ছোট ঝুনঝুনা দক্ষিণ এশিয়ায় জন্মানো ভেষজ বিরুৎ

বিরুৎ

ছোট ঝুনঝুনা

বৈজ্ঞানিক নাম: Crotalaria prostrata Rottler ex Willd., Enum. Hort. Berol.: 744 (1809). সমনাম: Crotalaria prostrata Roxb. ex D. Don (1825). ইংরেজি নাম: Prostrate Rattlepod। স্থানীয় নাম: ছোট ঝুনঝুনি।
জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Plantae. বিভাগ: Angiosperms. অবিন্যাসিত: Tracheophytes. অবিন্যাসিত: Eudicots. বর্গ: Fabales পরিবার: Fabaceae. গণ: Crotalaria. প্রজাতি: Crotalaria prostrata.

ভূমিকা: ছোট ঝুনঝুনা (বৈজ্ঞানিক নাম: Crotalaria prostrata, ইংরেজি নাম: Prostrate Rattlepod) বাংলাদেশের পাহাড়ে জন্মে। এছাড়াও ভেষজ চিকিৎসায় কাজে লাগে।

ছোট ঝুনঝুনা-এর বর্ণনা:

ব্যাপিত, শায়িত, বর্ষজীবী বীরুৎ, ১৫-৫০ সেমি লম্বা, শাখাপ্রশাখা সরু, খাটো, চাপা বা ছড়ানো রেশমি হলুদ-বাদামী রোমশ। পত্র সরল, প্রায় বৃন্তহীন,

উপপত্রহীন, ১.৬-৩.০ X ১.০-১.৫ সেমি, আয়তাকার বা আয়তাকার-ডিম্বাকার, স্থূলাগ্র, গোড়া তির্যক বা প্রায় হৃৎপিন্ডাকার, উভয় পার্শ্ব রোমশ, রোম রেশমি, হলুদাভ।

পুষ্পবিন্যাস রেসিম, ২-৪ পুষ্পক, মঞ্জরীদন্ড সূক্ষ্ম রেশমি, সাধারণত পাতার দ্বিগুণ, মঞ্জরীপত্র এবং মঞ্জরীপত্রিকা ক্ষুদ্র, তুরপুনাকার, পুষ্পবৃন্ত খাটো, প্রায় ২ মিমি লম্বা।

বৃতি ৪-৫ মিমি লম্বা, ঘন রেশমি, দন্তক রেখাকার। দলমন্ডল হলুদ, বহির্মূখী নয়। ফল পড, প্রায় বৃন্তহীন, ১.২-১.৫ সেমি লম্বা, চ্যাপ্টা, রোমহীন, ১২-১৫ বীজী।

ক্রোমোসোম সংখ্যা: ২n = ১৬ (Kumar and Subramaniam, 1986).

আবাসস্থল ও বংশ বিস্তার:

পাহাড়ের উচ্ছেদাংশ। ফুল ও ফল ধারণ সময় অক্টোবর-মার্চ মাস। বংশ বিস্তার হয় বীজ দ্বারা।

ছোট ঝুনঝুনা-এর বিস্তৃতি:

পাকিস্তান থেকে সমগ্র ভারত, শ্রীলংকা থেকে ইন্দোনেশিয়া পর্যন্ত। বাংলাদেশের অধিকাংশ জেলায় সহজলভ্য।

জাতিতাত্বিক ব্যবহার:

ভারতে সাঁওতাল উপজাতীরা মূল পাকস্থলীর জটিলতায় ব্যবহার করে, যেখানে মুণ্ডা উপজাতীরা পেটের পীড়া এবং ডায়রিয়ায়, বিশেষত মারাক্তক ডায়রিয়ায় ব্যবহার করে।

অন্যান্য তথ্য:

বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষের ৮ম খণ্ডে (আগস্ট ২০১০) ছোট ঝুনঝুনা প্রজাতিটির সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, এদের শীঘ্র কোনো সংকটের কারণ দেখা যায় না এবং বাংলাদেশে এটি আশঙ্কামুক্ত হিসেবে বিবেচিত।

আরো পড়ুন:  নাউ নুয়ার বিরল প্রজাতির গুল্ম

বাংলাদেশে ছোট ঝুনঝুনা সংরক্ষণের জন্য কোনো পদক্ষেপ গৃহীত হয়নি। প্রজাতিটি সম্পর্কে প্রস্তাব করা হয়েছে যে এই প্রজাতিটির চাষাবাদ প্রয়োজন নেই।

তথ্যসূত্র:

১. মোহাম্মদ ইউসূফ (আগস্ট ২০১০)। “অ্যানজিওস্পার্মস ডাইকটিলিডনস” আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; হাসান, মো আবুল; বেগম, জেড এন তাহমিদা; খন্দকার মনিরুজ্জামান। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ। ৮ম (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা -৪০-৪১ আইএসবিএন 984-30000-0286-0

বি. দ্র: ব্যবহৃত ছবি উইকিমিডিয়া কমন্স থেকে নেওয়া হয়েছে। আলোকচিত্রীর নাম:  Krishan Lal

Leave a Comment

error: Content is protected !!