কাতালোনিয়ার বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন একটি স্বাধীনতাবিরোধী আন্দোলন

কাতালোনিয়ার বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন (ইংরেজি: Catalan separatist movement) হচ্ছে একটি স্বাধীনতাবিরোধী বিশ্বমানবতার শত্রুদের আন্দোলন। স্বাধীনতা বা মুক্তি শব্দটি আধুনিককালে বহুল ব্যবহৃত এবং বহু বিশ্লেষিত একটি শব্দ। স্বাধীনতা বা মুক্তি শব্দটিকে মার্কসবাদীরা বুর্জোয়াদের অর্থে ব্যবহার করেননি। তাঁদের কাছে স্বাধীনতা মানে প্রধানত পণ্য, পুঁজি, মুনাফা থেকে মুক্তি এবং সাম্রাজ্যবাদের কালে সাম্রাজ্যবাদের আর্থিক লুণ্ঠন থেকে মুক্ত অর্থনৈতিক স্বাধীনতা। এই স্বাধীনতার সাথে যুক্ত হয় নিপীড়িত জাতিসমূহের জাতিগত স্বাধীনতা, বিভিন্ন রাষ্ট্রগুলোর পতাকা স্বাধীনতা, পশ্চাৎপদ দেশগুলোর শিল্প-কারখানা বিকাশের স্বাধীনতা।

স্পেন দেশ হিসেবে পঞ্চদশ শতাব্দী থেকেই পুঁজিবাদী, উপনিবেশবাদী এবং এখন সাম্রাজ্যবাদী। এশিয়া, আফ্রিকা লাতিন আমেরিকার দেশগুলোতে স্পেনের শোষণের প্রক্রিয়া এখনো বিদ্যমান। স্পেন ২০১২ সালে ছিলো পৃথিবীর ভেতরে ১২তম রপ্তানিকারক দেশ এবং ১৬তম আমদানিকারক দেশ।[১] অর্থাৎ স্পেন সম্পূর্ণরূপে একটি সাম্রাজ্যবাদী গণবিরোধী শোষণমূলক রাষ্ট্র।

এক্ষেত্রে স্পেনের একটি প্রদেশ হিসেবে বিরাজমান কাতালানের আলাদাভাবে স্বাধীনতার দাবি কোনো যোক্তিক দাবি নয়, আবার যারা এই স্বাধীনতা চাচ্ছে তারা তো বুর্জোয়া, অর্থাৎ কাতালোনিয়ার বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন কোনো মুক্তিকামী প্রগতিশীল জাতীয়তাবাদী বা স্বাধীনতাকামী আন্দোলন নয়। ইউরোপে কাতালোনিয়ার বিচ্ছিন্ন হওয়াটা স্বাধীনতা বিরোধী জনগণের শত্রুদের আন্দোলন। এটি সম্ভব হচ্ছে শ্রমিক শ্রেণির দৃষ্টিভঙ্গি ইউরোপে খুব একটা স্বচ্ছ না থাকার কারণে।

কাতালোনিয়ায় আসলে যেটা ঘটছে তা হচ্ছে কাতালোনিয়ার বুর্জোয়ারা, একচেটিয়া পুঁজিপতিরা এবং সাম্রাজ্যবাদীরা আরো অধিক শোষণের জন্য বিচ্ছিন্নতা চাচ্ছে। শোষণের এবং মুনাফার যে ভাগটি স্পেনের অন্যান্য অংশে চলে যেত সেটি তারা আর দিতে রাজি নয়। স্পেনের অন্যান্য অংশ কাতালোনিয়ার চেয়ে পশ্চাৎপদ। কাতালোনিয়ার শিল্পপণ্য গোটা দুনিয়ায় রপ্তানি হয়।

কাতালোনিয়া অঞ্চলটি হচ্ছে একটি উচ্চ শিল্পসমৃদ্ধ অঞ্চল, ২০১৪ সালে কাতালোনিয়ার জিডিপি ছিলো ২০০ বিলিয়ন পাউন্ড যা স্পেনে সর্বোচ্চ।[২]  সেখানে জনপ্রতি জিডিপি ২৭০০০ পাউন্ড, (৩০,০০০ ডলার) যেখানে মাদ্রিদে (৩১,০০০ পাউন্ড) বাস্ক অঞ্চলে (৩০,০০০ পাউন্ড) এবং নাভারেতে (২৮,০০০ পাউন্ড)। ২০১৪ সালে জিডিপি’র বৃদ্ধির শতকরা হার ছিলো ১ দশমিক ৪।[৩] ২০১১ সালে কাতালোনিয়া ছিলো বাৎসরিক জিডিপির ক্ষেত্রে পৃথিবীর ভেতরে ৬৪তম বৃহত্তম অবস্থানে।[৪] কাতালোনিয়া হচ্ছে ইউরোপের চারটি বৃহত্তম মোটরগাড়ি উৎপাদকের একটি। কাতালোনিয়ার অর্থনীতির সেক্টরগুলোর ভাগ হচ্ছে এরকম যে; সেখানে শতকরা তিন ভাগ প্রাকৃতিক উৎস থেকে আসে, শতকরা ৩৭ ভাগ আসে শিল্পকারখানা থেকে এবং সেবাখাত থেকে আসে শতকরা ৬০ ভাগ। তুলনা করা যেতে পারে যে, স্পেনের শিল্পকারখানার  থেকে এটি বেশি, স্পেনের শতকরা হার ২৯ ভাগ।[৫] অর্থাৎ যে কোনো তথ্যেই বোঝা যায় কাতালান বিশ্ব সাম্রাজ্যবাদের একটি অংশ। আর কাতালানরা কোনোভাবেই নিপীড়িত জাতি নয়, বরং তারা গত চারশ বছর ধরে নিপীড়কদের সাথেই মিলেমিশে থেকেছে, শুধু থেকেছে বললে কম বলা হয়, বরং গত চারশ বছর তারা স্পেনের সাথে একত্রে গোটা দুনিয়ার বিভিন্ন জাতিকে নিপীড়নে অংশ নিয়েছে এবং সেসব নিপীড়ন থেকে লভ্য অংশে ভাগ বসিয়েছে।

আরো পড়ুন:  ইউরোপের যুক্তরাষ্ট্র স্লোগান প্রসঙ্গে

তাহলে তারা এখন বিচ্ছিন্নতা কেন চাচ্ছে। এই ঘটনা বুঝতে একটু পেছনের দিকে তাকাতে হবে। ২০০৭-৮ সালের অর্থনৈতিক মন্দা থেকে সাম্রাজবাদ এখনো কোনো পথ দেখাতে পারেনি। কাতালোনিয়ার সাম্রাজ্যবাদী কর্পোরেট কোম্পানিগুলো এই দায়টা এখন কেন্দ্রের উপরে চাপাতে চাইছে। ইউরোপে শ্রমিক শ্রেণীর বিপ্লবী রাজনীতির অনুপস্থিতির কারণে সেখানকার কোনো দেশেই গত দুতিন দশকে কোনো দৃশ্যমান শ্রেণিসংগ্রাম গড়ে উঠেনি। ইউরোপে মূলত এখন প্রতিক্রিয়াশীলদের আধিপত্য এবং দৃশ্যমান সমাজতান্ত্রিক আন্দোলন ইউরোপ থেকে বিলুপ্ত। তার প্রতিক্রিয়ায় গোটা ইউরোপে “নতুন করে চরম জাতীয়তাবাদী ডানপন্থী রাজনীতির বিকাশ ঘটেছে। স্পেনের কাতালোনিয়াদের বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন হলো এই ডানপন্থী রাজনীতি বিকাশের ফল।”[৬] ফলে কাতালোনিয়া বরং সাম্রাজ্যবাদী ভূমিকায় অবতীর্ণ হবার আকাঙ্ক্ষায় এই বিচ্ছিন্নতাবাদ সফল করার চেষ্টা করছে। কাতালোনিয়ার আন্দোলন গোটা দুনিয়ার জনগণের জন্য খারাপ দৃষ্টান্ত হয়েই থাকবে। এবং তাদের এসব পশ্চাৎপদতার কারণে ইউরোপ জ্ঞান-বিজ্ঞান ও প্রগতিশীল কোনো আন্দোলনের দিকেই যেতে পারবে না অদূর ভবিষ্যতে; যার ফলাফল ইতিমধ্যেই চোখে পড়ছে; আরো অনেকগুলো অঞ্চল যেমন স্কটল্যান্ড, ওয়েলশ এবং উত্তর আয়ারল্যান্ড, জার্মানির বাভারিয়া, ফ্রান্সের ব্রিট্টানি এখন পতাকা স্বাধীন হতে চায়।

ইউরোপে এমনিতেই এখন ৬০টির অধিক পতাকা স্বাধীন দেশ। আসলে এই ৬০টির একটিও লেনিনবাদী মতে স্বাধীন নয়, এরা সাম্রাজ্যবাদ দ্বারা নিপীড়িত জাতিগুলোর সম্পদ লুট না করে ১৫ দিনও চলতে পারবে না। যেখানে ইউরোপে সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব হওয়া দরকার সেখানে এরা উল্টা পথে হাঁটছে, গোটা দুনিয়াকে লুট করছে, ন্যাটোর কাছে আত্মমর্যাদা বিকিয়ে দিয়েছে। সেক্ষেত্রে কাতালান আরেকটা পতাকা পেলে কী এমন আঁটিটা বাঁধবে?

তথ্যসূত্র ও টিকা:

১. https://www.omicsonline.org/earth-science-journals-spain/

২. “PIB de las Comunidades Autónomas 2016”. https://www.datosmacro.com/pib/espana-comunidades-autonomas; Retrieved 2016-09-13.

৩. http://www.ine.es/prensa/np901.pdf

৪. National Statistics Office (Spain’s GDP and GRP), National Statistics Office. GDP Figures of Spanish autonomous communities and provinces 2008–2012. http://www.ine.es/prensa/np695.pdf

৫. অর্থনীতির তিন সেক্টরের তত্ত্বটি হচ্ছে এরকম যে, অর্থনীতির প্রাথমিক সেক্টরটি প্রাকৃতিক সম্পদসমূহ প্রত্যক্ষভাবে ব্যবহার করে বা প্রাকৃতিক সম্পদসমূহকে কাজে লাগায়।  প্রাথমিক সেক্টরের অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে কৃষি, বনায়ন, মৎস্য আহরণ এবং খনিজ উৎপাদন। তুলনার্থে, মাধ্যমিক সেক্টরটি শিল্পজাত পণ্য উৎপাদন করে। উচ্চ স্তরিক সেক্টরটি অন্তর্ভুক্ত করে সেবা খাতকে। ব্যবহৃত তথ্যসূত্রের লিংক “Structural Funds programmes in Catalonia (20002006)” (PDF). Archived from the original (PDF) on 25 March 2009. Retrieved 25 April 2010.  

আরো পড়ুন:  অস্ট্রেলিয়া খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ সাম্রাজ্যবাদী শিল্পন্নোত দেশ

৬. মতিউর রহমান, ফেসবুক পোস্ট, ৫ অক্টোবর, ২০১৭, লিংক এখানে

Leave a Comment

error: Content is protected !!