You are here
Home > Posts tagged "গান"

ভেদি অনশন মৃত্যু তুষার তুফান — ল্যাংস্টন হিউজ

  ভেদি অনশন মৃত্যু তুষার তুফান, প্রতি নগর হতে গ্রামাঞ্চল কমরেড লেনিনের আহ্বান, চলে মুক্তিসেনা দল। অতিক্রান্ত এ প্রান্তর গিরি দুর্গম, পূর্ব সীমান্তে ধায় পল্টন তাইমুরিয়ার শেষ দূর্গে আশ্রয় নিয়েছে দুশমন। যুদ্ধ লাঞ্ছিত বিবর্ণ লাল পতাকা মহা গৌরবে উর্ধ্বে উড্ডীন সদ্য সিক্ত রক্তের রঙে হলো সহস্র গুণ রঙিন। নিশ্চিহ্ন হলো শত্রু সৈন্য, জাহান্নামে দস্যু বিলীন প্রশান্ত সাগর তীরে শ্রমিক পতাকা উড্ডীন।

ক্ষুদিরাম বসু বাঙলার অগ্নিযুগের মহান বিপ্লবী

ক্ষুদিরাম বসু (Khudiram Boshu) (৩ ডিসেম্বর, ১৮৮৯ - ১১ আগস্ট, ১৯০৮) ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের শুরুর দিকের সর্বকনিষ্ঠ এক বিপ্লবী। ফাঁসির সময় তাঁর বয়স ছিল ১৮ বছর, ৭ মাস ১১ দিন। প্রারম্ভিক জীবন: ক্ষুদিরাম বসু ডিসেম্বর ১৮৮৯ তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির অন্তর্গত মেদিনীপুর জেলা শহরের কাছাকাছি মৌরনি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার

একবার বিদায় দে-মা ঘুরে আসি — পীতাম্বর দাস

একবার বিদায় দে-মা ঘুরে আসি,* হাসি হাসি পরব ফাঁসি দেখবে জগৎবাসী।। কলের বোমা তৈরি করে দাঁড়িয়ে ছিলেম রাস্তার ধারে মাগো, বড়লাটকে মারতে গিয়ে মারলাম আরেক ইংল্যান্ডবাসী।। শনিবার বেলা দশটার পরে জজকোর্টেতে লোক না ধরে, মাগো হল অভিরামের দ্বীপ চালান মা ক্ষুদিরামের ফাঁসি। দশ মাস দশদিন পরে

গোবিন্দ অধিকারী উনিশ শতকের কৃষ্ণ যাত্রার একজন বিখ্যাত পালাকার

“শুক-শারী সংবাদ” বা ‘বৃন্দাবন বিলাসিনী রাই আমাদের’ কীর্তন গানটি আমরা লোপামুদ্রা মিত্রের এবং কনিকা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (১৯২৪ – ২০০০) কণ্ঠে শুনেছি বহুবার। এই গানটি উত্তম কুমার (১৯২৬- ৮০) অভিনীত ‘রাইকমল’ সিনেমাতেও গাওয়া হয়েছিল। সেই বিখ্যাত গানটির গীতিকারের নাম গোবিন্দ অধিকারী। তিনি ছিলেন উনিশ শতকের একজন বিখ্যাত যাত্রাভিনেতা এবং কৃষ্ণ যাত্রায় দুতীর

শুক-শারী সংবাদ — গোবিন্দ অধিকারী

বৃন্দাবন বিলাসিনী রাই আমাদের। রাই আমাদের রাই আমাদের আমরা রাইয়ের রাই আমাদের।। শুক বলে আমার কৃষ্ণ মদনমোহন। শারী বলে আমার রাধা বামে যতক্ষণ; নৈলে শুধুই মদন। শুক বলে আমার কৃষ্ণ গিরি ধরেছিল। শারী বলে আমার রাধা শক্তি সঞ্চারিল; নৈলে পারিবে কেন? শুক বলে আমার কৃষ্ণের মাথায় ময়ুর পাখা। শারী বলে আমার রাধার নামটি তাতে লিখা; ঐ যে যায় গো দেখা।। শুক বলে

চম্পক বরণী বলি, দিলি যে চমক কলি — গোবিন্দ অধিকারী

চম্পক বরণী বলি, দিলি যে চমক কলি এ ফুলে এ কল আছে কে জানে। এতো ফুল নয় ভাই ত্রিশুল অসি, মরমে রহিল পশি রাই-রূপসীর রূপ অসি হানেপ্রাণে।। শ্রীরাধাকুণ্ডবাসী শ্রীরাধা-তুল্যবাসী অসি সরসী বাসি কাননে। এখন বিনে সেই রাই রূপসী জ্ঞান হয় সব বিষরাশি, গরলগ্রাসী নাশি জীবনে।        আমার মিথ্যা নাম  রাখালরাজ        রাখাল সঙ্গে বিরাজ, রাখালের রাজ অঙ্গে কাজ কি জানে। যদি

তোমরা গেইলে কি আসিবেন মোর মাহুত বন্ধুরে

হস্তিক নড়ান হস্তিক চরান হস্তির পায়ে বেড়ি   ও রে সত্যি করিয়া কনরে মাহুত কোন বা দেশে বাড়িরে? আর গেইলে কি আসিবেন মোর মাহুত বন্ধুরে? তোমরা গেইলে কি আসিবেন মোর মাহুত বন্ধুরে?   হস্তিক নরাং হস্তিক চরাং হস্তির গালায় দড়ি ওরে সত্য করিয়া কংরে কন্যা গৌরীপুরে বাড়ি রে। আর গেইলে কি আসিবেন মোর মাহুত বন্ধুরে? তোমরা গেইলে কি

হেমাঙ্গ বিশ্বাস বাংলা গণসংগীতের জননন্দিত মহাযোদ্ধা

হেমাঙ্গ বিশ্বাসের জন্ম ১৯১২ সালের ১৪ ডিসেম্বর; বাংলা তারিখ ২৭ অগ্রহায়ণ ১৩১৯। জন্মস্থান তৎকালীন শ্রীহট্ট বা সিলেট জেলার হবিগঞ্জ মহকুমার চুনারুঘাট উপজেলার মিরাসি গ্রামে। সে হিসেবে তিনি ছিলেন বাংলাদেশের সিলেটের মিরাশির বাসিন্দা। তাঁর পিতার নাম হ রকুমার বিশ্বাস ও মা সরোজিনী দেবি। তাঁর মৃত্যূ তারিখ ২২ নভেম্বর ১৯৮৭। তিনি একজন

লোকসংগীতের গণশিল্পী পিট সীগার

পিটার "পিট" সিগার (৩ মে, ১৯১৯ – ২৭ জানুয়ারি, ২০১৪) ছিলেন একজন মার্কিন লোকসঙ্গীত শিল্পী। তিনি ১৯৪০’র দশকে জাতীয় বেতারের অনুষ্ঠানে, দ্য উয়িভারস-এর সদস্য হিসেবে ১৯৫০’র দশকে যন্ত্রসংগীতে জননন্দিত রেকর্ড করেন, ১৯৫০’র দশকে ১৩ সপ্তাহ ধরে টপচার্টে অবস্থান করা ‘লীড বেলি'র “গুডনাইট, ইরিন”-এর রেকর্ডিঙের জন্য অধিক খ্যাত হন। দ্য উয়িভারসের

পরেশ ধর বিশ শতকের মহান গণসংগীত গীতিকার ও কবি

পরেশ ধর, ইংরেজিতে Paresh Dhar, (৯ আগস্ট, ১৯১৮ - ৬ এপ্রিল, ২০০২) বাংলাভাষার বিশ শতকের কবি, গণসংগীত গীতিকার, গীতিনাট্যকার, লেখক, বংশীবাদক, যাত্রাপালা রচয়িতা, রাজনীতিক এবং একজন মাওবাদী চিন্তক। তিনি পশ্চিমবঙ্গ গণ-সংস্কৃতি পরিষদ ও বিপ্লবী লেখক শিল্পী বুদ্ধিজীবী সংঘের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন এবং এম.সি.সি.-র (মাওইস্ট কমিউনিস্ট সেন্টার) রাজনীতির নিকটবর্তী চিন্তার

Top