নির্বাচনিক

ফাল্গুন অথবা চৈত্রে বাতাসেরা দিক্ বদলাবে।

কথােপকথনে মুগ্ধ হবে দুটি পার্শ্ববর্তী সিঁড়ি,—

“অবশ্যকর্তব্য নীড়।” (মড়াকাটা ঘর-স্থানাভাবে?)

 

নখাগ্রে নক্ষত্রপল্লী , ট্যাঁকে টুকরাে অর্ধদগ্ধ বিড়ি।

মাসের দুর্ভিক্ষ নইলে ঋষি মনে হতাে হাবভাবে।

বিকৃতমস্তিষ্ক চাঁদ উল্লাঙুল স্বপ্নে অশীরীরী।

 

বিকালে মসৃণ সূর্য মূর্ছা যাবে লেকে প্রত্যহ।

মন্দভাগ্য বার্সিলােনা রেস্তোরাতে মন্দ লাগবে না।

সাম্য অতি খাসা চিজ!—অনুচিত কিন্তু রাজদ্রোহ!

 

‘জীবন বিস্বাদ লাগে।’—ইত্যাদিতে ইতস্তত দেনা।

এবার আত্মাকে, বন্ধু, করা যাক প্রত্যাহার। ( অহো

সম্প্রতি মাঘের দ্বন্দ্বে ছত্রভঙ্গ দক্ষিণের সেনা।

 

সদলে বসন্ত তাও পদত্যাগ পত্র পাঠাবে না?)

আরো পড়ুন:  চীন: ১৯৩৮

Leave a Comment

error: Content is protected !!