আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > সাহিত্য > কবিতা > দল ও পরাধীনতার ধারাবাহিকতা

দল ও পরাধীনতার ধারাবাহিকতা

দাস সমাজ

মানুষগুলো বদলে গেল স্বার্থপরতায়[১]  
রাজনীতি উচ্ছন্নে গেল কার কুচেষ্টায়
কষ্ট করে কে আর দীপ জ্বেলে যায় মাঝপথে?
তার চেয়ে সহজ পথ সংখ্যাগরিষ্ঠতার নেশা, পুঁজির পাশাখেলা,
অংকে যত দূরেই থাক গণতন্ত্র আর দেহবিক্রির সূত্র
সব ছাত্রই মুখস্ত কর, হাতে নাও ব্যালট কাগজ,
সিল মারো সারারাত গোপনে গোপনে
খবর শুনছেন—আধুনিক রাজনীতি প্যাকেজ প্রোগাম; —

আমরা চাই বা নাচাই
কিছু একটা ঘটে গেল গোটা মহাদেশে
লাল ঠেকানোর সতর্কতা……………….

— তুমি কোন দলের?
— সাদা
— করো কী?
— কোন্দল
— আপনি কোন দলের?
— কালো
— করেন কী?
— কোন্দল
— তুই কোন দলের?
— আমি আমার দলের, আমার নিজস্ব একটা হ্যাচারি আছে,
ওখানে পোনা উৎপাদিত হয় বাম, ডান, ধর্ম, ডাকাত, সন্ত্রাসি, ধান্দাবাজ, ধাপ্পাবাজ
যা চাইবেন তাই পাবেন
যোগাযোগ বিভিন্ন শাখায়;

আর এটা হলো বাঙলাদেশ,
এখানে পৃথিবীর সব মতবাদ বেঁচে থাকে
মরে ভুত হওয়া ধারনাও শক্তি সঞ্চয় করে।

কয়েকজন ছোকরা গুনতে থাকে
কার আকাশে কতো পাখি
কার আঘাতে কোন সকালে মহাবীরের উল্টে পড়ে চেয়ার
ভোর হোলো রাত্রি খোলো
তোর জন্যে আগামিতে আসছে সাধুবাদ
হাতে নে আমাদের হাত
এই হাতে পাবি তুই প্রাচীন ভারতের ধূলিকণা
কালের আয়নায় দেখা স্নিগ্ধ আলো কণা
আসছে আগামিতে পাখির ঠোঁটে ফুল
গোপন সাধনা
নীল জল …………..

আমার নীলপরি
পরে নীল শাড়ি
তার এখন সময় কাটে
চিরচেনা বাড়ি।

বন্ধু আমার ঝড় এলে হারিয়ে ফেলে নাও
অন্য মাঝি সাঁতরে বাঁচায় বৃষ্টি ঝড়ের দিনে
দুরের বন্ধু হত্যাকান্ডে জড়িয়ে পড়ে প্রতিশোধ চিনে
অপরিচিত ডাকাতের পরিত্যক্ত ঘরে শোনায় নির্মম সত্য
‘কেউ মারা যায় না কখনো’
ইতিহাস সজীব সমুদ্রের মতোই
সমুদ্র সজীব পাহাড়ের তীর।

১৯৪৭ ও ১৭৫৭ একই নদীর দুই তীর
একটি মেয়ে বিক্রি হলো
কিনলো উমিচাঁদ[২] , গায়ে লর্ড ক্লাইভের[৩] পোশাক
সেই বিক্রিত তরুণীটির হাতে ধর্মগ্রন্থ
সে কী মানুষ নাকি পন্য
সে কী বর্নবাদী নাকি ইঁচড়ে পাকা
সে কী ঘোড়ার ডিম নাকি অস্তিত্ববাদি
সে কী ছেঁড়া টাকা নাকি হাতপাখা
তার পার্শ্ববর্তিনিরা কী মানুষ নাকি তেলাপোকা
নাকি তারা নাওমি ক্যাম্পবেল[৪] বা ক্লিওপেট্রা[৫]

আরো পড়ুন:  পুরুষালী নেতা ও ভাতার

অথবা তারা মানুষ আর মানুষ আর পিঁপড়া ………

টিকা:

১. টমাস হবসকে দিয়ে পুঁজিপতিরা বলিয়ে নিয়েছিল, মানুষ হচ্ছে লোভী, নোংরা, পিশাচ।
২. নবাবী আমলে আফিম ও শোরার ব্যাবসায়ি উমিচাঁদ ছিল ব্রিটিশ উপনিবেশবাদের সহায়তাকারী শয়তান
৩. লর্ড ক্লাইভ হচ্ছে আধুনিক ব্রিটিশ বর্বরতার প্রতীক এক সাম্রাজ্যবাদী গণহত্যাকারী খুনি।
৪. নাওমি ক্যাম্পবেল (জন্ম: ২২শে মে ১৯৭০) একজন বিখ্যাত ব্রিটিশ ফ্যাশন মডেল, অভিনেত্রী, গায়িকা ও পুঁজি পূজারি।  
৫. ক্লিওপেট্রা (৬৯ – ১২ আগস্ট, ৩০ খ্রিস্টপূর্ব) প্রাচীন মিশরের দাস মালিক এবং দাস মালিকদের রাণী, স্বাধীনতা ও জনগণের শত্রু।

Anup Sadi
অনুপ সাদির প্রথম কবিতার বই “পৃথিবীর রাষ্ট্রনীতি আর তোমাদের বংশবাতি” প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে। তাঁর মোট প্রকাশিত গ্রন্থ ১১টি। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশিত তাঁর “সমাজতন্ত্র” ও “মার্কসবাদ” গ্রন্থ দুটি পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছে। ২০১০ সালে সম্পাদনা করেন “বাঙালির গণতান্ত্রিক চিন্তাধারা” নামের একটি প্রবন্ধগ্রন্থ। জন্ম ১৬ জুন, ১৯৭৭। তিনি লেখাপড়া করেছেন ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।

Leave a Reply

Top
You cannot copy content of this page