দোলক লংকা জবা বিশ্বব্যাপী চাষকৃত আলংকারিক উদ্ভিদ

উদ্ভিদ

দোলক লংকা

বৈজ্ঞানিক নাম: Malvaviscus arboreus Cav. var. penduliflorus (Mocino & Sesse ex DC.) Schery in Ann. Miss. Bot. Gard. 29: 223 (1942). সমনাম : Malvaviscus penduliflora Mocino & Sesse ex DC. (1824). ইংরেজি নাম: Nodding Malvaviscus. স্থানীয় নাম: দোলক লংকা জবা।
জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Plantae বিভাগ: Angiosperms অবিন্যাসিত: Eudicots অবিন্যাসিত: Rosids বর্গ: Malvales পরিবার: Malvaceae গণ: Malvaviscus প্রজাতি: Malvaviscus arboreus penduliflorus

ভূমিকা: দোলক লংকা জবা (বৈজ্ঞানিক নাম: Malvaviscus arboreus, ইংরেজি নাম: Nodding Malvaviscus) হচ্ছে মালভেসি পরিবারের মালভাভিস্কাস গণের সপুষ্পক উদ্ভিদ। এটি দেখতে বৃক্ষ আকৃতির। বাগানের শোভাবর্ধনের জন্য লাগানো হয়ে থাকে। অনেকে এটিকে বাড়ির উঠানের এক কোনায় লাগিয়ে থাকে।

বর্ণনা: দেখতে আঙুর গাছের মতো আরোহী গুল্ম, রোমশ অথবা মসৃণ। এদের পাতা ১-১০ সেমি লম্বা বৃন্তযুক্ত, পত্রফলক ৫-২০ X ৩-১২ সেমি, অখন্ড বা ২-৩ খন্ডিত, খন্ডগুলো সাধারণত দৈর্ঘ্যে প্রস্থ থেকে লম্বা, নিচের পাতাগুলো ৩-খন্ডিত, মাঝের পাতা দ্বি-খন্ডিত বা অখন্ড, উপরের পাতা অখন্ড, ডিম্বাকারভল্লাকার, নিম্নপ্রান্ত সাধারণত গোলাকার, লম্বা দীর্ঘায়, ক্রকচ থেকে সভঙ্গ, উভয়পৃষ্ঠ কিছুটা রোমশ থেকে প্রায় মসৃণ, উপপত্র ৩-৫ মিমি লম্বা, রৈখিক, সন্ধিত নয়।

পুষ্প কাক্ষিক, একক, প্রান্তীয় গুচ্ছবদ্ধ। উপপবৃতির খন্ড ৬-৯টি, ১.০-১.৫ সেমি লম্বা, ১.৫-৩.০ মিমি প্রশস্ত, দীর্ঘায়ত অথবা নিচের অর্ধাংশ দীর্ঘায়ত এবং উপরের অর্ধাংশ চমসাকার।

বৃতি ৫-খন্ডিত, খন্ডগুলো উপবৃতির খন্ড থেকে কিছুটা লম্বা, মধ্যখানের উপর পর্যন্ত একীভূত, খন্ডগুলো ভল্লাকার। দলমন্ডল ৫-৭ সেমি লম্বা, লাল বর্ণের, খন্ডগুলো। এককেন্দ্রাভিমুখী, ছড়ানো নয়।

পুংকেশরীয় স্তম্ভ পাপড়ি ছাড়িয়ে লম্বা, ৬-৮ সেমি লম্বা, পরাগধানী বাহক শীর্ষের দিকে বর্তমান। গর্ভাশয় ৫-প্রকোষ্ঠীয়, ডিম্বক প্রতি প্রকোষ্ঠে ১টি, গর্ভদন্ডের শীর্ষ ১০টি শাখায় বিভক্ত, গর্ভমুণ্ড মুণ্ডাকার । ফুল ও ফল ধারণ: প্রায় সারা বছর ধরে।

আবাসস্থল ও চাষাবাদ: একটি বাগানী উদ্ভিদ হিসেবে চাষ করা হয়। শাখা কলমের সাহায্যে নতুন চারা জন্মে।

আরো পড়ুন:  রক্তকাঞ্চন এশিয়ার সুন্দর, মিষ্টি গন্ধযুক্ত ও ভেষজ গুণে ভরা ফুল গাছ

বিস্তৃতি: মেক্সিকোতে সহজেই চোখে পরে এবং ইকুয়েডর ও ভেনিয়েজুয়েলাতে বিস্তৃত। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ইহার চাষ হয়। বাংলাদেশে ইহা শোভাবর্ধোনের জন্য লাগানো হয়।

অর্থনৈতিক ব্যবহার ও গুরুত্বের দিক: শোভাবর্ধক হিসেবে ইহার গুরুত্ব আছে।

অন্যান্য তথ্য: বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষের ম খণ্ডে (আগস্ট ২০১০) লংকা জবা প্রজাতিটির সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, এদের শীঘ্র কোনো সংকটের কারণ দেখা যায় না এবং বাংলাদেশে এটি আশঙ্কামুক্ত হিসেবে বিবেচিত। বাংলাদেশে লংকা জবা সংরক্ষণের জন্য কোনো পদক্ষেপ গৃহীত হয়নি। প্রজাতিটি সম্পর্কে প্রস্তাব করা হয়েছে যে এই প্রজাতিটির বর্তমানে সংরক্ষণের প্রয়োজন নেই ।[১]

তথ্যসূত্র:

১. এম মতিয়ুর রহমান (আগস্ট ২০১০)। “অ্যানজিওস্পার্মস ডাইকটিলিডনস”  আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; হাসান, মো আবুল; বেগম, জেড এন তাহমিদা; খন্দকার মনিরুজ্জামান। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ। ১০ (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা ৫৫ । আইএসবিএন 984-30000-0286-0

বি. দ্র: ব্যবহৃত ছবি উইকিপিডিয়া কমন্স থেকে নেওয়া হয়েছে। আলোকচিত্রীর নাম: Forest and Kim Starr

Leave a Comment

error: Content is protected !!