আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > প্রাণ > উদ্ভিদ > ঘাস > বড় নল বা মহানল ঘাসের ভেষজ গুণ ও প্রয়োগবিধি

বড় নল বা মহানল ঘাসের ভেষজ গুণ ও প্রয়োগবিধি

বড়-নল-বা-মহানল

বড় নল বা মহানল হলো তৃণনল। নল অর্থ নলিকা যার ভেতরটা ফাঁপা। গ্রামিণী গোত্রের অভক্ত প্রায় গণ-এর কাণ্ডই ভিতরে ফাঁপা। বিশেষ করে গাছ বড় হলে এ ফাঁপা আরও অধিক নজরে পড়ে।

বড় নল বা মহানল ঘাসের বিবরণ:

লম্ব, বলিষ্ঠ, খাড়া, শাখাযুক্ত বহুবর্ষজীবী ইক্ষুর মতো দেখতে এই ঘাস। যা ৮ মিটার পর্যন্ত উঁচু হতে পারে। এটি ভূমধ্যসাগরের দেশজ হলেও এদেশে বুনো বা আবাদি অবস্থায় দেখা যায়। পানির কাছাকাছি জন্মে। রাইজোম সবসময় কন্দিত, গড়িয়ে চলে, স্থুল, গাঁটযুক্ত দেহ গঠন করে। তৃণকাণ্ড ফাঁকা ১২-৭ মিমি পুরু প্রাচীরবিশিষ্ট, বহু-গাঁট বিশিষ্ট।

পর্বমধ্য ১২-৩০ সেমি দীর্ঘ হতে পারে। বাইরের কোষ সিলিকাযুক্ত, খুব শক্ত, ভঙ্গুর, মসৃণ চকচকে বাইরের দিক যা পরিণত বয়সে হালকা সোনালি হলুদ হয়। পাতা সুস্পষ্টরূপে ২-স্তরের, রৈখিক-বর্শাফলকাকৃতি, পত্রসীথস্থায়ী; প্যানিকল ৩০-৬০ সেমি দীর্ঘ, খাড়া, মসদৃশ, সিল্কি কেশবিশিষ্ট, মাখন রঙের বা খয়েরি, স্পাইকলেট ৮-১৫ সেমি লম্বা, ২-৭ পুষ্পী, ফল আয়তাকৃতি।

বাংলায় একে বড়নল ছাড়াও মহানল, নল, গাহাল, গহনল বলা হয়। হিন্দিতে বড়নল বলে। এর উদ্ভিদতাত্বিক নাম Arundo donax Linn. গোত্র গ্রামিণী।

বড় নল বা মহানল ঘাসের ভেষজ গুণাগুণ:

বড়নল বা মহানল অত্যধিক মধুর, বীর্যবর্ধক ও অল্প কষায় রসযুক্ত। বড়নল নল অপেক্ষা অধিক বীর্যশালী এবং পারদ সংস্কারের কাজে লাগে।মূলের ক্বাথ- ঘর্মস্রাবক, মূত্রকারক; আর্তবজনন, শোথহর এবং স্তনহ্রসকারক। মূলের অ্যালকোহলিক নির্যাস রক্তচাপ কমায় এবং খিচুনি নিবারক। মূলের ক্বাথ পুলটিস হিসাবেও ব্যবহৃত হয়।

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা পদ্ধতিতে অরান্ডো নামে পরিচিত এ ওষুধ সর্দি, কাশি প্রভৃতি অবস্থায় প্রযোজ্য। নাসারন্ধ্রে এবং মুখবিবরের ছাদে বিরক্তিকর চুলকানি । চুলকানিসহ ‘হে ফিবার’ শুরু হয়। প্রস্রাবে জ্বালা, লাল রঙের তলানি, পদদ্বয়ে দুর্গন্ধময় ঘর্ম অরাণ্ডো প্রয়োগের ক্ষেত্রকে ইঙ্গিত করে। এর পাতায় ইনডোল বেস, গ্রামীন (ডোনাক্সিন), ডোনাক্সারিন, বুফোটেনিন আছে।

আরো পড়ুন:  মুক্তাঝুরি বিরুৎ-এর গুরুত্ব ও দশটি ভেষজ গুণাগুণ

সতর্কীকরণ: ঘরে প্রস্তুতকৃত যে কোনো ভেষজ ওষুধ নিজ দায়িত্বে ব্যবহার করুন।

তথ্যসূত্রঃ

১. ড. সামসুদ্দিন আহমদ: ওষুধি উদ্ভিদ (পরিচিতি, উপযোগিতা ও ব্যবহার),  দিব্যপ্রকাশ, বাংলাবাজার, ঢাকা, জানুয়ারি ২০১২, পৃষ্ঠা, ১৬৮-১৬৯।

বি. দ্র: ব্যবহৃত ছবি উইকিমিডিয়া কমন্স থেকে নেওয়া হয়েছে। আলোকচিত্রীর নাম: Bouba at French Wikipedia

Dolon Prova
জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ “স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে”। বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।

Leave a Reply

Top
error: Content is protected !!