সুবর্ণা কাচকি দক্ষিণ এশিয়ার সুস্বাদু স্বাদুপানির মাছ

মাছ

সুবর্ণা কাচকি

বৈজ্ঞানিক নাম: Corica soborna Hamilton, 1822 সমনাম: Corica soborna Hamilton, 1822, Fishes of the Ganges, pp. 253, 383; Spratella pseudopterus Bleeker, 1852, Nat. Tijdschr Nedr, India, pp. 407- 442; Corica biharensis Kamal and Ahsan, 1979, J. Inland Fish. Soc. India 10:28 ইংরেজি নাম: Ganges River-Sprat. স্থানীয় নাম: কাচকি, সুবর্ণা-খারিকা 
জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণিবিন্যাস 
জগৎ: Animalia পর্ব: Chordata শ্রেণী: Actinopterygii বর্গ: Clupeiformes পরিবার: Clupeidae গণ: Corica প্রজাতি: Corica soborna

বর্ণনা: এদের দেহ সুন্দর ও লম্বা। উপরের দিকের চেয়ে পেটের অংশ অধিক উত্তল। পেট ধারারো নিচের চোয়াল উর্ধ্বচোয়াল অপেক্ষা কিছুটা দীর্ঘতর। চোয়ালের দাঁত ক্ষুদ্রাকৃতির বা অনুপস্থিত। চোখ বড় ও মাথার সামনে অবস্থিত। শেষের দুটি পায়ু পাখনা দন্ড পৃথক পাখনা দন্ড (finlet) গঠন করে । এদের আঁইশ ক্ষণস্থায়ী। দেহ বাদামী রঙের ও আলোতে রূপালী প্রতিফলন দেয়। দেহে একটি অস্পষ্ট পার্শ্ব ডোরা দাগ বিদ্যমান। পুচ্ছপাখনা কিনারা কালো হয়।

বসবাস: সুবর্ণা কাচকি মাছ নদী এবং হ্রদে পানির উপরে ঝাঁক বেঁধে চলাচল করে। সাধারণত কিছু অমেরুদন্ডী প্রাণী এরা খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করে। এরা সাধারণত নদী ও হ্রদে বাস করে। নদীর মোহনাতে এদের পাওয়া যায়। বাংলাদেশে কাপ্তাই হ্রদে এই মাছ সর্বাধিক পরিমাণে পাওয়া যায়।

বিস্তৃতি: ভারত (পশ্চিম বঙ্গ, উড়িষ্যা), বাংলাদেশ এবং ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ডসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশসমূহে এই মাছের বিস্তার।

চাষাবাদ: সুবর্ণা কাচকি বাংলাদেশের নদীতে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। এই ক্ষুদ্র মাছটিতে আছে প্রোটিন ও খনিজ লবন। রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদের বাজারজাত করার জন্য এই মাছ চাষ করা হয়। এই মাছ নিজেরাই বংশবৃদ্ধি করে সংখ্যায় বাড়তে পারে।

বর্তমান অবস্থা এবং সংরক্ষণ: IUCN Bangladesh (2000) এর লাল তালিকা এই মাছটি আশংকানজক প্রজাতি হিসেবে চিহ্নিত নয়।

মন্তব্য: এই মাছ সাধারণভাবে প্রায় ৪ সেমি পর্যন্ত লম্বা হয়। এদের উচ্চ স্থিতিস্থাপকতা গুণ থাকে এবং সংখ্যায় দ্বিগুণ হতে ১৫ মাসের ও কম সময় লাগে।

আরো পড়ুন:  কাতলা দক্ষিণ এশিয়ার বিপদমুক্ত স্বাদুপানির মাছ

তথ্যসূত্র:

১. ওহাব, মোঃ আব্দুল (অক্টোবর ২০০৯)। “স্বাদুপানির মাছ”। আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; আবু তৈয়ব, আবু আহমদ; হুমায়ুন কবির, সৈয়দ মোহাম্মদ এবং অন্যান্য। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ ২৩ (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃ: ১৯। আইএসবিএন 984-30000-0286-0

Leave a Comment

error: Content is protected !!