আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > প্রাণ > উদ্ভিদ > বীরুৎ > খাড়া বিষকচু বাংলাদেশের ঝোপ-ঝাড়ে জন্মানো সংকটাপন্ন বিরুৎ

খাড়া বিষকচু বাংলাদেশের ঝোপ-ঝাড়ে জন্মানো সংকটাপন্ন বিরুৎ

বিরুৎ

খাড়া বিষকচু

বৈজ্ঞানিক নাম: Alocasia acuminata Schott, Bonpland. 7: 28 (1859). ইংরেজি নাম: Upright Elephant Ear। স্থানীয় নাম: খাড়া বিষকচু।
জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Plantae, বিভাগ: Tracheophytes. অবিন্যাসিত: Angiosperms. অবিন্যাসিত: Monocots.  বর্গ: Alismatales. পরিবার: Araceae. গণ: Alocasia, প্রজাতি: Alocasia acuminata.

ভূমিকা: খাড়া বিষকচু (বৈজ্ঞানিক নাম: Alocasia acuminata) বাংলাদের পাহাড়ি অঞ্চলে জন্মানো বিরুৎ। এই কচু সচরাচর পাওয়া যায় না। প্রাকৃতিক পরিবেশের সংকটের জন্য বর্তমানে জাতীয় হার্বেরিয়ামে চাষাবাদ করা হয়।

খাড়া বিষকচু-এর বর্ণনা:

বীরুৎ, কান্ড, দৃঢ়, উধ্বর্গ বা ঋজু, ৩০-৬০ x ২.৫-৩.০ সেমি, পাতা প্রায় ৬-৮ টি একত্রিত, বৃন্ত ৩০-৬০ সেমি লম্বা, পত্রফলক ২০-২৫ সেমি, ঝিল্লিযুক্ত, ছত্রবদ্ধ, দীর্ঘায়িত হীরকাকার (elongate -rhombic) শীর্ষ লেজের ন্যায় দীর্ঘাঘ, ভূমি খন্ড-যুক্ত। পুষ্পবিন্যাস পাতার নিম্নাংশে জোড়াবদ্ধ, মঞ্জরীদন্ড পত্রবৃন্ত থেকে খাটো, ২০-৩০ সেমি, চমসা (Spathe) ১২-১৬ সেমি, নালি ও দন্ড ফলকের মধ্যবর্তী অংশ সংকুচিত, নালী দল-ফলকের চেয়ে ক্ষুদ্রতর, ডিম্বাকৃতি, সবুজ ৩.০-৪.৫ সেমি স্থায়ী। দলফলক (Limb) ৯.০-১১.৫ সেমি, দীর্ঘায়ত, নৌকাকৃতি, দীর্ঘা, সাদাভ বা হলুদাভ-সবুজ।

স্পেডিক্স চমসার চেয়ে খাটো, ১০-১২ সেমি, লম্বা, স্ত্রী পুষ্পের অংশ ১.২ সেমি লম্বা এবং ১.১ সেমি ব্যাসযুক্ত। গর্ভাশয় ফ্যাকাশে সবুজ, বর্তুলাকার, গর্ভদন্ড খাটো, গর্ভমুণ্ড মুণ্ডাকার, ৩ খন্ডক, হলুদ, অমরা। বিন্যাস মূলীয়, বন্ধ্যা অংশ ৩.৫ সেমি লম্বা, ০.৫ সেমি। ব্যাসযুক্ত, সাদাভ। পুংপুস্পধারী অংশ ২.৫ সেমি লম্বা ও ০.৯ সেমি ব্যাসযুক্ত, অর্ধবেলনাকার, ভূমি ও শীর্ষ উভয়ই সরু। শীর্ষ উপাঙ্গ সরু, কোণাকৃতি ৫ সেমি লম্বা, সাদাভ, তীক্ষ্ণাগ্র। ফল বেরি, লাল। বীজ অর্ধবর্তুলাকার।

ক্রোমোসোম সংখ্যা: 2n = ২৮ (Petersen, 1989)।

আবাসস্থল ও বংশ বিস্তার:

পাহাড়ের ছায়াযুক্ত সেঁতসেঁতে ঢালু অঞ্চল। ফুল ও ফল ধারণ মে-আগস্ট মাস। বীজ ও কন্দের সাহায্যে সহজ উপায়ে বংশ বৃদ্ধি হয়। বিস্তৃতি: মায়ানমার এবং বাংলাদেরশের চট্টগ্রাম ও মৌলভী বাজর জেলা থেকে এর অবস্থান উল্লেখ করা হয়েছে।

আরো পড়ুন:  কেও বা কেঁউমূলের ঔষধি ব্যবহার

খাড়া বিষকচু-এর অন্যান্য তথ্য:

বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষের  ১১ খণ্ডে (আগস্ট ২০১০) খাড়া বিষকচু প্রজাতিটির সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, বাংলাদেশে এটি সংকটাপন্ন হিসেবে বিবেচিত। বাংলাদেশে খাড়া বিষকচু সংরক্ষণের জন্য জাতীয় হার্বেরিয়ামে চাষ করা হচ্ছে। প্রজাতিটি সম্পর্কে প্রস্তাব করা হয়েছে যে প্রকৃত আবাসস্থল ও তার বাইরে সংরক্ষণ জরুরি।

তথ্যসূত্র:

১. হোসনে আরা (আগস্ট ২০১০) “অ্যানজিওস্পার্মস ডাইকটিলিডনস” আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; হাসান, মো আবুল; বেগম, জেড এন তাহমিদা; খন্দকার মনিরুজ্জামান। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। খন্ড ১১, পৃষ্ঠা ২৮। আইএসবিএন 984-30000-0286-0

ছবিটি নেওয়া হয়েছে ফেসবুক থেকে আলোকচিত্রীর নাম: TK TN

Dolon Prova
জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ “স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে”। বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।

Leave a Reply

Top
You cannot copy content of this page