আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > প্রাণ > উদ্ভিদ > বৃক্ষ > কাজুবাদাম-এর বারোটি ভেষজ গুণ ও প্রয়োগ

কাজুবাদাম-এর বারোটি ভেষজ গুণ ও প্রয়োগ

কাজু-বাদাম

কাজু বাদাম চিরসবুজ ছোট আকৃতির বৃক্ষ। এর পাতা সরল, একান্তর জাতীয় উদ্ভিদ। এটি একটি তৈল জাতীয় উদ্ভিদ।

কাজুবাদাম উদ্ভিদের সাধারণ বর্ণনা:

কাজু বাদাম চিরসবুজ ছোট আকৃতির বৃক্ষ, এর পাতা সরল, একান্তর। উপবৃত্তাকার বা বি-ডিম্বাকার, কিনার অখণ্ড, শিরাবিন্যাস জারিকাময়।

মঞ্জরী প্যানিকল, পুষ্প একলিঙ্গ, কখনও উভয়লিঙ্গ, একই গাছে পুং পুষ্প, স্ত্রীপুষ্প এবং উভয়লিঙ্গ পুষ্প জন্মে থাকে।

বৃত্যংশ ৫টি, পাপড়ি ৫টি, পুংকেশর ৯টি, একটি সর্বাপেক্ষা লম্বা, কার্যকর গর্ভপত্র একটি; ফল নাট জাতীয় ফল।

দুইটি অংশে বিভক্ত-বোটার কাছের স্ফীত ও রসালো পুষ্পধার যাকে বলা হয় কাজ আপেল এবং কাজু আপেলের মাথায় সংযুক্ত কাজুবাদাম।

কাজুবাদাম-এর সাধারণ গুণাগুণ:

পুষ্টিকর, বলবর্ধক, স্মৃতিশক্তি বর্ধক, ক্রিমি, কুষ্ঠ, ক্ষত, বিসর্প, ফোলা গুটিকা, পক্ষাঘাত, শোথ নাশক, মূত্রকর, উষ্ণবীর্য, শুক্রবর্ধক।

কাজুবাদাম-এর ব্যবহার্য অংশ: ছাল এবং ফলের শাঁস ।

রোগ নিরাময়ে কাজুবাদাম-এর ব্যবহার:

১. ফলের শাঁস বলবর্ধক, পুষ্টিকর এবং মেধাবর্ধক।

২. ছালের তেল বক্রক্রিমি, কুষ্ঠ, ক্ষত প্রভৃতি রোগনাশক।

আরো পড়ুন: কাজু বাদাম ভেষজ গুণ সম্পন্ন চিরহরিৎ বৃক্ষ

৩. কাজু আপেল ডায়রিয়া, কার্ভি, শোথ এবং মূত্রযন্ত্রের অসুবিধায় ব্যবহৃত হয় ।

৪. বাদামের খোসার তৈল আঁচিল, কড়া, দাদ, ক্ষত প্রভৃতি রোগে হিতকর।

৫. কাজুবাদামের বীজের শাস থেকে উত্তেজক মদ প্রস্তুত হয়। এর ফল বিষাক্ত, কাজেই সাবধানে মুখে দেয়া উচিত।

ঔষুধ তৈরিতে কাজুবাদামের ব্যবহার: শুকনো বাদামের চূর্ণ ও অ্যালকোহল মিশ্রিত করে মাদার টিংচ্যর ঔষুধ প্রস্তুত করা হয় ।

প্রস্তুতকৃত ঔষদের ব্যবহার:

১. এ ঔষুধ বসন্তের গুটি দেখা দিলে ব্যবহার করা যায়।

২. অসহ্য চুলকানি হলে এ ঔষধ ব্যবহার করা হয়।

৩. শরীরে ফোসকার মতো উদ্রেক হলে এ ঔষধ ব্যবহার করা হয়।

৪. জিহবা অত্যন্ত ফোলা ও ব্যাথাযুক্ত দেখা দিলে এ ওষুধ ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

আরো পড়ুন:  নিম এশিয়া ও আফ্রিকার চিরহরিৎ ঔষধি বৃক্ষ

৫. কুষ্ঠরোগে আক্রান্ত স্থান যদি অসাড় রোধ হয় তবে এটি একটি প্রথম শ্রেণীর ঔষধ ।

৬. মানসিক দুর্বলতা ও স্মৃতিশক্তি হীনতায়ও এই ঔষুধ ব্যবহৃত হয়।

৭. আঁচিল, পায়ের কড়া, ক্ষত, পায়ের তলা ফাটা প্রভৃতি পীড়ায় এ ঔষুধ ভাল কাজ করে।

বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজার অঞ্চলে অনেক লাগানো হয়। তাছাড়া ঢাকা ও অন্যান্য অনেক জায়গায় এটি বাগানে দেখা যায়। ছোট গাছটিকে ইচ্ছা করলেই বাড়িতে এক কোণে লাগিয়ে রাখা যায়।

সতর্কীকরণ: ঘরে প্রস্তুতকৃত যে কোনো ভেষজ ওষুধ নিজ দায়িত্বে ব্যবহার করুন।

তথ্যসূত্রঃ

১. মাওলানা জাকির হোসাইন আজাদী: ‘গাছ-গাছড়ায় হাজার গুণ ও লতাপাতায় রোগ মুক্তি, সত্যকথা প্রকাশ, বাংলাবাজার, ঢাকা, প্রথম প্রকাশ ২০০৯, পৃষ্ঠা, ১১৬-১১৭।

বি. দ্র: ব্যবহৃত ছবি উইকিমিডিয়া কমন্স থেকে নেওয়া হয়েছে। আলোকচিত্রীর নাম: Upendra Shenoy

Dolon Prova
জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ “স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে”। বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।

Leave a Reply

Top
You cannot copy content of this page