জানগানিয়া দক্ষিণ এশিয়ায় জন্মানো উপকারী বৃক্ষ

বৃক্ষ

জানগানিয়া

বৈজ্ঞানিক নাম: Derris robusta (Roxb. ex DC.) Benth., Journ. Linn. Soc. Suppl. 4: 104 (1860). সমনাম: Dalbergia robusta Roxb. ex DC. (1825), Dalbergia krowee Roxb. (1832), Brachypterum robustum (Roxb.) Dalz. & Gibs. (1860). ইংরেজি নাম: জানা নেই। স্থানীয় নাম: জানগানিয়া, জামুরজা, কোরাই।
জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস 
জগৎ/রাজ্য: Plantae. বিভাগ: Angiosperms. অবিন্যাসিত: Edicots. বর্গ: Fabales. পরিবার: Fabaceae. গণ: Derris  প্রজাতির নাম: Derris robusta

ভূমিকা: জানগারিয়া (বৈজ্ঞানিক নাম: Derris robusta) এক প্রকারের ভেষজ উদ্ভিদ। শোভা বর্ধনের জন্য লাগানো হয়।

জানগানিয়া-এর বর্ণনা:

মাঝারী-আকৃতির বৃক্ষ, ১০-১৬ মিটার উঁচু, নিচে শাখা এবং পত্র অস্পষ্টভাবে ধূসর রেশমের ন্যায়। পত্র ১০-১৫ সেমি লম্বা, পত্রক ২.৫-৫.০ সেমি লম্বা, উপরের পৃষ্ঠ সবুজ এবং মসৃণ, নিচের পৃষ্ঠ ধূসর এবং অস্পষ্টভাবে রেশমের ন্যায়।

পুষ্প ঘনভাবে গুচ্ছিত, পুষ্পবৃন্তিকা ১-২ সেমি লম্বা, সূক্ষ্মভাবে ধূসর পালকাবৃত। বৃতি প্রায় ২ মিমি লম্বা, দন্তক অতি সূক্ষ্ম, ব-দ্বীপ সদৃশ। দলমণ্ডল সাদাটে, ৬-৮ মিমি লম্বা, গোলাকার ফলকসহ যথাযথ খাড়া।

পুংকেশর একগুচ্ছীয়, ধ্বজকীয় পুংকেশর গোড়ায় মুক্ত। গর্ভাশয় কিছু-ডিম্বকবিশিষ্ট, গর্ভদণ্ড মসৃণ। ফল একটি পড, ১-৫ বীজবিশিষ্ট, উভয় প্রান্ত চিকন, মসৃণ, পক্ষ সুস্পষ্ট ।

ক্রোমোসোম সংখ্যা: ২n = ২২ (Fedorov, 1969)।

আবাসস্থল ও বংশ বিস্তার: পাহাড়ী এলাকা। ফুল ও ফল ধারণ সময়কাল ডিসেম্বর-মে। বীজ থেকে নতুন চারা জন্মে।

জানগানিয়া-এর বিস্তৃতি:

ভারত, হিমালয়ের পূর্ব দিক, মায়ানমার এবং চীন। বাংলাদেশে ইহা ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজার জেলা এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে বিস্তৃত।

অর্থনৈতিক ব্যবহার ও গুরুত্ব: মানসম্পন্ন আসবাবপত্রের জন্য নিম্নমানের কাঠ প্রদান করে এবং আবার জ্বালানী হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

অন্যান্য তথ্য:

বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষের ৮ম খণ্ডে (আগস্ট ২০১০) জানগারিয়া প্রজাতিটির সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, বাংলাদেশে এটি আশংকা মুক্ত হিসেবে বিবেচিত। বাংলাদেশে জানগারিয়া সংরক্ষণের জন্য কোনো পদক্ষেপ গৃহীত হয়নি। প্রজাতিটি সম্পর্কে প্রস্তাব করা হয়েছে যে এই প্রজাতিটি বর্তমানে সংরক্ষণ করার প্রয়োজন নেই।

আরো পড়ুন:  চারচারা দক্ষিণ এশিয়ায় জন্মানো গুল্ম

তথ্যসূত্র:

১. এ টি এম নাদেরুজ্জামান (আগস্ট ২০১০)। “অ্যানজিওস্পার্মস ডাইকটিলিডনস” আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; হাসান, মো আবুল; বেগম, জেড এন তাহমিদা; খন্দকার মনিরুজ্জামান। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ। ৮ম (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা ৬৯-৭০। আইএসবিএন 984-30000-0286-0

বি. দ্র: ব্যবহৃত ছবি উইকিমিডিয়া কমন্স থেকে নেওয়া হয়েছে। আলোকচিত্রীর নাম: Mmh Jihadi

Leave a Comment

error: Content is protected !!