আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > সাহিত্য > কবিতা > পরমাণু ও সাম্প্রদায়িক বোমা

পরমাণু ও সাম্প্রদায়িক বোমা

কে দেয় কাকে আছাড়
কার ঘরে কটা উত্তরাধুনিক ষাঁড়?
মানুষ মরে গেলে এককালে ভুত হতো
পৌরাণিক প্রেতাত্মারা এখন টিভিতে অশ্লীল,
সেলিব্রেটিরা অতীতের শান্তিতে বুঁদ!
জুতাপেটা খেয়ে তারা মর্দে মুমিন ছিল
বেহায়া খাঁর আমলে।

ফাঁকিস্তান মুর্দাবাদ বলে বহু নেতা মাল পোয়া মিষ্টি খেল
হিন্দুস্তা হামারা, ধর্মভীরু পাব্লিক,
তাই কমরেড, এই আর একটু ঠেলা দিন,
ধর্মনিরপেক্ষ দেশ বানাইতে আরেকটু ঠেলুন।

ডাইনে বাঁয়ে জোড়া লাগিয়ে হরি শিং স্বাধীন
করতে পারেন না কাশ্মীর, আজাদ কাশ্মীর জিন্দাবাদ,
কাশ্মীরি আর মনিপুরি জনতা খুঁজছেন স্বাধীনতার মতো উকুন
স্বদেশের রাষ্ট্রপতি আর প্রধানমন্ত্রির পশ্চাতের ফুটোয়,
নেতারা দিচ্ছেন আশ্বাস,
ভাইসব, তোমরা হচ্ছো গিয়ে আজাদী মানুষ,
স্বাধীনভাবে নুনু নাচাও,
পুঁজিবাদি পণ্য ঐশ্বর্য রায়কে কল্পনা করো;
কী সোন্দর,
নিজের ধর্মকে ফকফকা ভেবে মারো লাফ,
আহা হা, কী লাফায় দেশের মানুষ,
ভরতমাতা জিন্দাবাদ, ফাঁকিস্তা জিন্দাবাদ,
বাঁচতে হলে অস্ত্র চাই, ঘাস খেয়েও অস্ত্র চাই,
হিন্দুস্তা ফাঁকিস্তার পরমাণু বোম চাই,
মারহাবা মারহাবা, জিন্দাবাদ জিন্দাবাদ,
পরমাণু বোম জিন্দাবাদ, গান্ধিবোমা জিন্দাবাদ।

কিনতে হবে ফরাসি পারফিউম, ফরাসি জংগি বিমান;
মাগার শরীরেও জমেছে মেদ,
আহা হা হা কী সোন্দর নিতম্ব ভরতীয় মরদ ও মাগীর
কী সোন্দর ইন্দিরার উরু
পরমাণু বোমার মতো ইন্দিরার দুই উরু।

এক কবি বক্তৃতা কপচাচ্ছেন
কীসের এতো অমিল
সব মরদেই ভালোবাসার ভান করে,
সব দাসমালিকই অভিনয়ে মহান;
তারা টাকা হাতে নিয়ে খুঁজেছিল হেরেম ও উপপত্নি
খোজা পাহারাদারের ইতিহাস লেখে যারা,
তারা আকাশে চুমু খেতো,
কপালে আঘাতের চিহ্ন,
দুজন পালাল দেশ ছেড়ে,
জংগলে আশ্রয় নিলো, শিকারীর বেশ,
গোত্র আর সন্তানবৃদ্ধির ফল এসে গেল পশু পালনে;
ডাকাতি শুরু করল পাশের গ্রামে
অস্ত্র আর অস্ত্রগুদাম, যুদ্ধবিদ্যা, যোদ্ধাবাহিনী ও অস্ত্রে পারদর্শিতা।
পাশের বা দূরের গ্রামগুলোতে আক্রমণ, হরিলুট,
দ্বিদলীয় ভাগ বাটোয়ারা, শক্তি ও খনিজ সম্পদে;
সবই বিলাস, ভোগ আর ক্ষমতার খেল।

আরো পড়ুন:  ‘আধুনিক মানুষের ধারাবাহিক গল্প’ কবিতাগ্রন্থ প্রসঙ্গে একটি আলোচনা

আর কয়েকজন অধিকার অধিকার সমতা স্বাধীনতা বলে লড়ে গেল
যুগ যুগান্তরে।

এবং শত শত সুবিধাবাদি বক্তব্য রাখছেন
রাজা আসছেন রাজা আসছেন
সবাই আকাশের দিকে হা করে তাকাও
রাজা তোমাদের মুখে থুথু ফেলবেন
আর যাদের অসুখ করেছে তারা
রাজার থুথুমিশ্রিত পানিপড়া খাও
তেল পড়া মাখো, সব অসুখ বন্দ হো যায়েগা।
বাচ্চা লোক লাগাও তালিয়া।

রাজা কহিলেন ‘হাগবো’
জমিদার পুরোহিত আমলারা
রাজার পশ্চাতের ফুটোয় একটি কৌটা ধরলেন,
পরিত্যক্ত কৌটা ভর্তি সম্পদ শুটকি বানিয়ে সংরক্ষণ করা হবে।
সুবিধাভোগীরা শ্লোগান ধরলো মারহাবা রাজা, জিন্দাবাদ রাজা;
রাজা কহিলেন, আমিই সর্বশ্রেষ্ঠ শুটকি দিলাম পুটকি দিয়ে
আর কোনো রাজা এইরকম দিতে পারবে না,
আজ থেকে গোটা পৃথিবী শুটকি পূর্ণ হলো।

দুর্গন্ধে পূর্ণ থাকল সমস্ত সামন্ত আর পুঁজির কলঙ্কিত যুগ।

Anup Sadi
অনুপ সাদির প্রথম কবিতার বই “পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি” প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে। তাঁর মোট প্রকাশিত গ্রন্থ ১১টি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশিত তাঁর “সমাজতন্ত্র” ও “মার্কসবাদ” গ্রন্থ দুটি পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। ২০১০ সালে সম্পাদনা করেন “বাঙালির গণতান্ত্রিক চিন্তাধারা” নামের একটি প্রবন্ধগ্রন্থ। জন্ম ১৬ জুন, ১৯৭৭। তিনি লেখাপড়া করেছেন ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।

Leave a Reply

Top
You cannot copy content of this page