কারোয়া একধরণের মসলা জাতীয় বিরুৎ

কারোয়া দেখতে গাজর পরিবারের অন্যান্য প্রজাতির মতো। সূক্ষ্মভাবে বিভক্ত, পালকযুক্ত পাতাগুলি সুতার মতো বিভাজনসহ ২০-৩০ সেমি (৮-১২ ইঞ্চি) কান্ডে বৃদ্ধি পায়। প্রধান ফুলের কান্ড ৩০-৬০ সেমি (১২-২৪ ইঞ্চি) লম্বা, ছোট সাদা বা গোলাপী ফুল যৌগিক ছাতার মধ্যে ৫-১৬ অসম রশ্মি ১-৬ সেমি লম্বা। কারোয়া ফল মসৃণ, অর্ধচন্দ্রাকার, পার্শ্বীয়ভাবে সংকুচিত, প্রায় ৩ মিমি (১⁄৮ ইঞ্চি) লম্বা, পাঁচটি ফ্যাকাশে শিলা আছে এবং চূর্ণ করার সময় সুগন্ধ হয়।আরো পড়ুন

নারকাটা সপুষ্পক আরোহী লতা

নারকাটা একটি কাষ্ঠল আরোহী লতা। এর শাখাগুলি ঘন গ্রন্থিযুক্ত ও লোমযুক্ত এবং কাঁটাযুক্ত। লতার পাতা ২২ থেকে ৩৬ সেমি লম্বা হয় এবং দ্বিগুণ যৌগিক। পাতা পাশাপাশি থাকে, একটি শিরায় ১৩ থেকে ২৩ জোড়া থাকে, এটি প্রায় ৩.৫ সেমি লম্বা। ঝিরিঝিরি পাতাগুলো বিপরীতমুখী, ৭ থেকে ১৪ জোড়া, আয়তাকার, প্রায় ৯ × ৪ মিমি, সরল, ব্রাশের মতো দেখতে।আরো পড়ুন

কুকুরমুতা বা তাম্রচূড়া ভেষজ গুণসম্পন্ন গুল্ম

কুকুরমুত্রা বা কুকুরশোঁকা হল একটি তীব্র গন্ধযুক্ত একটি বর্ষজীবী ভেষজ গুল্ম। এটি ১-২ ফুট লম্বা হতে পারে। এদের কাণ্ড রোমশ, খাড়া, সরল বা শাখাযুক্ত। এটি সরল, তবে পাতা ও কাণ্ডের সংযোগস্থল থেকে ছোট ছোট শাখাও বের হয়। পাতা পাতা অগোছালো, ডিম্বাকার; ৫ থেকে ১২ সেমি লম্বা, ২-৬ সেমি চওড়া, উপরের দিকে ছোট, ডাঁটাযুক্ত, এবং দাঁতযুক্ত। কিন্তু বোঁটার দিকটা ক্রমশঃ সরু, কিনারা ঢেউ খেলানো, সক্ষম রোমশ, মনে হয় যেন পশম দিয়ে তৈরী।আরো পড়ুন

নাউ নুয়ার বিরল প্রজাতির গুল্ম

বৃহদাকার গুল্ম, ২ মিটার পর্যন্ত উঁচু, কন্ড সরল, রসালো, শাখা-প্রশাখা বেলনাকার, শক্ত, মসৃণ। পাতা ১৫ ৩৫ x ৫-১২ সেমি, উল্টাভাকার, অখন্ড, দীর্ঘাগ্র, চার্মবৎ, মসৃণ, মধ্যশিরার উভয়পাশে পার্শ্বশিরা ১২-১৫টি, তীক্ষ্ণ, পাদদেশ সরু হয়ে একটি খর্বাকৃতির ও মোটা পর্বলগ্ন পত্রবৃন্তে পরিণত হয়। পুষ্প গোলাপী বা লালচে, লম্বা, শক্ত ও প্রায় মসৃণ প্রান্তীয় যৌগিক মঞ্জরীতে সজ্জিত, পুষ্পবৃন্তিকা ছড়ানো অথবা ঝুলন্ত, ৩.৫-১৫.০ মিমি লম্বা। আরো পড়ুন

ভারতীয় শিয়াল বুকা চিরহরিৎ ভেষজ গুল্ম

এই প্রজাতি বৃহৎ গুল্ম বা ছোট আকারের বৃক্ষ হয়। এর উচ্চতা প্রায় ১০ মিটার পর্যন্ত হয়। পাতা দীর্ঘায়ত বা বিডিম্বাকার, ৭-১৫ x ২.৫-৫.৫ সেমি, কাগজতুল্য, শীর্ষ দীর্ঘা, মূলীয় অংশ সূক্ষ্মাগ্র থেকে স্থুলাগ্র বা গোলাকার, মধ্যশিরা ভিন্ন অঙ্কীয় পৃষ্ঠের অন্যান্য অংশ রোমশ বিহীন, উপরের পৃষ্ঠ মরচে রোমশ, শুষ্ক অবস্থায় লালাভ বাদামী, বৃন্ত ২-৬ মিমি লম্বা, ঘনরোমশ, উপপত্র আশুপাতী, রৈখিক, ৩.২-৬.৫ x ০.৫-১.০ মিমি, রোমশ, পুংমঞ্জরী ৪-৭ সেমি লম্বা, অক্ষীয়, শাখায়িত রেসিম, মঞ্জরীপত্র ভল্লাকার, ০.৩-০.৮ x ০.৩-০.৫ মিমি, রোমশ।আরো পড়ুন

রক্সবার্গের শিয়াল বুকা বিরল প্রজাতির গুল্ম

এটি গুল্ম আকারের প্রজাতি। প্রায় ৩ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। তরুণ শাখা ও পত্র ঘন মরচে রোমশ। পত্র ৮-২৫ x ৪-১০ সেমি, বিডিম্বাকার, ৬ বিডিম্বাকার-দীর্ঘায়ত বা বিডিম্বাকার-উপবৃত্তাকার, শীর্ষ লেজ আকৃতি থেকে দীর্ঘা, মূলীয় অংশ গোলাকার, কর্তিতাগ্র বা তাম্বুলাকার, অখন্ড, অর্ধচর্মবৎ, রোমশ, পার্শ্বীয় শিরা প্রতি অর্ধাংশে ৮-১০ টি, প্রসারিত, পত্রক অক্ষ শক্ত, বৃতি ঘন, রোমশবৃত, বৃন্ত ৪ মিমি লম্বা, উপপত্র, রৈখিকচতি বল্লাকার, স্থায়ী।আরো পড়ুন

বড় এলাচি বা কালো এলাচ শীতঞ্চলের জন্মানো জনপ্রিয় মসলা

কালো এলাচ বা বড় এলাচ একটি চিরসবুজ উদ্ভিদ। যা ৫ ফুট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। পাতা কান্ডের উপরের অংশে থাকে। পুরানো ডালপালা কয়েক বছর পরে মারা যায়। রাইজোমগুলি অনুজ্জ্বল লাল রঙের। রাইজোমের গোড়া থেকে হয় এবং বসন্তে ফুলের কুঁড়ি দেখা যায়। আরো পড়ুন

খুশি ফুল ভারতে জন্মানো উপকারী বিরুৎ

ঋজু বীরুৎ, কান্ড সরল, ১ মিটার বা ততোধিক লম্বা। পত্র প্রশস্ত, ১৬-৩০ X ৬-১২ সেমি, সবৃন্তক, বল্লমাকার উপরের অংশ মসৃণ, নিচের অংশ লোমশ। পত্রাবরণ বদ্ধ, নলাকার, লোমশ। পুষ্প মুণ্ডাকার অনিয়ত পুষ্প বিন্যাসে জন্মে, প্রলম্বিত পত্রাবরণের মূলীয় অংশ ভেদ করে বাইরে আসে। আরো পড়ুন

ডোরা বট দক্ষিণ এশিয়ায় জন্মানো উদ্ভিদ

মূলারোহী লতা, শাখা-প্রশাখাসমূহ রোমশ, মসৃণবৎ, শুষ্ক অবস্থায় বাদামী। পল্লব অণুকুর্চ আবৃত থেকে অণুকন্টক রোমাবৃত থেকে অণুরোমাবৃত বা মসৃণ। পাতা দ্বিসারি, অণুপর্ণী, উপপত্র ১.০-১.৫ সেমি লম্বা, ডিম্বাকার ভল্লাকার, রোমশ, আশুপাতী, ফলক বৃন্তক, বৃন্ত ১-৩ সেমি লম্বা, বিক্ষিপ্ত রোমশ, ফলক ডিম্বাকার থেকে ডিম্বাকার উপবৃত্তাকার, ৭-১৮ × ৫-১০ সেমি, চর্মবৎ,আরো পড়ুন

প্যারাবোহা অরণ্যে জন্মানো উপকারী বৃক্ষ

এটি গুল্ম অথবা ছোট আকারের বৃক্ষ। এটি ৬ মিটার পর্যন্ত উঁচু, প্রায়শই অর্ধপরাশ্রয়ী, শাখা-প্রশাখাসমূহ ঝুলন্ত, উপশাখাসমূহ শুষ্ক অবস্থায় বাদামী থেকে হলুদাভ। পল্লব মসৃণ বা কিছুটা অণুখররোমাবৃত, সমতল অথবা কিঞ্চিৎ কর্কশ। পাতা দ্বিসারি, অণুপর্ণী, উপপত্র ০.৩-০.৮ সেমি লম্বা, মসৃণ, আশুপাতী, ফলক বৃন্তক, বৃন্ত ০.৩-১.৫ সেমি লম্বা, বিক্ষিপ্তভাবে কিছুটা খররোমাবৃত, ফলক দীর্ঘায়ত, উপবৃত্তাকার থেকে উপবিডিম্বাকার বা ভল্লাকার, ৪.০-১৬.৫ x ১.৫-৮.০ সেমি, চর্মবৎ, শীর্ষ আকস্মিক দীর্ঘাগ্র থেকে প্রায় পুচ্ছাকৃতি, আরো পড়ুন

error: Content is protected !!