You cannot copy content of this page
আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > Posts tagged "পরাবাস্তব কবিতা"

ওঠাপড়া

এইও! কাউকে বলবে না/ পাহাড়ে উঠছে বানরসেনা/ একপা দু-পা-তিন-পা/ সবার আগে শের পা/ যেই না পথ ফুরোয়/ পৌঁছে যায় চুড়োয়/ চেঁচিয়ে কয়, নামো নামো/ ল্যাজ আনিনি, আরে রামো/ কাজেই আবার এক-পা দু-পা/ হুপ পা হুপ, হুপ পা হুপা। আরো পড়ুন

সখা হে

থামাও রথ, কেশব !/ দিয়েছ আমায় তত্ত্বজ্ঞান যেসব/ ফুরিয়ে গেছে/ দিন তার !/ নারকী এই কুরুক্ষেত্র ছেড়ে/ চাই এবার/ পায়ের নিচে মাটি/ রাজ্যলোভ, রক্ত, কাটাকাটি/ আর নয়।/ নরোত্তম, তোমার হাত ধ’রে/ ভুবন ভ’রে/ দর্শন দিক/ সমন্বয়,/ সুখশান্তি,/ যোগক্ষেম,/ প্রেম। আরো পড়ুন

স্বর্গীয়

দরজা ভেজানো ছিল/ অনভ্যাসে/ নত হতে না পারায়/ মাথা ঠুকে গিয়েছে ঝনকাঠে/ ফুটো মালসা, জল শেষ/ উঠোনে তুলসীর প্রেতচ্ছায়া/ নাচায় প্রদীপ/ দাওয়ার ওপর রাখা/ জলচৌকি/ পা-ধোয়ার জল, গামছা/ কাঠের খড়ম আরো পড়ুন

সপ্তাহ প্রতিদিনই

শিব নেই। ছি! ছি !/ সেই দুঃখে/ দক্ষযজ্ঞে/ যান নি দধীচি।/ বৃত্রাসুর হানা দিলে/ স্বর্গচ্যুত/ হল দেবতারা –/ খোদ ইন্দ্র রণে ভঙ্গ দেন।/ তখন দধীচি ছাড়া/ দেবগণ/ অনন্য উপায় ।/ দধীচি দিলেন প্রাণ। আরো পড়ুন

ভানুমতীর খেল

সাদার গায়ে ছিটানও কিছু কালি;/ বিষয়আশয় বলতে সেই বুড়োর/ আর আছে কী?/ এই নিয়েই তো খালি/ যত রাজ্যের চাপান আর উতোর।/ ইহকালের কাছে তো সেই বুড়ো/ পাতেনি হাত ;/ আপনি মিলেছে যা/ তাতেই খুশি, হোক না খুদকুঁড়ো/ হোক কিছু তার চোখের জলে ভেজা। আরো পড়ুন

খেলা

খেলনাগুলো পড়ে রইল/ ছড়িয়ে ছিটিয়ে/ দেশলাইয়ের বাক্স জোড়া দিয়ে/ তৈরি করা রেল/ উনুন কড়াই খুন্তি/ চালডাল ভাড়ার হেঁশেল/ হাত-খসা পা-খসা/ মুণ্ডুহীন/ কয়েকটা পুতুল/ চেয়ার টেবিল টুল/ মুখোলে ফোটানো আরো পড়ুন

ঠাকুরমার ঝুলি

এ-দুয়োরে যায়: দূর-দূর! / ও-দুয়োরে যায় । ছেই-ছেই !/ সুয়োরানী লো সুয়োরানী তোর/ রাজ্যে দিল হানা/ পাথরচাপা কপাল যার সেই/ ঘুটেকুড়ানির ছানা/ ঘেন্নায় মরি, ছি!/ মন্ত্রী বলল, দেখছি/ কোটাল বলল, দেখছি/ ঢোল ডগরে পড়ে কাঠি/ রক্তে হয় রাঙা মাটি আরও পড়ুন

গোলোকধাম

ডানাকাটা পরী বলে,/ ‘বুড় হ/ একবার খতম হলে খেল/ তারপর স্বর্গে যাবি ?/ দূর ই –/ বলিহারি তোর এই আক্কেল !/ ফের যদি দেখেছি গির্জায় !/ উঁহু,/ সাধুসন্তেরও কাছে না।/
গায়ে দিবি বাহারে মেরজাই,/ ফুল কিনবি –/ হোক ধারদেনা। আরো পড়ুন

সাধ

দু দেয়ালে রুজু রুজু/ দুটো ছবি/ টাঙানো পেরেকে।/ একটিতে কাটায় বিদ্ধ/ যীশুখ্রীষ্ট!/ অন্যটিতে/ হেলায় করেন কর্ণ মৃত্যুকে বরণ/ রথের চাকায় হাত রেখে। দুটোই জ্বলজ্বল করছে/ বিধিবহিভূর্ত দুটি/ চিরঞ্জীব/ জন্মের মহিমা। আরো পড়ুন

জলছবি

ক্যালেণ্ডারে হাত দিস্ নে।/ যা ভাগ, বোকা হাবা !/ চেয়ার খালি। জানলা খোলা।/ নিরক্ষর হাওয়া/ বারে বারে একই বইয়ের/ ওটাচ্ছে পাতা।/ ঘড়ির কাটায় হাত দিস নে,/ সময় গোনাগাঁথা।আরো পড়ুন

Top