মঙ্গোলিয়া গণপ্রজাতন্ত্রের একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে আলোচনা

মঙ্গোলীয় প্রতিনিধিদলের প্রথম প্রশ্ন: ‘কমরেড লেনিন, আমাদের দেশে গণবিপ্লবী পার্টি গঠন এবং আমাদের পক্ষে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ কাজ কোনটি – এ সম্পর্কে আপনার কী মত?’

কমরেড লেনিন আমাদের প্রতিনিধিদলের কাছে আমাদের দেশের আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে দেখান যে মঙ্গোলিয়া গণপ্রজাতন্ত্রের ভৌগোলিক অবস্থানের দরুণ যুদ্ধকালে সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলি এই দেশটি দখলের মাধ্যমে অন্যান্য দেশের বিরুদ্ধে এক ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহারের চেষ্টা করবে। সেজন্য, কমরেড লেনিন বলেছিলেন, সোভিয়েত রাশিয়ার শ্রমিক ও কৃষকের সঙ্গে একযোগে রাষ্ট্র ও অর্থনৈতিক স্বাধীনতার জন্য লড়াই চালিয়ে যাওয়া হলো আপনাদের দেশের প্রতিটি মেহনতী মানুষের জন্য সঠিক পথ। এমন লড়াই বিচ্ছিন্নভাবে চালানো অসম্ভব। সেজন্য লড়াইয়ে সাফল্যের জন্য প্রয়োজন মঙ্গোলীয় আরাতদের একটি পার্টি গঠন।

মঙ্গোলীয় প্রতিনিধিদলের দ্বিতীয় প্রশ্ন: ‘জাতীয় মুক্তি আন্দোলন কি জয়যুক্ত হবে?’

উত্তরে কমরেড লেনিন বলেন : ‘আজ ত্রিশ বছর হলো আমি নিজে বিপ্লবী আন্দোলনে রয়েছি এবং কোনো জাতির পক্ষে বাহির ও ভেতরের নির্যাতনকারীর কাছ থেকে মুক্তি লাভ কতটা কঠিন নিজ অভিজ্ঞতা থেকে আমি তা ভালই জানি। যদিও মঙ্গোলিয়া পশুপালনের দেশ এবং দেশের মানুষের অধিকাংশই যাযাবর পশুপালক, তবু এই দেশ নিজ বিপ্লবে ব্যাপক অগ্রগতি অর্জন করেছে আর সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ হলো নিজের তৈরী গণবিপ্লবী পার্টির মাধ্যমে এসব সাফল্য সে নিষ্পন্ন করেছে, বিরোধী উপাদানের বাহুল্য বর্জিত জনগণের পার্টি হয়ে ওঠাই যে পার্টির লক্ষ্য।’

মঙ্গোলীয় প্রতিনিধিদলের তৃতীয় প্রশ্ন: ‘গণবিপ্লবী পার্টিকে কমিউনিস্ট পার্টিতে রুপান্তরিত করা কি উচিত নয় ?’

কমরেড লেনিনের জবাব: ‘আমি এটা সুপারিশ করি না। কেননা, একটা পার্টিকে অন্যতর পার্টিতে বদলানো যায় না। কমরেড লেনিন প্রলেতারিয়েতের পার্টি হিসেবে কমিউনিস্ট পার্টির মর্মার্থ ব্যাখ্যা করে বলেছিলেন: ‘পশুপালকদের থেকে প্রলেতারীয় জনগোষ্ঠীতে বদলানোর আগে বিপ্লবীদের রাষ্ট্র, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কার্যকলাপ উন্নয়নে অনেক কাজ করতে হবে, যার ফলশ্রুতি গণবিপ্লবী পার্টিকে কমিউনিস্ট পার্টিতে রুপান্তরের সহায়ক হতে পারে। নামমাত্র সাইনবোর্ড বদলানোর ব্যাপারটা ক্ষতিকর ও বিপজ্জনক।’

আরো পড়ুন:  ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির ইতিহাস হচ্ছে ভারতের বিপ্লবী আন্দোলনের ইতিহাস

কমরেড লেনিন এই ধারণাটি বিশদ করেন যে মঙ্গোলিয়া গণপ্রজাতন্ত্রের পক্ষে অ-পুঁজিবাদী উন্নয়নের পথবর্তী হওয়াটাই সম্ভব ও প্রয়োজনীয়, যার প্রধান শর্ত হলো গণবিপ্লবী পার্টি ও সরকার কর্তৃক কর্ম বৃদ্ধি গ্রহণ, যাতে এই কাজ, পার্টির বর্ধমান প্রভাব ও ক্ষমতার ফলে সমবায়ের সংখ্যা বাড়ায়, নতুন ধরনের অর্থনৈতিক কার্যকলাপ ও জাতীয় সংস্কৃতি প্রবর্তিত হয় এবং দেশের অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়নের স্বার্থে পাটি ও সরকারের পেছনে আরাতদের সংহত করা যায়। পার্টি ও সরকারের উদ্যোগসৃষ্ট নতুন অর্থনৈতিক জীবনধারার এই ক্ষুদ্র দ্বীপগুলি থেকেই আরাত মঙ্গোলিয়ার নতুন অ-পুঁজিবাদী অর্থনৈতিক ব্যবস্থার সূত্রপাত ঘটবে।

৫ নভেম্বর, ১৯২১

৪৪ খণ্ড, ২৩২-২৩৩ পঃ

বিশেষ দ্রষ্টব্য: সাক্ষাতকারটির অনুবাদ নেয়া হয়েছে লেনিনের সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব নামক সংকলন, প্রগতি প্রকাশন, মস্কো, ১৯৬৮; ৫৬৭-৫৬৮ পৃষ্ঠা থেকে।

Leave a Comment

error: Content is protected !!