্বগুলোকে জানলে একমাত্র তবেই বোঝা সম্ভব শ্রমিক পত্র-পত্রিকার প্রস্তুতি আর উদ্ভব কেনো ঘটল একটা বিশেষ ধারায়, এবং অন্য কোনো ধারায় নয়। রাশিয়ায় মুক্তি-আন্দোলন তিনটে প্রধান পর্বের ভিতর দিয়ে পার হয়েছে, সেগুলো রুশ সমাজের তিনটে প্রধান শ্রেণীর প্রতিষঙ্গী, এইসব শ্রেণী তাদের ছাপ ফেলে দিয়েছে এই আন্দোলনের উপর : ১) অভিজাত সম্প্রদায়ের কালপর্যায়, মোটামুটি ১৮২৫ থেকে ১৮৬১ সাল; ২) রাজনোচিনেৎস বা বুর্জোয়া-গণতান্ত্রিক কালপর্যায়, মোটামুটি ১৮৬১ থেকে ১৮৯৫ সাল; ৩) প্রলেতারীয় কালপর্যায়, ১৮৯৫ সাল থেকেRead More


আবশ্যিক রাষ্ট্রভাষার প্রয়োজন আছে কি? — ভি আই লেনিন

প্রতিক্রিয়াশীলদের থেকে উদারপন্থীদের পার্থক্য এই যে, স্থানীয় ভাষায় শিক্ষণের অধিকার তারা মানে — অন্তত প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। কিন্তু, আবশ্যিক রাষ্ট্রভাষা যে প্রয়োজন, এবিষয়ে তারা প্রতিক্রিয়াশীলদের সঙ্গে সম্পূর্ণত একমত। আবশ্যিক রাষ্ট্রভাষার অর্থ কী? কার্যক্ষেত্রে এর অর্থ হলো, রাশিয়ার জনসমষ্টির যারা সংখ্যালঘু অংশ সেই বড়-রুশীদের ভাষা চাপানো হবে রাশিয়ার জনসমষ্টির বাদবাকি সমস্ত মানুষের উপর। প্রত্যেকটা বিদ্যালয়ে রাষ্ট্রভাষা শিক্ষণ হবেই বাধ্যতামূলক। সমস্ত সরকারী চিঠিপত্রাদি অবশ্যই চালাতে হবে রাষ্ট্রভাষায় — স্থানীয় জনসাধারণের ভাষায় নয়। যেসব পার্টি আবশ্যিক রাষ্ট্রভাষার ওকালতি করে তারা এর আবশ্যকতার ন্যায্যতা প্রতিপন্ন করে কোন যুক্তিতে? কৃষ্ণ-শতকীদের ‘যুক্তিগুলো’ অবশ্য সংক্ষিপ্ত। তারা বলে: সমস্তRead More


ইউজিন পতিয়ের, তাঁর মৃত্যুর ২৫তম বার্ষিকী

বিখ্যাত প্রলেতারীয় গান ‘আন্তর্জাতিকের’ (ওঠো জাগো অনশনবন্দী’, ইত্যাদি) রচয়িতা ফরাসী শ্রমিক-কবি ইউজিন পতিয়েরের মত্যুর পর থেকে পঁচিশ বছর পুরেছিল গত বছর ১৯১২ সালের নভেম্বর মাসে। সমস্ত ইউরোপীয় এবং অন্যান্য ভাষায় গানটির তরজমা হয়েছে। কোনো শ্রেণীসচেতন শ্রমিক যেকোনো দেশে গিয়ে পড়ুন, নিয়তি তাকে যেখানেই ফেলুক না কেন, নিজেকে তার যতই ভিনদেশী মনে হোক না কেন, ভাষা-ছাড়া, বন্ধুবান্ধব-ছাড়া, স্বদেশভূমি থেকে বহু, দূরে – তিনি কমরেড আর বন্ধুবান্ধব পেয়ে যেতে পারেন ‘আন্তর্জাতিকের’ সুপরিচিত সুর দিয়ে। সমস্ত দেশের শ্রমিক তাদের সবচেয়ে আগুয়ান যোদ্ধার, প্রলেতারিয়ান কবির গানটিকে গ্রহণ করেছে, সেটাকে করে তুলেছে প্রলেতারিয়েতের পৃথিবী জোড়াRead More


ল. ন. তলস্তয় এবং সমসাময়িক শ্রমিক আন্দোলন

রাশিয়ার প্রায় সমস্ত বড় শহরের শ্রমিক ল. ন. তলস্তয়ের জীবনাবসান প্রসঙ্গে ইতোমধ্যে প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছে এবং কোনো-না-কোনোভাবে এই লেখকের প্রতি মনোভাব জানিয়েছে, এই যে-লেখক এমন কতকগুলি শিল্পকর্ম সৃষ্টি করেছেন যাতে তাঁর স্থান হয়েছে পৃথিবীর মহালেখকদের মধ্যে, তারা মনোভাব জানিয়েছে এই চিন্তাবীরের প্রতি, যিনি সমসাময়িক রাজনীতিক ব্যবস্থা আর সমাজব্যবস্থার বুনিয়াদী উপাদানগুলো সম্বন্ধে বিভিন্ন প্রশ্ন উত্থাপন করেছেন বিপুলে ক্ষমতা, আত্মপ্রত্যয় আর আন্তরিকতার সঙ্গে। মোটের উপর, তৃতীয় দুমায় [১] শ্রমিক প্রতিনিধিদের পাঠানো তারবার্তায় এই মনোভাব প্রকাশিত হয়েছে, সেটা সংবাদপত্রগুলিতে ছাপা হয়েছে। ল. তলস্তয়ের সাহিত্যিক কর্মজীবন শুরু করার সময়ে ভূমিদাসপ্রথা তখনও ছিলো, কিন্তু স্পষ্টতইRead More


লেভ তলস্তয় – রুশ বিপ্লবের দর্পণ

মহাশিল্পী যে-বিপ্লবকে[১] স্পষ্টতই বুঝতে পারেন নি, যার থেকে তিনি স্পষ্টতই রয়েছেন ফারাকে, তারই সঙ্গে তাঁকে এক করে দেখানটাকে আপাতদৃষ্টিতে অদ্ভুত এবং কৃত্রিম মনে হতে পারে। যে-দর্পণ সবকিছুকে সঠিকভাবে প্রতিফলিত করে না সেটাকে তো দর্পণ বলা শক্ত। আমাদের বিপ্লবটা কিন্তু অত্যন্ত জটিল জিনিস। এই বিপ্লব যারা সরাসরি ঘটাচ্ছে, এতে অংশগ্রহণ করছে, সেই জনসমূহের মধ্যেও বহু সামাজিক অঙ্গ উপাদান আছে যারা স্পষ্টতই বুঝতে পারে নি কী ঘটছে, ঘটনাবলির গতি যেসব বাস্তব ইতিহাস-নির্দিষ্ট কাজ সামনে তুলে ধরেছে সেগুলো থেকে তারাও স্পষ্টতই রয়েছে ফারাকে। কিন্তু, যাঁর কথা বলা হচ্ছে যথার্থই মহাশিল্পী হলে তিনি নিজRead More


ল. ন. তলস্তয় — ভি আই লেনিন

লেভ তলস্তয় মারা গেছেন। শিল্পী হিসেবে তাঁর বিশ্বজনীন তাৎপর্যে এবং চিন্তাবীর আর প্রচারক হিসেবে তাঁর সর্বজনীন খ্যাতিতে – এর প্রত্যেকটার নিজস্ব কায়দায় — প্রতিফলিত হয়েছে রুশ বিপ্লবের বিশ্বজনীন তাৎপর্য। মহাশিল্পী হিসেবে তলস্তয় দেখা দেবার সময়ে তখনও দেশে ভূমিদাসপ্রথার আধিপত্য ছিল। অর্ধ-শতকের বেশি কালের সাহিত্যিক ক্রিয়াকলাপের মধ্যে সৃষ্টি-করা একগুচ্ছ মহান রচনায় তিনি চিত্রিত করেছেন প্রধানত পুরনো প্রাকবিপ্লব রাশিয়াকে, যে-রাশিয়া ১৮৬১ সালের [১] পরেও রয়ে গিয়েছিল আধা-ভূমিদাসপ্রথার অবস্থায় – জমিদার আর কৃষকের গ্রাম-রাশিয়া। রাশিয়ার ইতিহাসের এই কালপর্যায়টা চিত্রিত করার মধ্যে তলস্তয় এতসব বিরাট সমস্যা তুলে ধরতে পেরেছেন, আর সক্ষম হয়েছেন শিল্পক্ষমতার এমনRead More


প্রত্যাহারপন্থার অনুগামী আর রক্ষকদের ‘কর্মপন্থা’ — ভি আই লেনিন

একজন প্রাবন্ধিকের মন্তব্যলিপি [থেকে] প্রত্যাহারপন্থার অনুগামী আর রক্ষকদের ‘কর্মপন্থা’ বর্তমান আন্তঃবিপ্লব কালপর্যায়টাকে নিছক আপতিক বলে ব্যাখ্যা দেওয়া চলে না। স্বৈরতন্ত্রের বিকাশের ক্ষেত্রে, বুর্জোয়া রাজতন্ত্র, বুর্জোয়া কৃষ্ণ-শতক [১] পার্লামেন্ট প্রথা আর গ্রামাঞ্চলে জারতন্ত্রের বুর্জোয়া কর্মনীতির বিকাশের ক্ষেত্রে আমরা একটা বিশেষ পর্বের মুখোমুখি এসে পড়েছি, আর এই সবকিছুকে সমর্থন করছে প্রতিবিপ্লবী বুর্জোয়ারা, তাতে এখন আর কোনো সন্দেহ নেই। বর্তমান কালপর্যায়টা নিঃসন্দেহেই ‘বিপ্লবের দুটো ঢেউয়ের মধ্যেকার’ উত্তরণ-কালপর্যায়, কিন্তু ঐ দ্বিতীয় বিপ্লবের জন্যে প্রস্তুত হতে হলে এই উত্তরণের বিশেষত্বগুলোকে আমাদের আয়ত্ত করা চাই, ‘অভিযানের’ সমগ্র ধারাটা আমাদের উপর জোর করে চাপিয়ে দিয়েছে যে-কষ্টকর, কঠিন,Read More


লেভ তলস্তয় এবং তাঁর যুগ — ভি আই লেনিন

লেভ তলস্তয় যে-যুগের মানুষ, যে-যুগ এমন বলিষ্ঠ রেখায়-রেখায় ফুটে উঠেছে তাঁর দেদীপ্যমান সাহিত্যিক রচনাবলিতেও এবং তাঁর মতবাদেও, সেটা ১৮৬১ সালের পরে শুরু হয়ে চলেছিল ১৯০৫ সাল অবধি। তলস্তয়ের সাহিত্যিক কর্মজীবন শুরু হয়েছিল আরও আগে, সেটা শেষ হয়েছিল আরও পরে, তা ঠিক, কিন্তু এই যে-কালপর্যায়ের উত্তরণকালীন প্রকৃতি তলস্তয়ের রচনাবলি এবং তলস্তয়বাদের সমস্ত বৈশিষ্ট্যসূচক উপাদানের উদ্ভব ঘটিয়েছিল, সেই সময়েই তিনি সম্পূর্ণত সুপরিণত হয়ে উঠেছিলেন শিল্পী হিসেবেও, চিন্তাবীর হিসেবেও। এই অর্ধ-শতকে রাশিয়ার ইতিহাসে যে-গতিপরিবর্তন ঘটেছিল তার প্রকৃতিটাকে ল. তলস্তয় একেবারে ছবির মতো ফুটিয়ে তুলেছেন ‘আন্না কারেনিনা’র অন্যতম চরিত্র লেভিনের মারফত। ‘…ফসলতোলা, জন-লাগানো, ইত্যাদিRead More