সামরিক বাহিনী হচ্ছে যুদ্ধবিগ্রহের উদ্দেশ্যে পরিচালিত ভারী-অস্ত্রসজ্জিত ও উচ্চ-সংগঠিত বাহিনী

একটি সামরিক বাহিনী (ইংরেজি: Military) হচ্ছে একটি ভারী-অস্ত্রসজ্জিত, উচ্চ-সংগঠিত বাহিনী, যারা মূলত যুদ্ধ তৎপরতার উদ্দেশ্যে পরিচালিত, যাদেরকে সম্মিলিতভাবে সশস্ত্র বাহিনীও বলা হয়ে থাকে। এটি সাধারণত একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র দ্বারা সরকারীভাবে অনুমোদিত এবং প্রতিপালিত, সামরিক সদস্যরা তাদের স্বতন্ত্র সামরিক উর্দি দ্বারা চিহ্নিতযোগ্য। এটি এক বা একাধিক সামরিক শাখা নিয়ে গঠিত যেমন সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমানবাহিনী এবং নির্দিষ্ট কিছু দেশে সামুদ্রিক রক্ষী এবং উপকূল রক্ষী নিয়ে গঠিত হতে পারে। সামরিক বাহিনীর প্রধান কাজ সাধারণত রাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা এবং সশস্ত্র বহিঃশত্রুর হুমকির বিরুদ্ধে স্বদেশের স্বার্থ রক্ষা করা।

বিস্তৃত ব্যবহারে, “সশস্ত্র বাহিনী” এবং “সামরিক বাহিনী” শব্দটি প্রায়শই সমার্থক হিসাবে বিবেচিত হয়। যদিও প্রযুক্তিগত ব্যবহারের ক্ষেত্রে মাঝে মাঝে “সশস্ত্র বাহিনী” এবং “সামরিক বাহিনী” শব্দ দ্বার একটি পার্থক্য তৈরি করা হয় যাতে কোনও দেশের সশস্ত্র বাহিনী তার সামরিক এবং অন্যান্য আধাসামরিক বাহিনী উভয়কেই অন্তর্ভুক্ত করতে পারে। রাষ্ট্রের স্বীকৃত নয় এমন বিভিন্ন ধরণের অনিয়মিত সামরিক বাহিনী রয়েছে; যদিও তারা নিয়মিত সামরিক বাহিনীর সাথে অনেকগুলি বৈশিষ্ট্য ভাগ করে নেয়; তবে এগুলিকে প্রায়শই কেবল “সামরিক” হিসাবে চিহ্নিত করা হয়।

সামরিক বাহিনীর অংশ হিসাবে সৈন্যগিরি পেশা নথিকৃত সামরিক ইতিহাসের চেয়ে পুরানো। কালের গহ্বর থেকে রক্ষা পাওয়া ধ্রুপদী প্রাচীন বেশ কয়েকটি চিত্র তার সামরিক নেতাদের শক্তি এবং কীর্তি বিস্ময়করভাবে তুলে ধরেছে। সৈন্যগিরি খ্রিস্টপূর্ব ১২৭৪ সালে কাদেশের যুদ্ধে দ্বিতীয় ফেরাউন রামেসিসের রাজত্বকালের অন্যতম সংজ্ঞা ছিল এবং তাঁর স্মৃতিসৌধগুলি এটিকে নিম্ন-রিলিফ হিসাবে স্মরণ করেছে। এক হাজার বছর পরে, একীকৃত চীনের প্রথম সম্রাট কিন শি হুয়াং তাঁর সামরিক শক্তি দিয়ে দেবতাদের মুগ্ধ করার জন্য এতটাই দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিলেন যে তিনি নিজেই পোড়ামাটির তৈরি একটি সেনাদলের সাথে সমাহিত হয়েছিলেন। রোমানরা সামরিক বিষয়গুলিতে যথেষ্ট মনোযোগ দিয়েছিল, উত্তর প্রজন্মের জন্য এই বিষয়ে বহু গ্রন্থ ও লেখার পাশাপাশি বিপুল সংখ্যক বিমূর্তভাবে খোদাইকৃত বিজয়ী খিলান এবং বিজয়ী কলামগুলি তৈরি করে রেখেছিল।

আরো পড়ুন:  রাজনৈতিক যুদ্ধ তৎপরতা হচ্ছে প্রতিপক্ষকে বাধ্য করার উদ্দেশ্যে রাজনৈতিক উপায়ের ব্যবহার

একটি দেশের সামরিক বাহিনী আবাসন, বিদ্যালয়, উপযোগিতাসমূহ, রসদসমূহ, হাসপাতাল, আইনী পরিষেবা, খাদ্য উৎপাদন, ফিনান্স এবং ব্যাংকিং পরিষেবাদির মতো নিবেদিত অবকাঠামোসহ একটি স্বতন্ত্র সামাজিক উপসংস্কৃতি হিসাবে কাজ করতে পারে। যুদ্ধবিগ্রহের বাইরে সামরিক বাহিনীকে রাষ্ট্রের অভ্যন্তরে অতিরিক্ত অনুমোদিত ও অনুমোদনহীন কার্যক্রমে নিযুক্ত করা যেতে পারে। সেসব কাজের ভেতরে আছে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা হুমকী, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ, একটি রাজনৈতিক কার্যক্রম প্রচার, জরুরি পরিষেবা ও পুনর্গঠন, কর্পোরেট অর্থনৈতিক স্বার্থ রক্ষা, সামাজিক অনুষ্ঠান এবং জাতীয় সম্মানসহ এই ধরনের আরো নিরাপত্তা ও সুরক্ষার কাজে।

ইতিহাস

সামরিক ইতিহাস প্রায়শই সমস্ত রাষ্ট্রীয় সেনাবাহিনীর ইতিহাস নয়, বরং এটা সমস্ত সংঘাতের ইতিহাস হিসাবে বিবেচিত হয়। সামরিক ইতিহাস যুদ্ধের ইতিহাস থেকে কিছুটা পৃথক। সামরিক ইতিহাস যুদ্ধ-তৈরির জনগণ এবং সংস্থাগুলির উপর আলোকপাত করে, অন্যদিকে যুদ্ধের ইতিহাস যুদ্ধের বিবর্তনকে প্রযুক্তি, সরকার এবং ভূগোলের পরিবর্তনের সাথে মিলিয়ে যুদ্ধের বিবর্তনের দিকে আলোকপাত করে।

Leave a Comment

error: Content is protected !!